বিদ্যমান ঋণের সুদহার না বাড়ানোর নির্দেশ

শেয়ারবাজার রিপোর্ট: খেলাপি ঋণের লাগাম টেনে ধরতে মঞ্জুরিপত্রে উল্লেখ না থাকলে চলমান ঋণের সুদহার বাড়ানো যাবে না। আর মঞ্জুরিপত্রে উল্লেখ থাকলেও বছরে এক বারের বেশি সুদ হার বাড়ানো যাবে না।

বুধবার সব ব্যাংকের প্রধান নির্বাহীদের কাছে পাঠানো এক সার্কুলারে এ নির্দেশ দিয়েছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক।

‘বিদ্যমান ঋণ হিসাবগুলোয় সুদ হারের আকস্মিক ঊর্ধ্বমুখী পরিবর্তনের প্রবণতা পরিহার’ বিষয়ক সার্কুলারে বলা হয়েছে, “আন্তর্জাতিক ও স্থানীয় আর্থিক বাজার সুদহারে সাম্প্রতিক বৃদ্ধির সূত্রে নতুন ঋণ মঞ্জুরি ছাড়াও বিদ্যমান ব্যাংক ঋণ হিসাবগুলোতেও আকস্মিক অযৌক্তিক মাত্রায় উচ্চতর সুদহার নির্ধারণের কিছু কিছু দৃষ্টান্ত সম্প্রতি লক্ষ্য করা যাচ্ছে, যা ঋণগ্রহীতাদের পরিশোধ সামর্থ্যের ও আর্থিক সঙ্গতির ওপর অনভিপ্রেত চাপ সৃষ্টির পাশাপাশি বিনিয়োগ ও উৎপাদনের উপর প্রভাব ফেলবে।

এ প্রেক্ষিতে ঋণ শৃঙ্খলা বজায় রাখা এবং নতুনভাবে খেলাপী ঋণ সৃষ্টির ঝুঁকি এড়াতে কোনো ঋণের মঞ্জুরিপত্রে সুদহার অপরিবর্তনশীল (ফিক্সড রেট) উল্লেখ থাকলে ওই ঋণের সুদহারে ঋণের মেয়াদকালে উর্ধ্বমুখী কোনো পরিবর্তন করা যাবে না বলে সার্কুলারে বলা হয়েছে।

শুধু ঋণের মঞ্জুরিপত্রে সুদহার পরিবর্তনশীল উল্লেখ থাকলেই সুদহার বাড়ানো যাবে। তবে ঋণের সুদহার বছরে এক বারের বেশি বাড়ানো যাবে না।

এতে আরও বলা হয়েছে, ঋণের সুদ হারের কোনো বৃদ্ধির বিষয়ে সংশ্লিষ্ট গ্রাহককে কমপক্ষে তিন মাস আগে নোটিস দিতে হবে।গ্রাহককে না জানিয়ে সুদহার বাড়ানো যাবে না।

ঋণের সুদ হার বাড়ানোর ক্ষেত্রে মেয়াদি ঋণের বেলায় প্রতিবার অনধিক দশমিক ৫০ শতাংশ এবং চলতি মূলধন ও অন্যান্য ঋণের বেলায় প্রতিবার অনধিক ১ শতাংশ মাত্রায় পরিমিত রাখতে হবে।

শেয়ারবাজারনিউজ/আ

আপনার মন্তব্য

*

*

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

Top