রানার অটোমোবাইলের প্রথমদিনে ৫০টি বিডিং: সর্বোচ্চ দর ৮৪ টাকা

শেয়ারবাজার রিপোর্ট: বুক বিল্ডিং পদ্ধতিতে রানার অটোমোবাইল লিমিটেডের শেয়ার কেনার জন্য প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীদের নিলাম প্রথমদিন শেষে ৩৩ জন বিডার বিড করেছে। এর মধ্যে প্রতিটি শেয়ার সর্বোচ্চ ৮৪ টাকা দিয়ে একজন বিডার ১ লাখ ৪৮ হাজার ৮০০টি শেয়ার কেনার জন্য বিড করেছে। যার মোট মূল্য ১ কোটি ২৪ লাখ ৯৯ হাজার ২০০ টাকা। আর সর্বনিম্ন ৩০ টাকা দিয়ে দুইজন বিডার ৫ লাখ ৮১ হাজার ৬০০টি শেয়ার কেনার জন্য বিড করেছে। যার মোট মূল্য ১ কোটি ৭৪ লাখ ৪৮ হাজার টাকা।

কোম্পানিটির বিডিং গতকাল সোমবার বিকেল ৫টা থেকে শুরু হয়েছে। যা চলবে আগামী ১৩ সেপ্টেম্বর, বৃহস্পতিবার বিকেল ৫টা পর্যন্ত। এক্ষেত্রে ইলিজিবল ইনভেস্টর অর্থাৎ যোগ্য বিনিয়োগকারী অংশ নেবে।

শুরুতে কোম্পানির প্রতিটি শেয়ার ৮১ টাকা দিয়ে একজন বিডার ১ লাখ ৫৪ হাজার ৩০০টি শেয়ার কেনার জন্য বিড করেছে। যার মোট দর ১ কোটি ২৪ লাখ ৯৮ হাজার ৩০০ টাকা।

জানা যায়, একজন বিডার সর্বোচ্চ ১ কোটি ৮৭ লাখ ৫০ হাজার টাকার শেয়ার কেনার জন্য বিড করতে পারবেন। বিডিংয়ে যোগ্য বিনিয়োগকারীরা কোম্পানিটির ৬২ কোটি ৫০ লাখ টাকার শেয়ার কেনার জন্য শেয়ার দর প্রস্তাব করতে পারবেন।

বিডিংয়ে অংশ নেওয়া অন্যান্য বিডারদের মধ্যে সর্বোচ্চ ১২ জন ৫০ টাকা করে দর প্রস্তাব করেছেন। এছাড়া দুই জন ৮৩ টাকা, দুইজন ৮২ টাকা, ৩ জন ৮১ টাকা, ৮ জন ৮০ টাকা, একজন ৭২ টাকা, ২জন ৫৭ টাকা, ১জন ৫৬ টাকা, ৫৫ টাকায় ৩জন, ৪৫ টাকায় ২ জন, ৪৩ টাকায় ১ জন,  ৪২ টাকায় ৩জন, ৪০ টাকায় ৪ জন, ৩৬ টাকায় একজন, ৩৫ টাকায় একজন, ৩৩ টাকা করে দর প্রস্তাব করেছেন একজন। এক্ষেত্রে ৫০ জন বিডার মোট ১ কোটি ৪ লাখ ৩০ হাজার ৬০০টি শেয়ার ৫৩ কোটি ৬৩ লাখ ৭১ হাজার টাকায় কেনার জন্য দর প্রস্তাব করেছেন।

এর আগে গত ১০ জুলাই কমিশনের ৬৫০তম সভায় রানার অটোমোবাইলকে প্রাথমিক গণ প্রস্তাব (আইপিও) এর মাধ্যমে বুক বিল্ডিং পদ্ধতিতে প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীদের কাছে শেয়ার বিক্রি বা বিডিংয়ের অনুমোদন দেয় বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি)।

জানা যায়, পুঁজিবাজার থেকে ১০০ কোটি টাকা সংগ্রহ করবে রানার অটোমোবাইল লিমিটেড। উত্তোলিত অর্থ দিয়ে গবেষনা ও উন্নয়ন, যন্ত্রপাতি ক্রয়, ব্যাংক ঋণ পরিশোধ ও প্রাথমিক গণ প্রস্তাবের খরচ খাতে ব্যয় করবে।

৩০ জুন, ২০১৭ সমাপ্ত হিসাব বছরের নিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন অনুযায়ী কোম্পানির শেয়ার প্রতি আয় বা ইপিএস হয়েছে ৩.৩১ টাকা। একই বছরে কোম্পানির সম্পদ পুনর্মূল্যায়ন পরবর্তী শেয়ার প্রতি সম্পদ মূল্য (এনএভি) ছিল ৫৫.৭০ টাকা। আর পুনর্মূল্যায়ন ছাড়া এনএভি ৪১.৯৪ টাকা।

উল্লেখ, কোম্পানিটির ইস্যু ম্যানেজার হিসেবে কাজ করছে আইডিএলসি ইনভেস্টমেন্ট লিমিটেড। আর রেজিস্টার টু দি ইস্যু হিসেবে কাজ করছে লংকাবাংলা ইনভেস্টমেন্ট লিমিটেড।

শেয়ারবাজারনিউজ/এম.আর

আপনার মন্তব্য

*

*

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

Top