রিজার্ভ থেকে ঋণ দেবে বাংলাদেশ ব্যাংক, ২০ কোটি ইউরোর তহবিল গঠন

শেয়ারবাজার ডেস্ক:  বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ থেকে ইউরো মুদ্রায় স্বল্প ও দীর্ঘমেয়াদি ঋণ দেবে বাংলাদেশ ব্যাংক। এ লক্ষ্যে রিজার্ভ থেকে ২০ কোটি ইউরোর একটি তহবিল গঠন করা হয়েছে, বাংলাদেশি মুদ্রায় যা দাঁড়ায় ১ হাজার ৮৩২ কোটি টাকা (১ ইউরো= ৯০.৬ টাকা)। বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলো বিদ্যমান ইউরো ইন্টার ব্যাংক অফার রেট (ইউরিবোর)+১ শতাংশ সুদে এ তহবিলের অর্থ নিতে পারবে।

আর গ্রাহক পর্যায়ে এই ঋণের সুদের হার হবে বিদ্যমান ইউরিবর+৩ শতাংশ। যদি ইউরিবোর ঋণাত্ত্বক হয় তাহলে সেটাকে শূন্য ধরা হবে। আজ বুধবার কেন্দ্রীয় ব্যাংকের বৈদেশিক মুদ্রা নীতি বিভাগ থেকে এ সংক্রান্ত সার্কুলার জারি করা হয়েছে।

বাংলাদেশ ব্যাংক সূত্রে জানা যায়, বৈশ্বিক মন্দার পরিপ্রেক্ষিতে ২০০৮ সালের নভেম্বর থেকে ইউরো ইন্টার ব্যাংক অফার রেট বা ইউরিবর কমতে থাকে। ২০১৫ সালের মে মাসে যা ঋণাত্মক পর্যায়ে পৌঁছায় এবং এখনো তার ঋণাত্মক ধারায় রয়েছে।

বাংলাদেশ ব্যাংকের কর্মকর্তারা বলছেন, ইউরো অঞ্চলের আন্তঃব্যাংক সুদহার ঋণাত্মক ধারায় নেমে আসায় ইউরো মুদ্রায় রক্ষিত বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভে লোকসান গুনে আসছে বাংলাদেশ ব্যাংক। পরিস্থতির উন্নতি না হওয়ায় দিন দিন এই লোকসান বাড়ছে। এই লোকসান কাটাতে গত বছেরর জুলাইয়ে বাংলাদেশ ব্যাংকের পরিচালনা পর্ষদের সভায় ইউরো মুদ্রার রিজার্ভ থেকে ঋণ দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়।

জানা যায়, গত জুলাইয়ে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের পরিচালনা পর্ষদের সভায় রিজার্ভের ২০০ মিলিয়ন ইউরো মুদ্রার তহবিল স্থানীয় উদ্যোক্তাদের ঋণ দেওয়ার সিদ্ধান্ত হয়। তবে কোন খাতে এই ঋণ দেওয়া হবে, এটি স্বল্প মেয়াদের জন্য দেওয়া হবে, নাকি দীর্ঘ মেয়াদের জন্য দেওয়া হবে, তা নিয়ে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের দুই বিভাগের মধ্যে মতের ভিন্নতা তৈরি হওয়ায় পরিচালনা পর্ষদের সিদ্ধান্ত বাস্তবায়নে কালক্ষেপণ হচ্ছিল। অবশেষে ইউরো মুদ্রার এই ২০০ কোটির তহবিল কেন্দ্রীয় ব্যাংকের সাসটেইনেবল ফিন্যান্স বিভাগ পরিচালিত গ্রিন ট্রান্সফরমেশন ফান্ডে (জিটিএফ) যুক্ত করার মাধ্যমে স্থানীয় উদ্যোক্তাদের ঋণ দেওয়ার কাজে ব্যবহারের সিদ্ধান্ত হয় এবং সে অনুযায়ী সার্কুলার জারি করলো কেন্দ্রীয় ব্যাংক।

সার্কুলারে উল্লখ করা হয়, বিদ্যমান গ্রিন ট্রান্সফরমেশন ফান্ডে ২০০ মিলিয়ন ডলারের সঙ্গে ইউরো মুদ্রার এই ২০০ মিলিয়ন তহবিলও যুক্ত হবে। দেশে অনুমোদিত ডিলার ব্যাংকগুলো ইউরিবর+১% সুদে বাংলাদেশ ব্যাংকের কাছ থেকে এই তহবিলের অর্থ নিতে পারবে। আরও গ্রাহকরা বাণিজ্যিক ব্যাংকের কাছ থেকে তাদের তহবিল ব্যায়ের অতিরিক্ত ১-২ শতাংশ হারে এই অর্থ নিতে পারবে।ফলে এই তহবিল থেকে ঋণের সর্বোচ্চ সুদের হার হবে ইউরিবর+৩%। পাঁচ থেকে ১০ বছরের মেয়াদে এই ঋণ নেওয়া যাবে। তবে শিল্পের কাঁচামাল আমদানিতে স্বল্পময়াদেও এই ঋণ নেওয়ার সুযোগ থাকবে। শিল্পখাতের পরিবেশবান্ধব প্রযুক্তি ছাড়াও কাঁচামাল আমদানিতে এই তহবিলের অর্থ ব্যবহার করা যাবে। রপ্তানির নিমিত্তে আমদানিতেও বায়ার্স ক্রেডিট হিসেবে এই তহবিলের অর্থ পাওয়া যাবে।

বাংলাদশ ব্যাংকের এক কর্মকর্তা বলেন, যদি ইউরিবর ঋণাত্মক হয় তাহলে ১ শতাংশ হারে সুদ কাটবে বাংলাদেশ ব্যাংক। আর বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলো কাটবে ৩ শতাংশ।

তিনি আরও বলেন, বায়ার্স ক্রেডিট দেয়ার কারণে করোনাভাইরাসের এই পরিস্থিতিতে শিল্পের কাঁচামাল আমদানি আগের চেয়ে একটু সহজ হবে।

শেয়ারবাজারনিউজ/মু

আপনার মন্তব্য

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

Top