১১ কোম্পানি হল্টেড

শেয়ারবাজার রিপোর্ট: ঢাকা স্টক একচেঞ্জে (ডিএসই) লেনদেনের আড়াই ঘন্টায় বিক্রেতার সংকটে হল্টেড হয়েছে পুঁজিবাজারে তালিকাভূক্ত ১১ কোম্পানি। দুপুর ১টার দিকে কোম্পানিগুলোর শেয়ার ক্রয় করতে ক্রেতা দেখা গেলেও বিক্রেতার ঘর শূন্য ছিল। ডিএসই সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

সূত্র মতে, দুপুর ১টার দিকেে ওরিয়ন ইনফিউশনের ক্রেতার ঘরে ৩ লাখ ১৮ হাজার ৬৯৯টি শেয়ার ৫৮.৩০ টাকায় কেনার আবেদন থাকলেও বিক্রয়ের ঘরে কাউকে দেখা যায়নি। আলোচিত সময়ে কোম্পানির ৬ লাখ ৫১ হাজার ৬৩২টি শেয়ার ৯৫৪ বার লেনদেন হয়। এ সময় কোম্পানির শেয়ার দর ১০ শতাংশ বেড়ে সর্বশেষ ৫৮.৩০ টাকায় লেনদেন হয়।

সাভার রিফ্যাক্টরিজের ক্রেতার ঘরে ৭০টি শেয়ার ১৬২ টাকায় কেনার আবেদন থাকলেও বিক্রয়ের ঘরে কাউকে দেখা যায়নি। আলোচিত সময়ে কোম্পানির ৮ হাজার ১৩৮টি শেয়ার ১৩২ বার লেনদেন হয়। এ সময় কোম্পানির শেয়ার দর ৯.৯৮ শতাংশ বেড়ে সর্বশেষ ১৬৩ টাকায় লেনদেন হয়।

আইটিসির ক্রেতার ঘরে ১ লাখ ১ হাজার ৪২টি শেয়ার ৪১ টাকায় কেনার আবেদন থাকলেও বিক্রয়ের ঘরে কাউকে দেখা যায়নি। আলোচিত সময়ে কোম্পানির ১৮ লাখ ২ হাজার ৭৯১টি শেয়ার ১ হাজার ৪৪৫ বার লেনদেন হয়। এ সময় কোম্পানির শেয়ার দর ৯.৯২ শতাংশ বেড়ে সর্বশেষ ৪১ টাকায় লেনদেন হয়।

ফরচুন সুজের ক্রেতার ঘরে ৫ লাখ ৩ হাজার ৩৬৩টি শেয়ার ৩১.১০ টাকায় কেনার আবেদন থাকলেও বিক্রয়ের ঘরে কাউকে দেখা যায়নি। আলোচিত সময়ে কোম্পানির ৩৩ লাখ ১২ হাজার ৩৯৬টি শেয়ার ২ হাজার ২৯৮ বার লেনদেন হয়। এ সময় কোম্পানির শেয়ার দর ৯.৮৯ শতাংশ বেড়ে সর্বশেষ ৩১.১০ টাকায় লেনদেন হয়।

ফু-ওয়াং ফুডের ক্রেতার ঘরে ৮৪ হাজার ৯০৭টি শেয়ার ১৯.৪০ টাকায় কেনার আবেদন থাকলেও বিক্রয়ের ঘরে কাউকে দেখা যায়নি। আলোচিত সময়ে কোম্পানির ৫৮ লাখ ৯৯ হাজার ৫৭৮টি শেয়ার ২ হাজার ১৫৮ বার লেনদেন হয়। এ সময় কোম্পানির শেয়ার দর ৯.৬০ শতাংশ বেড়ে সর্বশেষ ১৯.৪০ টাকায় লেনদেন হয়।

সোনালী আঁশ ক্রেতার ঘরে ২৯ হাজার ১৬৫টি শেয়ার ৩১০.৮০ টাকায় কেনার আবেদন থাকলেও বিক্রয়ের ঘরে কাউকে দেখা যায়নি। আলোচিত সময়ে কোম্পানির ৬০ হাজার ২৭১টি শেয়ার ৬৯৫ বার লেনদেন হয়। এ সময় কোম্পানির শেয়ার দর ৮.৭৪ শতাংশ বেড়ে সর্বশেষ ৩১০.৮০ টাকায় লেনদেন হয়।

আরামিট লিমিটেডের ক্রেতার ঘরে ২৮ হাজার ১৬২টি শেয়ার ৪৪১.৫০ টাকায় কেনার আবেদন থাকলেও বিক্রয়ের ঘরে কাউকে দেখা যায়নি। আলোচিত সময়ে কোম্পানির ৯১ হাজার ৩৯৯টি শেয়ার ৬০২ বার লেনদেন হয়। এ সময় কোম্পানির শেয়ার দর ৮.৭৪ শতাংশ বেড়ে সর্বশেষ ৪৪১.৫০ টাকায় লেনদেন হয়।

বিডি অটোকার্সের ক্রেতার ঘরে ৪৪ হাজার ১৯৯টি শেয়ার ৩৩৭.৫০ টাকায় কেনার আবেদন থাকলেও বিক্রয়ের ঘরে কাউকে দেখা যায়নি। আলোচিত সময়ে কোম্পানির ২৪ হাজার ৯১৯টি শেয়ার ৮৪ বার লেনদেন হয়। এ সময় কোম্পানির শেয়ার দর ৮.৭৩ শতাংশ বেড়ে সর্বশেষ ৩৩৭.৫০ টাকায় লেনদেন হয়।

নর্দার্ণ জুটের ক্রেতার ঘরে ৪৮ হাজার ৪০১টি শেয়ার ৩২৫.২০ টাকায় কেনার আবেদন থাকলেও বিক্রয়ের ঘরে কাউকে দেখা যায়নি। আলোচিত সময়ে কোম্পানির ১ লাখ ১১ হাজার ৪৬৭টি শেয়ার ১ হাাজর ২৮৬ বার লেনদেন হয়। এ সময় কোম্পানির শেয়ার দর ৮.৭২ শতাংশ বেড়ে সর্বশেষ ৩২৫.২০ টাকায় লেনদেন হয়।

মডার্ণ ডাইংয়ের ক্রেতার ঘরে ৩ হাজার ১৮৫টি শেয়ার ৩৬০.১০ টাকায় কেনার আবেদন থাকলেও বিক্রয়ের ঘরে কাউকে দেখা যায়নি। আলোচিত সময়ে কোম্পানির ৪ হাজার ২৪৫টি শেয়ার ২৭ বার লেনদেন হয়। এ সময় কোম্পানির শেয়ার দর ৮.৭২ শতাংশ বেড়ে সর্বশেষ ৩৬০.১০ টাকায় লেনদেন হয়।

এছাড়া রেনউইক যজ্ঞেশ্বরের ক্রেতার ঘরে ১১ হাজার ৩৪৮টি শেয়ার ৭৯১.৮০ টাকায় কেনার আবেদন থাকলেও বিক্রয়ের ঘরে কাউকে দেখা যায়নি। আলোচিত সময়ে কোম্পানির ১৬ হাজার ৭২৪টি শেয়ার ২৮৩ বার লেনদেন হয়। এ সময় কোম্পানির শেয়ার দর ৭.৪৯ শতাংশ বেড়ে সর্বশেষ ৭৯১.৮০ টাকায় লেনদেন হয়।

শেয়ারবাজারনিউজ/এম.আর

আপনার মন্তব্য

Top