এক্সপ্রেস ইন্স্যুরেন্স থেকে লাভবান হবেন বিনিয়োগকারীরা: সালেহ আহমেদ


শেয়ারবাজার রিপোর্ট: পুঁজিবাজার থেকে অর্থ উত্তোলনের অনুমোদন পাওয়া এক্সপ্রেস ইন্স্যুরেন্সের প্রাথমিক গণপ্রস্তাবের (আইপিও) আবেদন গ্রহণ চলছে। আগামীকাল ১৮ জুন পর্যন্ত এ কোম্পানির আইপিওতে আবেদন করার সুযোগ পাবেন বিনিয়োগকারীরা। আর এ কোম্পানিতে বিনিয়োগ করে বিনিয়োগকারীরা লাভবান হবেন বলে জানিয়েছেন কোম্পানিটির ইস্যু ম্যানেজার আইআইডিএফসি ক্যাপিটাল লিমিটেডের চীফ এক্সিকিউটিভ অফিসার (সিইও) সালেহ আহমেদ।
তিনি শেয়ারবাজারনিউজ ডটকমকে জানান, ২০০০ সালের ২০ মার্চ এক্সপ্রেস ইন্স্যুরেন্স জেনারেল বীমা ব্যবসায় আত্মপ্রকাশ করে। ২০ বছর ধরে সুনামের সঙ্গে কোম্পানিটি ব্যবসায় পরিচালনা করে আসছে। কোম্পানির পরিচালনা পর্ষদে যারা রয়েছেন তারা দেশের শীর্ষস্থানীয় ব্যাংক ও অন্যান্য প্রতিষ্ঠানের গুরুত্বপূর্ণ পদে রয়েছেন।
অগ্নি,নৌ, মটর ও অন্যান্য সাধারণ বীমা ব্যবসায়ের জন্য সারাদেশে ২০টি শাখার মাধ্যমে এক্সপ্রেস ইন্স্যুরেন্সের ব্যবসায়িক কার্যক্রম পরিচালিত হচ্ছে। বিনিয়োগকারীরা আস্থার রেখে এ কোম্পানিতে বিনিয়োগ করতে পারে। কারণ কোম্পানির রেভিনিউ ধারাবাহিকভাবে বৃদ্ধি পাচ্ছে। বছরে ৪০ কোটি টাকার ওপরে কোম্পানিটির রেভিনিউ হয় বলে জানান তিনি।
সালেহ আহমেদ আরো বলেন, ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই) গত ৪/৫ বছরে কোন কোম্পানির জন্য সুপারিশ করেনি। কিন্তু ডিএসই এক্সপ্রেস ইন্স্যুরেন্স এর জন্য বিএসইসির নিকট সুপারিশ করেছে। এছাড়া আমরা গত কয়েক বছর ধরে কোম্পানিটি নগদ লভ্যাংশ দিয়ে আসছে। যেহেতু এজেন্ট কমিশন এখন আইডিআরএ এর মাধ্যমে নির্ধারিত হয়েছে তাই সামনে কোম্পানির আয় অনেক বৃদ্ধি পাবে। এতে কোম্পানির বিনিয়োগকারীরা লাভবান হবেন।
এছাড়া কোম্পানির শেয়ার প্রতি সম্পদ মূল্য (এনএভি) ১৮ টাকার বেশি হওয়ার পরেও কোনো প্রিমিয়াম ছাড়া ফিক্সড প্রাইসে কোম্পানিটি তালিকাভুক্ত হতে যাচ্ছে।
কোম্পানিটির বিগত ৫ বছরে ভারিত গড় হারে শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ১.৪২ টাকা। এছাড়া
বর্তমানে শেয়ার বাজারে বিনিয়োগের সঠিক সময়। সেই সাথে বাজারে তারল্য সংকট রয়েছে। আইপিও থেকে উত্তোলিত অর্থের ২৫% এক্সপ্রেস ইন্স্যুরেন্স শেয়ার বাজারে বিনিয়োগ করবে। বাকি অর্থ ইন্স্যুরেন্স কোম্পানি আইন অনুযায়ী এফডিআর করবে। তাই বিনিয়োগের জন্য এক্সপ্রেস ইন্স্যুরেন্স ভালো একটি ব্রান্ড হিসেবে পরিচিতি পাবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন সালেহ আহমেদ।

শেয়ারবাজারনিউজ/ম.সা

আপনার মন্তব্য

৩ Comments

  1. ওয়ালিউল মুক্তি said:

    আইআইডিএফসি ক্যাপিটাল কয়েকদিন আগেই মিথ্যা রিপোর্ট দেয়ার জন্য শাস্তি হিসেবে এসইসি’র কাছে জরিমানা খেয়েছে। তাদের কথা বিশ্বাস করি কী করে? মানুষের বিশ্বাস ফিরিয়ে আনা কঠিন কাজ। আইপিও-এর টাকা দিয়ে এফডিআর, বন্ডে বিনিয়োগ করে নিজেদের পেট ভরিয়ে সাধারণ বিনিয়োগকারীদের আর কত লভ্যাংশ দিবে? বড়জোর ৫%, একবছরের লভ্যাংশ পরের বছরের জুন-জুলাইএর পর দিবে,
    প্রদত্ত লভ্যাশের উপর সরকার আবার কাঁচি বসাবে – ঘরের টাকা দিয়ে কেন আমি এত যন্ত্রণা কিনতে যাবো? তার চাইতে সঞ্চয়পত্র কিনবো, কম-বেশি যা হোক নির্দিষ্ট সময়ে পাবো, মেয়াদ শেষে আমার মূল টাকা তো ফেরৎ পাবো!! যে লোকটা ১০০/৯০ টাকা দিয়ে ব্রাক ব্যাংক কিনেছে আজ তার কী অবস্থা? এমন হাজার হাজার উদাহরণ আছে। সবাই বলছেন, বাজারে অনেক ভাল ভাল বিনিয়োগযোগ্য শেয়ার কম দামে পাওয়া যাচ্ছে। যত্ত সব গাঁজাখুরি কথা!! আপনি স্কয়ার ফার্মা ১৭২ টাকা দিয়ে কিনে বছর শেষে কত শতাংশ লভ্যাংশ পাবেন? কত শতাংশ ডিভিডেন্ড ইল্ড পাবেন? আমি বলবো বিভিন্ন কোম্পানি, ব্যবসায়ীরা, স্টক এক্সচেঞ্জ, সরকারের বিভিন্ন সংস্থা বছরের পর বছর সাধারণ বিনিয়োগকারীদের রক্ত শোষণ করে মোটাতাজা হয়েছেন আর তাদেরকে জাস্ট পথে বসিয়েছেন।

Leave a Reply to ওয়ালিউল মুক্তি Cancel reply

Top