লিবিয়ায় বিমান হামলায় নিহত ৪০

শেয়ারবোজার ডেস্ক: লিবিয়ার রাজধানী ত্রিপোলির অদূরে একটি অভিবাসী অভিবাসনপ্রত্যাশীদের বন্দিশিবিরে আকস্মিক বিমান হামলায় কমপক্ষে ৪০ জন নিহত হয়েছে। আহত হয়েছে ১৩০ জনের বেশি। দেশটিতে আন্তর্জাতিক স্বীকৃতিপ্রাপ্ত সরকার এ হামলার জন্য বিরোধী নেতা খলিফা হাফতারকে দায়ী করেছে। হামলার দায় যারই হোক, সেটাকে যুদ্ধাপরাধ অভিহিত করা যেতে পারে বলে মন্তব্য করেছে জাতিসংঘ। তবে বাংলাদেশ দূতাবাসের শ্রম কাউন্সিলর এএসএম আশরাফুল ইসলাম বলেন, আমরা ঘটনাস্থলে এসেছি। হতাহতদের মধ্যে বাংলাদেশি আছেন কিনা তা এখনও নিশ্চিত হওয়া যায়নি।

মঙ্গলবার (২ জুলাই) গভীর রাতে ত্রিপোলির শহরতলি তাজুরায় এক অভিবাসী আটককেন্দ্রে বিমান হামলায় হতাহতের ঘটনা ঘটে। ওই আটককেন্দ্রের প্রধান নুরেদ্দিন আল গ্রিফি জানান, সেখানকার পাঁচটি শিবিরে সব মিলিয়ে প্রায় ৬০০ অভিবাসী ছিল। এ ছাড়া বিমান হামলায় যে শিবিরটি সরাসরি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে, সেখানে ছিল ১২০ জন। এমনটা জানান ঘটনাস্থলে জরুরি সেবা প্রদানকারীদের এক মুখপাত্র। হামলার কারণে ক্ষতিগ্রস্ত ওই শিবিরে তিন মিটার ব্যাসের একটি গর্ত সৃষ্টি হয়েছে। সেখানে ছড়িয়ে-ছিটিয়ে আছে রক্তাক্ত বিচ্ছিন্ন দেহাবশেষ। লিবিয়ায় আন্তর্জাতিক স্বীকৃতিপ্রাপ্ত জাতীয় ঐক্যের সরকার তথা জিএনএ বিরোধী নেতা খলিফা হাফতারকে ‘যুদ্ধাপরাধী’ আখ্যা দিয়ে এ ঘটনার জন্য তাঁকে দায়ী করেছে। তবে হাফতারের পক্ষ থেকে এ ব্যাপারে কোনো মন্তব্য করা হয়নি।

এদিকে জাতিসংঘের লিবিয়াবিষয়ক দূত বলেছেন, এ ঘটনাকে ‘স্পষ্টভাবে যুদ্ধাপরাধ অভিহিত করা যেতে পারে।’ এ ছাড়া সংস্থার শরণার্থীবিষয়ক হাইকমিশন জানায়, তাজুরার অভিবাসী আটককেন্দ্রটি অস্ত্র মজুদের কাজে ব্যবহার করা হচ্ছিল বলে কমিশনের ধারণা এবং এ ধরনের ঘটনা আন্তর্জাতিক মানবাধিকার লঙ্ঘনের শামিল বলে তারা মনে করে। এ হামলার জন্য দায়ী ব্যক্তি বা গোষ্ঠীকে চিহ্নিত করার জন্য জাতিসংঘের তদন্ত দাবি করেছে ইউরোপীয় ইউনিয়ন (ইইউ)। গতকাল বুধবার এক বিবৃতিতে সংস্থাটি দোষীদের শাস্তির দাবিও জানায়। এ ঘটনাকে ‘ভয়ংকর অপরাধ’ আখ্যা দিয়ে স্বাধীন তদন্তের দাবি জানিয়েছেন আফ্রিকান ইউনিয়ন কমিশনের প্রধান মুসা ফাকি মাহামাত।

গতকালের বিবৃতিতে তিনি লিবিয়ায় বিবদমান দুপক্ষের মধ্যে অবিলম্বে যুদ্ধবিরতির আহ্বানও জানান। এ ছাড়া তাজুরায় অভিবাসীদের ওপর বিমান হামলার ঘটনাকে ‘মানবতাবিরোধী অপরাধ’ আখ্যা দিয়েছে তুরস্ক। এ ঘটনায় দেশটি ‘স্বাধীন আন্তর্জাতিক তদন্ত’ করে দোষীদের অবিলম্বে চিহ্নিত করার আহ্বান জানায়। অভিবাসীদের ওপর হামলার ঘটনায় নিন্দা জানিয়ে বিবৃতি দিয়েছে ফ্রান্সও। গতকাল দেশটির পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় হাফতার ও জিএনএর হয়ে সংঘর্ষে লিপ্ত দুপক্ষকে যুদ্ধ বন্ধের এবং উত্তেজনা হ্রাসের আহ্বান জানায়।চিকিৎসকদের আন্তর্জাতিক সংগঠন ডক্টরস উইদাউট বর্ডারস টুইটারে বিবৃতি দিয়ে ত্রিপোলিতে আটক অভিবাসী ও শরণার্থীদের সরিয়ে নেওয়ার দাবি জানায়। সূত্র: এএফপি।

 

শেয়ারবাজারনিউজ/মু

আপনার মন্তব্য

Top