কাপড়ের ব্যবসা ছেড়ে শেয়ার ব্যবসায় বিপ্লব

sakkhatkar (2)শেয়ারবাজার রিপোর্ট: কাপড়ের ব্যবসা ছেড়ে পুরোপুরিভাবে শেয়ার ব্যবসায় জড়িয়ে পড়েছেন বিপ্লব। পুরো নাম মোঃ মশিউর রহমান মজুমদার। ২০০৭ সাল থেকে শেয়ার ব্যবসা শুরু করেন। দুই লাখ টাকা পুঁজি নিয়ে শেয়ার ব্যবসা শুরু করে ভালোই লাভের মুখ দেখেছেন তিনি। কৌশলগত ভাবে বিনিয়োগ না করার কারণে শেয়ারবাজারের মন্দাবস্থায় তার বেশ লোকসান হয়েছে। শেয়ারবাজার মন্দায় তার পুঁজির প্রায় সবটাই হারিয়েছেন। তবুও শেয়ার ব্যবসায়ই যেন তার নেশা। এছাড়া বর্তমান বাজার পরিস্থিতি আগের তুলনায় ভালো বলে মনে করেন মশিউর রহমান। তবে সাম্প্রতিক পুঁজিবাজারে দুর্বল কোম্পানির প্রবেশটাকে ঠিক বলে মনে করছেন না তিনি। সম্প্রতি শেয়ারবাজার নিউজ ডট কমের সাথে এক একান্ত সাক্ষাতকার এসব মন্তব্য করেন মশিউর রহমান । যার চুম্বক অংশ পাঠকদের উদ্দেশ্যে নিম্নে তুলে ধরা হলো :
শেয়ারবাজার নিউজ :  শেয়ার ব্যবসায় আসার আগে কি করতেন ?
মোঃ মশিউর রহমান: ২০০৬-২০০৭ সালের দিকে চাকরির বাজার বেশ মন্দা ছিল তাই ব্যবসায়ের দিকটায় বেছে নিয়েছি। আগে ছোট খাটো কাপড়ের ব্যবসায় করতাম। বন্ধুদের মুখে শুনতাম শেয়ার ব্যবসা একটি লাভজনক মানসম্মত ব্যবসা। এখানে অল্পপুঁজি বিনিয়োগ করে ভাল মুনাফা অর্জন করা যায়। পরবর্তীতে আমি  ব্যবসাটি সম্পর্কে জেনে ২০০৭ সালে  বিও অ্যাকাউন্ট খুলে প্রথমে দুই লাখ টাকা বিনিয়োগ করি। ব্যবসায় ভাল লাভ হওয়ায় পরবর্তীতে বিভিন্ন কোম্পানিতে  আরও দুই লাখ ৬০ হাজার টাকা বিনিয়োগ করি।
শেয়ারবাজার নিউজ :  বিনিয়োগ করার পর কি দেখলেন,শেয়ার ব্যবসা লাভজনক কিনা?
মোঃ মশিউর রহমান: যখন নতুন ব্যবসা করি তখন বেশ ভালোই ছিল। ২০০৮-২০০৯ সালে বাজারের অবস্থা বেশ ভাল ছিল তাই বলা যায় ওই সময়টা সু-সময়ে কেটেছে। ওই সময়টাতে প্রায় দুই লাখ ৮০ হাজার টাকা লাভ হয়েছে। তবে বাজারের আবস্থা মন্দা ছিল ২০১০ সালে। তখনকার সময়টাকে বেশ দু:সময় বলা যায়। বাজার ধসের কারণে প্রায় চার লাখ বিশ হাজার টাকা লোকসান হয়েছে। বাজার মন্দা থাকার কারনে বেশ কিছু দিন বিনিয়োগ থেকে বিরত ছিলাম।
শেয়ারবাজার নিউজ : বর্তমান বাজার পরিস্থিতি কেমন যাচ্ছে ?
মোঃ মশিউর রহমান: বর্তমান বাজার পরিস্থিতির পূর্বের তুলনায় অনেকটায় ভাল বলা যায়। গত বছরে বাজার পরিস্থিতি খুবই খারাপ ছিল। নানা কারণে বাজারের অবস্থা এমনটি হয়েছে। তবে এই অবস্থা বেশি দিন থাকবে না। বাজার পরিস্থিতি যে অবস্থায় আছে, তা বিনিয়োগকারীদের জন্য আগের তুলনায় খুব ভাল। স্বল্প মেয়াদে বাজার খারাপের দিকে গেলেও দীর্ঘ মেয়াদে এই পরিস্থিতির উন্নতি হবে।

শেয়ারবাজার নিউজ : পুঁজিবাজারের ভবিষ্যৎ কি হতে পারে ?

মোঃ মশিউর রহমান: বর্তমানে বাজারটি যে জায়গায় অবস্থান করছে এর থেকে ভালো জায়গায় যাবে বলে আমি আশাবাদী। বাজারে লেনদেন কমে গেছে এটা আবার উঠে যাবে। কারণ এখন বাজারে ব্যাংকিং খাতে পর্যাপ্ত তহবিল রয়েছে। তার পাশাপাশি যে নতুন আইপিও বাজারে অন্তর্রভুক্ত হয়েছে। সেটা একটি ইতিবাচক দিক। এর ফলে বাজারে অংশগ্রহণ বাড়বে। এখন পুঁজিবাজার যে অবস্থানে রয়েছে আগামীতে হয়তো এখানে থাকবে না। আমি মনে করি বাজার ভালোর দিকে যাবে। এক সময় এটি মূলধন যোগানের প্রধান উৎসে পরিণত হতে পারে।

