নিলামে উঠছে তাল্লু স্পিনিং: অনিশ্চয়তার পথে বিনিয়োগকারীরা

শেয়ারবাজার রিপোর্ট: পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত বঙ্গজ-তাল্লু গ্রুপের কোম্পানি বস্ত্রখাতের তাল্লু স্পিনিং মিলস লিমিটেডের সম্পত্তি নিলামে উঠাচ্ছে বাংলাদেশ ডেভেলপমেন্ট ব্যাংক লিমিটেড (বিডিবিএল)। বিডিবিএল কোম্পানিটির কাছে ৬৮ কোটি ৮৪ লাখ ৩৪ হাজার ৪৩৬.৭৯ টাকা পাওনা রয়েছে। সেই টাকা উদ্ধারে কোম্পানিটির চুয়াডাঙ্গা ও ময়মনসিংহের ফ্যাক্টরীর সম্পত্তি নিলামে উঠানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে। বিডিবিএল সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

বিডিবিএল সূত্রে আরো জানা যায়, ঋণ পরিশোধের জন্য তাল্লু স্পিনিং মিলস লিমিটেডকে বারংবার তলব-তাগাদা দেয়া স্বত্ত্বেও কোম্পানিটি পাওনা পরিশোধে কোনো উদ্যোগ নিচ্ছে না। ৩১ মার্চ ২০১৮ তারিখ পর্যন্ত সাময়িক হিসাব অনুযায়ী প্রায় ৬৯ কোটি টাকা ঋণের তলে আটকে গেছে তাল্লু স্পিনিং। তাই ঋণ পরিশোধে ব্যর্থ হওয়ায় উক্ত ঋণের হালনাগাদ আদায়কালতক সুদ ও অন্যান্য খরচসহ সমুদয় টাকা আদায়ের জন্য অর্থঋণ আদালত আইন ২০০৩ এর ১২ (৩) ধারা অনুযায়ী কোম্পানি সম্পত্তি বিক্রয় করার জন্য নিলামের আয়োজন করেছে। আগামী ২৪ মে,২০১৮ বিকাল ৩টার মধ্যে দরপত্রদাতাদের কাছ থেকে আবেদন সংগ্রহের শেষ তারিখ নির্ধারণ করা হয়েছে। চুয়াডাঙ্গায় তাল্লু স্পিনিংয়ের মোট ৯০৪ শতাংশ জমি, সেখানে অবস্থিত যাবতীয় অবকাঠামো, স্থাপনা, মেশিনারিজ ও সরঞ্জামাদি যা কিছু যে অবস্থায় রয়েছে সে অবস্থায় বিক্রি করে দেয়া হবে। এছাড়া ময়মনসিংহের ৮৯৩ শতাংশ জমি, সেখানে অবস্থিত যাবতীয় অবকাঠামো, স্থাপনা, মেশিনারিজ ও সরঞ্জামাদি যা কিছু যে অবস্থায় রয়েছে সে অবস্থায় বিক্রি করে দেয়া হবে।

এদিকে দীর্ঘদিনের স্বনামধন্য বঙ্গজ-তাল্লু গ্রুপের প্রতিষ্ঠানের এরকম নাজেহাল অবস্থায় শঙ্কিত হয়ে পড়েছেন বিনিয়োগকারীরা। কারণ ব্যাংক কোম্পানি সম্পত্তি বাজেয়াপ্ত করে বিক্রি করলে শেয়ারহোল্ডারদের কপালে কিছুই জুটবে না। দীর্ঘ অনেক বছর ধরে কোম্পানির কাছ থেকে এমনিতেই বিনিয়োগকারীরা কোনো ক্যাশ ডিভিডেন্ড পায় না। তারওপর পুরো কোম্পানির অস্তিত্বই চলে গেলে বিনিয়োগকারীদের অনেক ক্ষতির মুখে পড়তে হবে।

এ ব্যাপারে কোম্পানির ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো: আতিকুল হকের সঙ্গে যোগাযোগ করার চেষ্টা করা হলেও ব্যর্থ হতে হয়। ১৯৯০ সালে পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত তাল্লু স্পিনিংয়ের অনুমোদিত মূলধন ২০০ কোটি টাকা ও পরিশোধিত মূলধন ৮৯ কোটি ৩৩ লাখ ৫০ হাজার টাকা। কোম্পানির রিজার্ভ এবং সারপ্লাসে ২৭ কোটি ৬৭ লাখ টাকা দেখানো হয়েছে। ১০ টাকা ফেসভ্যালুর এ কোম্পানির শেয়ার দর ৯.৬০ টাকা। এর মোট ৮ কোটি ৯৩ লাখ ৩৫ হাজার ৩৭৫টি শেয়ারের মধ্যে পরিচালনা পর্ষদের কাছে রয়েছে ২৯.০৪ শতাংশ, প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারী ১৭.০২ শতাংশ এবং সাধারণ বিনিয়োগকারীদের কাছে রয়েছে ৫৩.৯৪ শতাংশ শেয়ার।

 

শেয়ারবাজারনিউজ/ম.সা

আপনার মন্তব্য

Top