ফ্রাকশনাল ডিভিডেন্ডে বিনিয়োগকারীদের অনাগ্রহ

শেয়ারবাজার রিপোর্ট: শেয়ারবাজার অনেক কোম্পানি বিনিয়োগকারীদের ফ্রাকশনাল ডিভিডেন্ড প্রদান করে থাকেন। এ ডিভিডেন্ড গ্রহণে জটিলতার কারণে বিনিয়োগকারীদের মাঝে অনাগ্রহ সৃষ্টি হয়েছে। তবে বিশেষজ্ঞরা মনে করেন, ফ্রাকশনাল ডিভিডেন্ড সম্পর্কে বিনিয়োগকারীদের সীমিত ধারণা বিনিয়োগকারীদের অনাগ্রহ সৃষ্টির অন্যতম কারণ।

জানা যায়, লভ্যাংশ অনেক প্রকারের আছে যার মধ্যে একটি হচ্ছে ফ্রাকশনাল ডিভিডেন্ড ওয়ারেন্ট। ফ্রাকশনাল ডিভিডেন্ড ওয়ারেন্ট এর অর্থ বোনাস শেয়ারের আংশিক মালিকানা। কোম্পানি তার লক্ষ্য অর্জনের জন্য অর্থের প্রয়োজনে বিনিয়োগকারীদের কাছে শেয়ার বিক্রয় করে। আর শেয়ার ক্রয়ের বিনিময়ে শেয়ারহোল্ডাররা কোম্পানির কাছ থেকে অর্জিত লভ্যাংশ পেয়ে থাকে। অনেক সময় দেখা যায় কোম্পানিগুলো শেয়ারের বিপরীতে বোনাস শেয়ার ঘোষণা করে। বোনাস শেয়ার সব সময় পূর্ণাঙ্গভাবে নাও আসতে পারে। ধরা যাক, কোনো কোম্পানির ৭টি শেয়ার আছে। যদি কোম্পানিটি শেয়ারহোল্ডারদের জন্য ৩টি শেয়ারের বিপরীতে ১টি বোনাস শেয়ার ঘোষণা করে তা হলে ৭টি শেয়ারের বিপরীতে বিনিয়োগকারী ২.৩৩টি বোনাস শেয়ার পাবে। যখন এরূপ আংশিক শেয়ার হয় তখন কোম্পানির পক্ষ থেকে শেয়ারহোল্ডারদের অংশগুলো একত্রিত করে বাজারে বিক্রয় করা হয়। এরপর প্রাপ্ত অর্থ মালিকানার ভিত্তিতে শেয়ারহোল্ডারদের মধ্যে বণ্টন করা হয়।

তাছাড়া পূর্ণাঙ্গ শেয়ার যত তাড়াতাড়ি বিনিয়োগকারীরা পেয়ে থাকেন ফ্রাকশনাল ডিভিডেন্ড তত তাড়াতাড়ি গ্রহণ করতে পারেন না। তাই বিনিয়োগকারীরা ঝামেলা এড়াতে পূর্ণাঙ্গ শেয়ার ঘোষণা করা উচিত বলে মনে করেন বিনিয়োগকারীরা।

এ ব্যাপারে এক কোম্পানির ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা জানান, বোনাস শেয়ার ইস্যুতে যখন ফ্রাকশন হয় তখন সবগুলো ফ্রাকশন শেয়ার একত্র করে বিক্রি করা হয়। পরবর্তীতে শেয়ার বিক্রি করে পাওয়া অর্থ বিনিয়োগকারীদের প্রদান করা হয়।

 

শেয়ারবাজারনিউজ/ম.সা

আপনার মন্তব্য

Top