৭ কোম্পানির শেয়ার কারসাজি: সন্দেহে কমার্স ব্যাংক সিকিউরিটিজ

শেয়ারবাজার রিপোর্ট: সাম্প্রতিক সময়ে পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত বেশকিছু কোম্পানির শেয়ার দর অস্বাভাবিক বৃদ্ধির কারণ খতিয়ে দেখতে গেল ২১ জুন তদন্ত কমিটি গঠন করে নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি)। তদন্ত কমিটি প্রতিবেদনে মুন্নু সিরামিক, মুন্নু জুট স্ট্যাফলার্স, লিগ্যাসি ফুটওয়্যার, বিডি অটোকার্স, কুইন সাউথ টেক্সটাইল, আলিফ ইন্ডাষ্ট্রিজ এবং ইষ্টার্ণ লুব্রিক্যান্টস এই ৭ কোম্পানির শেয়ার কারসাজিতে ডিএসই’র ১৮০ নং ট্রেকহোল্ডার কমার্স ব্যাংক সিকিউরিটিজ অ্যান্ড ইনভেষ্টমেন্ট লিমিটেড জড়িত বলে সন্দেহ প্রকাশ করে বিএসইসি।

এজন্য বিএসইসি’র এনফোর্সমেন্ট বিভাগে প্রতিষ্ঠানটির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) এমএ মোতালেব চৌধুরী, প্রতিষ্ঠানটির সচিব সেলিম হাসান, ভাইস প্রেসিডেন্ট আব্দুল হালিমকে শুনানীর জন্য ডাকা হয়। বিএসইসির কমিশনার খন্দকার কামালুজ্জামান এবং এনফোর্সমেন্ট বিভাগের প্রধান ও নির্বাহী পরিচালক রুকসানা চৌধুরী শুনানী পরিচালনা করেন। শুনানীতে প্রতিষ্ঠানটির ভাইস প্রেসিডেন্ট মোহাম্মদ সাইফুল ইসলামকে শেয়ার কারসাজিতে জড়িত বলে সন্দেহ করা হয়। কিন্তু শেয়ার কারসাজিতে কমার্স ব্যাংক সিকিউরিটিজের কোনো কর্মকর্তা দায়ী নয় বলে জানিয়েছেন প্রতিষ্ঠানটির প্রধান নির্বাহী। এদিকে শেয়ার কারসাজিতে কমার্স ব্যাংক সিকিউরিটিজের জড়িত থাকার বিষয়ে বিএসইসি পরবর্তী সিদ্ধান্ত নেবে বলে জানা গেছে।

এদিকে শেয়ার কারসাজির বিষয়ে কমার্স ব্যাংক সিকিউরিটিজ অ্যান্ড ইনভেষ্টমেন্ট লিমিটেডের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) এমএ মোতালেব চৌধুরী শেয়ারবাজারনিউজ ডট কমকে জানান, আমাদের প্রতিষ্ঠান থেকে কোনো কারসাজি করা হয়নি। আমরা সিকিউরিটিজ রুলস মেনেই শেয়ার ব্যবসা করছি। আমাদের গ্রাহকরা নিয়মনীতি মেনেই কোম্পানির শেয়ার কেনা-বেচা করেছে। যদি সংশ্লিষ্ট কোম্পানির শেয়ার দর কারসাজি করা হতো তাহলে আমাদের নিজস্ব অ্যাকাউন্টে কোম্পানির শেয়ার থাকতো। কিন্তু আমাদের ডিলার অ্যাকাউন্টে উল্লেখিত কোম্পানির কোনো শেয়ার নেই। আমরা শুনানীতে তাই বলে এসেছি। শেয়ার কারসাজিতে কমার্স ব্যাংক সিকিউরিটিজের কোনো হাত নেই বলে জানান তিনি।

 

শেয়ারবাজারনিউজ/ম.সা

 

 

আপনার মন্তব্য

Top