৭ কোম্পানি নিয়ে সংশয়ে বিনিয়োগকারীরা

শেয়ারবাজার রিপোর্ট: পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত জুন ক্লোজিং হওয়া কোম্পানিগুলোর মধ্যে অধিকাংশই ২০১৮-১৯ অর্থবছরের প্রথমার্ধের (জুলাই-ডিসেম্বর’১৮) অনিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে। এর মধ্যে ৭ কোম্পানি মুনাফা থেকে লোকসানে অবনিত হয়েছে। আর এসব কোম্পানির ভবিষ্যত নিয়েছে সংশয়ে রয়েছেন বিনিয়োগকারীরা।

মুনাফা থেকে লোকসানে অবস্থান করা ৭ কোম্পানি হলো- এ্যাপোলো ইস্পাত, আলহাজ্ব টেক্সটাইল, জাহিনটেক্স, ন্যাশনাল ফিড মিলস, লিবরা ইনফিউশন, মোজাফ্ফর হোসেন স্পিনিং মিলস, ইস্টার্ণ ক্যাবলস লিমিটেড।

মুনাফা থেকে লোকসানে অবস্থান করা ৭ কোম্পানি মধ্যে সবচেয়ে বেশি লোকসান হয়েছে লিবরা ইনফিউশনের। অর্ধবার্ষিকে (জুলাই-ডিসেম্বর’১৮) কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় লোকসান হয়েছে ৩.০৩ টাকা। যা আগের বছর একই সময় শেয়ার প্রতি মুনাফা ছিল ০.০৪ টাকা।

নিচে প্রথমার্ধে মুনাফা থেকে লোকসানে অবস্থান করা কোম্পানিগুলোর আর্থিক প্রতিবেদন তুলে ধরা হলো-

ইস্টার্ণ ক্যাবলস: অর্ধবার্ষিকে (জুলাই-ডিসেম্বর’১৮) কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় লোকসান হয়েছে ২.৯৯ টাকা। যা আগের বছর একই সময় শেয়ার প্রতি মুনাফা ছিল ০.০৫ টাকা।

এ্যাপোলো ইস্পাত: অর্ধবার্ষিকে (জুলাই-ডিসেম্বর’১৮) কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় লোকসান হয়েছে ০.২৩ টাকা। যা আগের বছর একই সময় শেয়ার প্রতি মুনাফা ছিল ০.১০ টাকা।

আল-হাজ্ব টেক্সটাইল: অর্ধবার্ষিকে (জুলাই-ডিসেম্বর’১৮) কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় লোকসান হয়েছে ০.৩২ টাকা। যা আগের বছর একই সময় শেয়ার প্রতি মুনাফা ছিল ০.৩৪ টাকা।

জাহিনটেক্স: অর্ধবার্ষিকে (জুলাই-ডিসেম্বর’১৮) কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় লোকসান হয়েছে ০.৫১ টাকা। যা আগের বছর একই সময় শেয়ার প্রতি মুনাফা ছিল ০.৫৩ টাকা।

ন্যাশনাল ফিড মিলস: অর্ধবার্ষিকে (জুলাই-ডিসেম্বর’১৮) কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় লোকসান হয়েছে ০.০৩ টাকা। যা আগের বছর একই সময় শেয়ার প্রতি মুনাফা ছিল ০.৪২ টাকা।

এ বিষয়ে ন্যাশনাল ফিডের কোম্পানি সচিব আরিফুল রহমানের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি শেয়ারবাজারনিউজ ডটকমকে জানান, আসলে গত বছর আমাদের উৎপাদন ব্যয় বিক্রি তুলনায় অনেকটাই বেশি হয়েছে। তাছাড়া কোম্পানির মার্কেটিং বিভাগে কিছুটা সমস্যা কারণে মার্কেটে পণ্য তেমন বিক্রি হয়নি। আর এতে কোম্পানির মুনাফা অনেকে কম হয়েছে। তবে আশা করছি সকল সমস্যা সমাধান হয়ে যাবে বলে জানান তিনি।

মোজাফ্ফর হোসেন স্পিনিং মিলস: অর্ধবার্ষিকে (জুলাই-ডিসেম্বর’১৮) কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় লোকসান হয়েছে ০.২৭ টাকা। যা আগের বছর একই সময় শেয়ার প্রতি মুনাফা ছিল ০.৫০ টাকা।

এ বিষয়ে মোজাফফর হোসেন স্পিনিং মিলসের কোম্পানি সচিব হারিস আলমের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি শেয়ারবাজারনিউজ ডটকমকে জানান, বিদ্যুৎ সরবরাহ ব্যবস্থার আধুনিকায়ন ও নতুন যন্ত্রপাতি স্থাপনের পাশাপাশি গ্যাসের স্বল্পতার কারণে গত বছরের মে মাস থেকেই আমাদের কারখানার অর্ধেক রোটর মেশিন বন্ধ রয়েছে। এতে কোম্পানিটির উৎপাদন অর্ধেকে নেমে প্রভাব পড়েছে কোম্পানির বিক্রি ও মুনাফায়। ইতিমধ্যে নতুন ইউনিটের নির্মাণ কাজ শেষ হয়ে আসছে। বিদেশ থেকে আমদানি করা যন্ত্রপাতিও কারখানায় এসে পৌঁছেছে। তবে যন্ত্রপাতি প্রতিস্থাপনের জন্য বেশ কিছুটা সময় লাগছে। আশা করছি এ বছরের মধ্যেই নতুন ইউনিটটি চালু করা সম্ভব হবে।

 

শেয়ারবাজারনিউজ/এম.আর

আপনার মন্তব্য

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

Top