তৃতীয় প্রান্তিকে রানার অটোর ইপিএস ৪৩ শতাংশ বেড়েছে

শেয়ারবাজার রিপোর্ট: ২০১৭-২০১৮ হিসাব বছরের ৯ মাসে রানার অটোমোবাইলের শেয়ার প্রতি সমন্বিত আয় (ইপিএস) আগের বছর একই সময়ের তুলনায় ৪৩ শতাংশ বেড়েছে। কোম্পানি সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

জানা যায়, জুৃলাই’১৭ থেকে মার্চ’১৮ পর্যন্ত ৯ মাসে সমন্বিত ইপিএস হয়েছে ৩.৭১ টাকা। যা এর আগের বছর একই সময়ে ছিল ২.৬০ টাকা। ইপিএস বেড়েছে ৪৩ শতাংশ।

আর এই সময়ে কোম্পানিটির কর পরিশোধের পর প্রকৃত সমন্বিত মুনাফা হয়েছে ৪৪ কোটি ২০ লাখ ৭৬ হাজার টাকা। যা এর আগের বছর একই সময়ে ছিল ৩৩ কোটি ৪৬ লাখ ৬৭ হাজার টাকা।

৯ মাসে কোম্পানিটি মোট ৭৪৭ কোটি ৮৫ লাখ ৪১ হাজার টাকার পণ্য বিক্রি করেছে। আগের বছর একই সময়ে ৪৫৭ কোটি ৯৬ লাখ ৬৭ হাজার টাকার পণ্য বিক্রি করেছিল। তবে এই সময়ে বিক্রি ৬৩ শতাংশ বাড়লেও খরচ ৭৩ শতাংশ বেড়েছে।

এদিকে তৃতীয় প্রান্তিকে (জানুয়ারি-মার্চ) কোম্পানিটির সমন্বিত ইপিএস হয়েছে ১.১৮ টাকা। যা এর আগের বছর একই সময়ে ছিল ০.৯৪ টাকা।

এদিকে এককভাবে রানার অটোমোবাইলের সমন্বিত ইপিএস ৯ মাসে হয়েছে ২.৪৭ টাকা। যা এর আগের বছর একই সময়ে ছিল ১.৪১ টাকা। ইপিএস বেড়েছে ৭৫ শতাংশ।

এদিকে তিন মাসে কোম্পানিটির এককভাবে ইপিএস হয়েছে ০.৭৬ টাকা। যা এর আগের বছর একই সময়ে ছিল ০.৭৫ টাকা। তিন মাসে কোম্পানিটির ইপিএস সামান্য বেড়েছে।

উল্লেখ্য, বিএসইসি’র ৬৫০তম কমিশন সভায় প্রাথমিক গণপ্রস্তাবের (আইপিও) বুক বিডিং পদ্ধতিতে প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীদের কাছে শেয়ার বিক্রির অনুমোদন পেয়েছে রানার অটোমোবাইল লিমিটেড।

পুঁজিবাজার থেকে ১০০ কোটি টাকা সংগ্রহ করবে রানার অটোমোবাইল লিমিটেড। উত্তোলিত অর্থ দিয়ে গবেষনা ও উন্নয়ন, যন্ত্রপাতি ক্রয়, ব্যাংব ঋণ পরিশোধ ও প্রাথমিক গণ প্রস্তাবের খরচ খাতে ব্যয় করবে।

৩০ জুন, ২০১৭ সমাপ্ত হিসাব বছরের নিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন অনুযায়ী কোম্পানির শেয়ার প্রতি আয় বা ইপিএস হয়েছে ৩.৩১ টাকা। আলোচ্য বছরে কোম্পানির সম্পদ পুনর্মূল্যায়ন পরবর্তী শেয়ার প্রতি সম্পদ মূল্য (এনএভি) ছিল ৫৫.৭০ টাকা। আর পুনর্মূল্যায়ন ছাড়া এনএভি ৪১.৯৪ টাকা।

উল্লেখ, কোম্পানিটির ইস্যু ম্যানেজার হিসেবে কাজ করছে আইডিএলসি ইনভেস্টমেন্ট লিমিটেড। আর রেজিস্টার টু দি ইস্যু হিসেবে কাজ করছে লংকাবাংলা ইনভেস্টমেন্ট লিমিটেড।

 

শেয়ারবাজারনিউজ/আ

আপনার মন্তব্য

Top