অভিনয়ে ফিরছেন সেই ছোট্ট দিঘী!

শেয়ারবাজার ডেস্ক: গ্রামীণফোনের বিজ্ঞাপনে অভিনয় করে সকলের নজরে আসেন দিঘী। এরপর গুণী নির্মাতা কাজী হায়াৎ পরিচালিত ‘কাবুলিওয়ালা’ সিনেমা দিয়ে চলচ্চিত্রে অভিনয় শুরু করেন। প্রায় ৩৬টি সিনেমায় শিশু শিল্পী হিসেবে অভিনয় করেছেন। এরই মধ্যে অনেক তারকাদের সঙ্গেই কাজ করেছেন তিনি। সর্বশেষ ২০১২ সালের পর তাকে আর সিনেমাতে দেখা যায় নি। পড়াশোনা নিয়ে বেশ ব্যস্ত ছিলেন দিঘী।

চলতি বছরের সেকেন্ডারি স্কুল সার্টিফিকেট (এসএসসি) পরীক্ষায় অংশ নিয়ে স্ট্যামফোর্ড স্কুল ও কলেজ থেকে ‘এ-মাইনাস’ পেয়ে উত্তীর্ণ হয়েছেন এই ক্ষুদে তারকা। পড়াশোনার জন্য অভিনয়ে আসা হচ্ছিল না বলে জানিয়েছিলেন দিঘির বাবা সুব্রত বড়ুয়া। দিঘি মাধ্যমিকের গন্ডি পার করলেন এইবার, তবে কি আবারও সিনেমায় দেখা যাবে তাকে এমন প্রশ্নই এখন সবার মনে।

এ প্রসঙ্গে দিঘীর বাবা বলেন, মাত্রই তো এসএসসির রেজাল্ট হাতে পেলাম। যদি সুযোগ সুবিধা মতো ভালো কিছুর প্রস্তাব আসে তাহলে অবশ্যই অভিনয় করবে। এতে আমার আপত্তি থাকবে না। কিন্তু আমি চাইবো সে যেন পড়াশোনাটা ঠিকমত চালিয়ে যায়।

অভিনয়ের প্রতি দিঘীর আগ্রহ প্রসঙ্গে সুব্রত বড়ুয়া আরও বলেন, আমি আর দিঘীর মা দুজনেই চলচ্চিত্রের মানুষ। দিঘীর মা গত হয়েছেন ৭ বছরেরও বেশী সময় হয়ে গেল। আর দিঘী তো শিশু শিল্পী হিসেবে অনেকগুলো ছবিতেই অভিনয় করেছে। আমি জানি ওর ভিতরে অভিনয়ের তেজটা কত। ও সেটা ভেতরে লালন করে। আমি মনে করি সে নিজেকে আরও প্রস্তুত করুক তারপর না হয় একটা কিছু করুক।

তিনি আরও বলেন, গ্ল্যামার জগতটা মানুষকে খুব আকৃষ্ট করে। নায়িকা মানেই তো গ্ল্যামার। একটা সময় যখন ভিতরে স্টার ভাবটা চলে আসে তখন কিন্তু সাধারণ হতে অনেক কষ্ট হয়। দিঘী এমন একটা জায়গায় ছিল তার অভিনয় দিয়ে, তার এতটুকুন বয়সে সেটা সত্যিই অনেক গর্বের। এখন তো আর কেউ আমাকে আমার নামে চেনেন না, সবাই চেনেন দিঘীর বাবা হিসেবে। আর যে জায়গাটায় দিঘী তার অভিনয় শেষ করেছিল সেটা যেন আরও অতিক্রম করতে পারে সেজন্য তাকে কিন্তু তৈরি করতে হবে। লেখা পড়াটা ঠিক মত শেষ করতে পারলে সে নিজেকে ঠিকমত তৈরি করতে পারবে। আমি শুধু দেখিয়ে দিতে পারবো এটা ভালো রাস্তা, এটা খারাপ রাস্তা। সে নিজে যখন জানতে পারবে ভালো রাস্তা দিয়ে যাওয়া ভালো, খারাপ রাস্তা দিয়ে যাওয়া ভালো না তখন সেই নির্ধারণ করে নিবে সে কোন পথে যাবে, আমার বলতে হবে না। এই রাস্তাটা যদি তৈরি করে দিতে না পারি তাহলে সে কিছুই করতে পারবে না। এজন্য তার কাজ করা বন্ধ করে রেখেছি, আগে সে বুঝুক নিজের জন্য কোনটা ভালো কোনটা মন্দ! তারপর সে নিজেই নিজের বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিবে।

প্রথম চলচ্চিত্রে ‘কাবুলিওয়ালা’তে অভিনয় করেই ২০০৬ সালে ‘শ্রেষ্ঠ শিশুশিল্পী’ হিসেবে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার অর্জন করে দিঘী। তারপরে আরও দুটি চলচ্চিত্রে অভিনয়ের কারণে শ্রেষ্ঠ শিশু চলচ্চিত্র অভিনেত্রী হিসেবে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার জয় করে সে। দিঘি অভিনীত উল্লেখযোগ্য চলচ্চিত্রগুলো হলো ‘দাদীমা, চাচ্চু্‌, সাজঘর, বাবা আমার বাবা, ১ টাকার বউ, অবুঝ শিশু, রিকসাওয়ালার ছেলে, চাচ্চু আমার চাচ্চু, দ্যা স্পিড’।

শেয়ারবাজারনিউজ/মু

আপনার মন্তব্য

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

Top