কপারটেকের তালিকাভুক্তির সিদ্ধান্ত ডিএসই`র ম্যানেজমেন্টের কাঁধে


শেয়ারবাজার রিপোর্ট: আজ অনুষ্ঠিত ডিএসই’র পরিচালনা পর্ষদের সভায় কপারটেক ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেডকে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে তালিকাভুক্তির অনুমোদন দেওয়া হয়েছে বলে বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যমে খবর প্রচারিত হয়েছে। কিন্তু কপারটেককে তালিকাভুক্তির অনুমোদন দেওয়া হয়নি বরং কপারটেকের বিষয়ে কাজ করার জন্য ডিএসই’র ম্যানেজমেন্টকে দায়িত্ব দিয়েছে ডিএসই বোর্ড। বিষয়টি নিয়ে ভুল বুঝা-বুঝির সৃষ্টি হয়েছে। ডিএসইর জন সংযোগ বিভাগ থেকে এ তথ্য নিশ্চিত করা হয়েছে।
উল্লেখ্য, কপারটেকের তালিকাভুক্তি নিয়ে নানা বিতর্কের সৃষ্টি হয়েছে। এ নিয়ে খোদ কোম্পানিটির অডিটরের লাইসেন্স বাতিল হয়েছে। অন্যদিকে কোম্পানির আইপিওতে বিনিয়োগকারীদের আবেদনের টাকা আটকে আছে। তাই সবদিক বিবেচনা করে কোম্পানিটির বিষয়ে কাজ করার জন্য ডিএসই’র ম্যানেজমেন্টকে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে।
এর আগে গত বছরের ২৬ ডিসেম্বরে ১০ টাকা অভিহিত মূল্যে ২ কোটি সাধারণ শেয়ার ছেড়ে শেয়ারবাজার থেকে কপারটেক ইন্ডাস্ট্রিজকে ২০ কোটি টাকা উত্তোলনের অনুমোদন দেয় বিএসইসি। বিএসইসির অনুমোদন নিয়ে ইতিমধ্যে সাধারণ বিনিয়োগকারীদের কাছে থেকে প্রাথমিক গণ প্রস্তাবের আবেদন গ্রহণ করছে কোম্পানিটি। চলতি বছরের ৩১ মার্চ থেকে শুরু হয় এ কোম্পানির আইপিও আবেদন। যা চলে ৯ এপ্রিল পর্যন্ত। আর এপ্রিল মাসের ৩০ তারিখ কোম্পানির আইপিও লটারির ড্র অনুষ্ঠিত হয়।

আইপিও’র টাকা থেকে ব্যাংক ঋণ পরিশোধে ৬ কোটি ৫০ লাখ টাকা, প্লান্ট ও যন্ত্রপাতি ক্রয় স্থাপনে ৬ কোটি ৫০ লাখ টাকা এবং ভবন ও সিভলি ওয়ার্কে খরচ হবে ৫ কোটি ৫০ লাখ টাকা। আইপিও ফান্ড পাওয়ার ১২ মাসের মধ্যে প্রজেক্টের কাজ শেষ করা হবে। আর আইপিও বাবদ খরচ হিসাব করা হয়েছে ১ কোটি ৫০ লাখ টাকা।

৩০ জুন, ২০১৮ সমাপ্ত বছরের নিরীক্ষা হিসাবে, কোম্পানিটি ৫২ কোটি ৬৬ লাখ ৫৩ হাজার ২৪২ টাকার পণ্য বিক্রি করে কর পরিশোধের পর প্রকৃত মুনাফা করেছে ৪ কোটি ১০ লাখ ১৭ হাজার টাকা। এই সময়ে শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ১.০২ টাকা। এর আগের বছর একই সময়ে ইপিএস ছিল ০.৮৮ টাকা। পরিশোধিত মূলধন ৪০ কোটি টাকা হিসাব করে। এই সময়ে শেয়ার প্রতি প্রকৃত সম্পদ মূল্য(এনএভি) হয়েছে ১২.০৬ টাকা।
কোম্পানিটির ইস্যু ব্যবস্থাপনার দায়িত্বে রয়েছে এমটিভি ক্যাপিটাল লিমিটেড।

শেয়ারবাজারনিউজ/ম.সা

আপনার মন্তব্য

Top