আইপিও’র পাইপলাইনে ৪ বীমা কোম্পানি: সক্ষমতার অভাব বাকিগুলোতে

শেয়ারবাজার রিপোর্ট: পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত হতে ২৭ বীমা কোম্পানির মধ্যে ৪ কোম্পানি বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনে (বিএসইসি) প্রাথমিক গণ প্রস্তাবের (আইপিও) জন্য আবেদন করেছে। আরো ৫টি কোম্পানি আইপিও আবেদন জমা দেওয়ার প্রক্রিয়ায় রয়েছে। ২৭ বীমা কোম্পানিকে পুঁজিবাজারে আসার নির্দেশনা থাকলেও বাকি কোম্পানিগুলো এখনো তাদের আর্থিক প্রতিবেদনসহ অন্যান্য প্রয়োজনীয় কাগজ-পত্র তৈরি করতে পারেনি। আগামী ২৯ জানুয়ারি বীমা কোম্পানিগুলোর সঙ্গে পুনরায় এ বিষয়ে বৈঠকে বসবে বীমা উন্নয়ন ও নিয়ন্ত্রণ কর্তৃপক্ষ (আইডিআরএ)। বৈঠকে পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্তির সর্বশেষ আপডেট তথ্য নেওয়া হবে। সংশ্লিষ্ট সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

জানা যায়, পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত হওয়ার নির্দেশ পাওয়া ২৭ বীমা কোম্পানির মধ্যে ১৮টি লাইফ বীমা কোম্পানি হলো- বায়রা লাইফ ইন্স্যুরেন্স, গোল্ডেন লাইফ ইন্স্যুরেন্স, হোমল্যান্ড লাইফ ইন্স্যুরেন্স, সানফ্লাওয়ার লাইফ ইন্স্যুরেন্স, বেস্ট লাইফ ইন্স্যুরেন্স, চার্টার্ড লাইফ ইন্স্যুরেন্স, এনআরবি গ্লোবাল লাইফ ইন্স্যুরেন্স, প্রটেক্টিভ ইসলামী লাইফ ইন্স্যুরেন্স, সোনালী লাইফ ইন্স্যুরেন্স, জেনিথ ইসলামী লাইফ ইন্স্যুরেন্স, আলফা ইসলামী লাইফ ইন্স্যুরেন্স, ডায়মন্ড লাইফ ইন্স্যুরেন্স, গার্ডিয়ান লাইফ ইন্স্যুরেন্স, যমুনা লাইফ ইন্স্যুরেন্স, মার্কেন্টাইল ইসলামী লাইফ ইন্স্যুরেন্স, স্বদেশ লাইফ ইন্স্যুরেন্স, ট্রাস্ট ইসলামী লাইফ ইন্স্যুরেন্স এবং লাইফ ইন্স্যুরেন্স কর্পোরেশন অব বাংলাদেশ।

৯টি নন-লাইফ বীমা কোম্পানি হলো – ক্রিস্টাল ইন্স্যুরেন্স, মেঘনা ইন্স্যুরেন্স, সাউথ এশিয়া ইন্স্যুরেন্স, ইসলামী কমার্শিয়াল ইন্স্যুরেন্স, ইউনিয়ন ইন্স্যুরেন্স, দেশ জেনারেল ইন্স্যুরেন্স, এক্সপ্রেস ইন্স্যুরেন্স, সেনা কল্যাণ ইন্স্যুরেন্স এবং সিকদার ইন্স্যুরেন্স।

উল্লেখিত কোম্পানিগুলোর মধ্যে এক্সপ্রেস ইন্স্যুরেন্স, দেশ জেনারেল ইন্স্যুরেন্স, ক্রিস্টল ইন্স্যুরেন্স এবং সোনালী লাইফ ইন্স্যুরেন্স এই ৪ বীমা কোম্পানির আইপিও’র জন্য বিএসইসিতে আবেদন করেছে।

বিএসইসি সূত্রে জানা গেছে, বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ এন্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি) আইন করে এ ব্যাপারে সুনির্দিষ্টভাবে কতিপয় শর্ত বেঁধে দিয়েছে। এর মধ্যে অন্যতম শর্তগুলো হচ্ছে; আর্থিক স্বচ্ছলতা (Solvency margin) এবং বিগত বছরে মুনাফা অর্জন (Earning profit in the previous year)। অনেক বীমা কোম্পানির পর্যাপ্ত পরিশোধিত মূলধনের ঘাটতি রয়েছে। বীমা আইন অনুযায়ী যে পরিমাণ পরিশোধিত মূলধন নির্ধারণ করা হয়েছে অনেক বীমা কোম্পানি তার নীচে অবস্থান করছে। দ্বিতীয় শর্তের বেলায় মুনাফা অর্জন করা তো দূরের কথা অনেক বীমা কোম্পানি আর্থিকভাবে অস্বচ্ছলতায় ভুগছে। এসব শর্তসমূহ সঠিক বা যথাযথভাবে পূরণ করা ব্যতিরেকে বীমা কোম্পানির পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত করা সম্ভব নয় বলে জানা গেছে।

 

 

শেয়ারবাজারনিউজ/ম.সা

Tags , , , , , , , , , , , , , , , , , , , , , , , , ,

আপনার মন্তব্য

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

Top