শেয়ারবাজার নিউজ : আইপিওতো অনেক লাভ,আপনার কি অবস্থা ?
মোঃ মশিউর রহমান: আমি মূলত সেকেন্ডারি মার্কেটে ব্যবসা করি। তবে আইপিও আবেদন করি না যে তা নয়। সেকেন্ডারি মার্কেটের তুলনায় বর্তমান প্রাইমারি মার্কেটে অনেক চাঙ্গাভাব বিরাজ করছে। প্রতিমাসেই একাধিক কোম্পানির প্রাথমিক গণ প্রস্তাবের (আইপিও) আবেদন চলছে। বিনিয়োগকারীরা লেনদেনের শুরুতে এসব কোম্পানি থেকে ভালো মুনাফা অর্জন করছে। বাজারে আইপিও আসা জরুরি। তবে কোম্পানির মৌল ভিত্তির বিষয়টাও বিবেচনায় রাখা দরকার। এ বিষয়ে বিনিয়োগকারীদেরও দায়িত্ব আছে। নিয়ন্ত্রক সংস্থার অনুমোদন পাচ্ছে বলেই যে কোনো মূল্যে শেয়ার কেনা উচিত না। দেখার বিষয় ১৫ টাকা প্রিমিয়াম সহ ৩৫ টাকার শেয়ার বিনিয়োগকারী কত টাকায় কিনছেন। যার মূল্য ৩৫ টাকা হওয়া উচিত সেটি যদি কোনো বিনিয়োগকারী ৮০ বা ৯০ টাকায় কিনে, তাহলে বড় লোকসানের ঝুঁকি তো থাকবেই। তবে এটা ঠিক গণহারে এতো আইপিওর অনুমোদনের মধ্য দিয়ে পুঁজিবাজারে দুর্বল কোম্পানি প্রবেশের সুযোগ পাচ্ছে। এসব কোম্পানিগুলোকে বাজারে যত কম প্রবেশ করানো যায় ততোই ভাল। দেশে অনেক ভাল কোম্পানি রয়েছে। নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (বিএসইসি) উচিত এসব কোম্পানিকে পুঁজিবাজারে নিয়ে আসার ব্যবস্থা করা।

শেয়ারবাজার নিউজ :  ওটিসিতে অবস্থানরত কোনো কোম্পানিতে আপনার বিনিয়োগ রয়েছে কিনা?
মোঃ মশিউর রহমান: না নেই। তবে এ মার্কেটে অনেক বিনিয়োগকারীর বিপুল পরিমাণ অর্থ আটকে রয়েছে। যেসব কোম্পানির উৎপাদন থাকার পাশাপাশি মুনাফায় রয়েছে সেগুলোকে মূল মার্কেটে ফিরিয়ে আনার উচিত। তবে ওয়াটা কেমিক্যালের মতো যেন না হয়। কোম্পানিটি মূল মার্কেটে আসার পর ব্যাপক উস্ফলন ঘটিয়েছে।

শেয়ারবাজার নিউজ : বাজারে দৈনিক লেনদেনের প্রসঙ্গে কি বলবেন ?
মোঃ মশিউর রহমান: লেনদেন হঠাৎ করে কমে গেছে। যার পেছনে কয়েকটি কারণ রয়েছে। এর অন্যতম নতুন সফটওয়্যার চালু। নতুন সফটওয়্যারের সাথে অনুমোদিত প্রতিনিধি ও বিনিয়োগকারীদের অনেকে এখনও তেমনভাবে অভ্যস্থ হয়নি। এই সফটওয়্যারের কোথায় কোন অপশন রয়েছে তা অনেকে জানে না। এগুলো জানতে ও বুঝতে তাদের সময় লাগবে।

শেয়ারবাজার নিউজ : বর্তমান রাজনৈতিক অবস্থা পুঁজিবাজারে কি ধরনের প্রভাব ফেলছে?
মোঃ মশিউর রহমান: বর্তমান রাজনৈতিক অবস্থা পুঁজিবাজারে কিছুটা প্রভাব ফেলেছে । দেশের রাজনৈতিক অবস্থা কোন দিকে যায় সেটাও অনেক পর্যবেক্ষণ করছে বিনিয়োগকারীরা। সব মিলিয়ে বিনিয়োগকারীরা আগের চেয়ে সতর্ক যার কারনে লেনদেন অনেকটাই কমে গেছে ।

শেয়ারবাজার নিউজ : নতুন বিনিয়োগকারীদের কি করণিয় বলে মনে করেন ?
মোঃ মশিউর রহমান: আমাদের বিনিয়োগকারীদের দেখা উচিত আমি যে কোম্পানির শেয়ারটি কিনেছি তা আদৌ ভালো কোম্পানির শেয়ার কি না। বাজারে কোম্পানিটির অবস্থান কোথায়। এসব কিছু বিবেচনা করে বিনিয়োগকারীদের শেয়ার কেনা উচিত বলে আমি মনে করি। আমি বিনিয়োগকারীদের বলব, আপনি যে  কোম্পানির শেয়ার কিনতে চান; কেনার আগে সেই কোম্পানি ও শেয়ারটি সম্পর্কে একটু খোঁজ নিতে হবে। আগের কয়েকটি বছরে কেমন মুনাফা করেছে, লভ্যাংশের হার কেমন ছিল, আগামী দিনের সম্ভাবনা ইত্যাদি পর্যালোচনা করাও জরুরী।
শেয়ারবাজার নিউজ : আপনাকে অসংখ্য ধন্যবাদ
মো: মশিউর রহমান মজুমদার (বিপ্লব): আপনাকেও ধন্যবাদ।

 

শেয়ারবাজার/মু/অ

আপনার মন্তব্য

*

*

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

Top