“ব্রাইট মাইন্ডস, রিডিউসিং ইনইকুয়ালিটিস” স্লোগান নিয়ে শুরু ষষ্ঠ টেলিনর ইয়ুথ ফোরাম

শেয়ারবাজার রিপোর্ট: “ব্রাইট মাইন্ডস, রিডিউসিং ইনইকুয়ালিটিস” স্লোগান নিয়ে শুরু হলো ষষ্ঠ টেলিনর ইয়ুথ ফোরাম (টিওয়াইএফ)। তরুণদের ক্ষমতায়নের বিশ্ব মঞ্চে বাংলাদেশকে প্রতিনিধিত্ব করার জন্য তরুণ মেধাবীদের খুঁজে নেওয়ার কার্যক্রম শুরু হয়েছে।

আজ রাজধানীর সোনারগাঁও হোটেলে অনুষ্ঠিত এক সংবাদ সম্মেলনে টেলিনর ইয়ুথ ফোরাম ২০১৮-এর বাংলাদেশ পর্বের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন ঘোষণা করা হয়।

গ্রামীণফোনের চিফ কর্পোরেট অ্যাফেয়ার্স অফিসার মাহমুদ হোসেন বলেন, ‘বাংলাদেশ একটি নবীন দেশ এবং এর জনগোষ্ঠিও তরুণ। অর্থাৎ এদেশে ধারণা সৃষ্টির পাশাপাশি ধরণা বাস্তবায়নের মানুষও আছে। আর এ্টাই বাংলাদেশে বড় শক্তি। টেলিনর ইয়ুথ ফোরামের শেষ পাঁচ সংস্করণে বাংলাদেশের প্রতিনিধিরা ডিজিটাল প্রযুক্তির মাধ্যমে সামাজিক সমস্যার সমধানে লক্ষ্য অর্জনে বড় ভূমিকা রেখেছ। আমাদের বিশ্বাস এ বছরও তার কোন ব্যতিক্রম হবে না। ’

টেলিনর ইয়ুথ ফোরাম (টিওয়াইএফ) একটি বৈশ্বিক প্ল্যাটফর্ম, যৌথভাবে যা ডিজাইন ও পৃষ্ঠপোষকতায় রয়েছে টেলিনর গ্রুপ এবং নোবেল পিস সেন্টার (এনপিসি)। তরুণরাই পারে ডিজিটাল প্রযুক্তি ব্যবহার করে পৃথিবীতে সত্যিকারের পরিবর্তন আনতে, প্রতিষ্ঠান দু’টির নিজেদের যৌথ এ বিশ্বাসের ওপরই প্রতিষ্ঠিত হয়েছে টেলিনর ইয়ুথ ফোরাম।

সংবাদ সম্মেলনে বলা হয়,  এ বছর টিওয়াইএফ নিরাপদ ইন্টারনেট, ডিজিটাল পরিচয়, সামাজিক উন্নয়নে বিগ ডাটার ব্যবহার এবং নিরাপদ কর্ম পরিবেশ সংক্রান্ত প্রকল্পের মাধ্যমে “ব্রাইট মাইন্ডস, রিডিউসিং ইনইকুয়ালিটিজ” স্লোগানের সার্থকতা দেখতে চায়।

২০ থেকে ২৮ বছর বয়সী বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থী, শিক্ষক, পেশাজীবী, উদ্যোক্তা এবং উদ্ভাবকরা আগামী ৩১ জুলাই এর মধ্যে অনলাইনে (https://www.telenor.com/youthforum/apply-for-tyf-2018/) আবেদন করতে পারবেন।

আবেদনকারীদের মধ্য থেকে বিভিন্ন প্রক্রিয়ার মাধ্যমে ২ জনকে বাছাই করা হবে আগামী ৮ থেকে ১০ ডিসেম্বর নরওয়ের অসলোতে অনুষ্ঠিতব্য টিওয়াইএফ- এ আবেদনের জন্য যোগ্য বলে বিবেচিত হবে।

বাংলাদেশ থেকে নির্বাচিত প্রতিনিধিরা অসলো এবং ব্যাংককের অনুষ্ঠানসহ বছরজুড়েই তাদের জন্য নির্ধারিত দলের সাথে কাজ করবে। জরুরি সব সামাজিক সমস্যা সমাধানে ডিজিটাল সেবা তৈরিতে বছরজুড়েই তারা কাজ করবে।তাদের কাজ চূড়ান্ত বিচারে বিশ্বে শান্তি প্রতিষ্ঠায় সহায়তা করবে।

টিওয়াইএফ এর বাংলাদেশ পর্ব অসলোতে প্রেরণের জন্য দুজন প্রতিনিধি নির্বাচনের মধ্য দিয়ে সমাপ্ত হবে। এবছর বাংলাদেশ ,ডেনমার্ক, মালয়শিয়া, মিয়ানমার, নরওয়ে, পাকিস্তান সুইডেন এবং থাইল্যান্ডের প্রতিনিধিরা আগামী ৮ থেকে ১১ ডিসেম্বর নরওয়ের রাজধানী অসলোতে আয়োজিত বিশেষ অনুষ্ঠানে অংশ নেবে।

গত বছরে টেলিনর ইয়ুথ ফোরামে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ব্যবসায় প্রশাসন ইনস্টিটিউটের (আইবিএ) শিক্ষার্থী মিয়া মো খিয়াং ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের রাকিব রহমান শাওন নরওয়ের বৈশ্বিক চূড়ান্ত প্রতিযোগিতায় বাংলাদেশক প্রতিনিধিত্ব করেন।

এই অনুষ্ঠানে আরো উপস্থিত ছিলেন  গ্রামীণফোনের ভারপ্রাপ্ত প্রধান মানবসম্পদ কর্মকর্তা সৈয়দ তানভির হোসেন এবং হেড অফ কমিউনিকেশনস সৈয়দ তালাত কামাল।

উল্লেখ্য, টেলিনর গ্রুপের অঙ্গসংগঠন গ্রামীণফোন ৬৭ মিলিয়ন এরও অধিক গ্রাহক নিয়ে বাংলাদেশের অগ্রণী টেলিযোগাযোগ প্রতিষ্ঠান। ১৯৯৭ সালে যাত্রা শুরু করার পর দেশব্যাপী সর্ববৃহৎ নেটওয়ার্ক ব্যবস্থা গড়ে তুলেছে গ্রামীণফোন যার মাধ্যমে দেশের ৯৯ শতাংশ মানুষ সেবা গ্রহণ করতে পারে। ব্র্যান্ড প্রতিজ্ঞা ‘‘চলো বহুদূর’’ এর আওতায় গ্রামীণফোন, গ্রাহকদের জন্য সর্বোত্তম মোবাইল ডাটা, ভয়েস সেবা এবং সবার জন্য ইন্টারনেট প্রদানে প্রতিজ্ঞাবদ্ধ। গ্রামীণফোন লিমিটেড ২০০৯ সালে দেশের শেয়ারবাজারে তালিকাভুক্ত হয়। কোম্পানিটির অনুমোদিত মূলধন ৪০০ কোটি টাকা। আর পরিশোধিত মূলধন ১৩৫ কোটি ৩০ লাখ টাকা।

 

শেয়ারাবাজারনিউজ/এম.আর

আপনার মন্তব্য

Top