শেয়ারবাজার ও রাজস্ব আহরণে ভালো করতে পারিনি- সালমান এফ রহমান

শেয়ারবাজার রিপোর্ট: দেশের অর্থনীতির বিভিন্ন সূচকের ধারাবাহিক অগ্রগতি হলেও শেয়ারবাজার ও রাজস্ব আহরণের ক্ষেত্রে বাংলাদেশ ভালো করতে পারেনি বলে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রীর বেসরকারি শিল্প ও বিনিয়োগ উপদেষ্টা সালমান এফ রহমান।

গতকাল শনিবার ইনস্টিটিউট অব চার্টার্ড অ্যাকাউন্ট্যান্টস অব বাংলাদেশ (আইসিএবি) আয়োজিত ‘অর্থনীতি পুনরুদ্ধারে চার্টার্ড অ্যাকাউন্ট্যান্টদের ভূমিকা ও সীমান্ত বিনিয়োগ বৃদ্ধি’ শীর্ষক এক ওয়েবিনারে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি একথা বলেন।

সালমান এফ রহমান বলেন, ফলে জিডিপিতে বাজার মূলধন ও রাজস্বের অবদান অনেক কম। আমাদের সবাইকে এখন অর্থনীতি পুনরুদ্ধারের জন্য কাজ করতে হবে। সব দেশই বর্তমানে উদ্ভাবনী উপায়ে এ সংকট থেকে বেরিয়ে আসার পথ খুঁজছে। সীমান্ত বিনিয়োগ অর্থনীতিতে সবসময়ই গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। তবে অতিমারীর এ সময়ে এর গুরুত্ব আরো বেশি। সীমান্ত বিনিয়োগের পাশাপাশি আমি সীমান্ত বাণিজ্যকে গুরুত্ব দিতে চাই। বর্তমান পরিস্থিতিতে সীমান্ত বাণিজ্য বাড়ানোর দিকে গুরুত্ব দিতে হবে।

অর্থনীতির বিভিন্ন খাতে অগ্রগতি হলেও শেয়ারবাজার রাজস্ব আহরণের ক্ষেত্রে আমরা ভালো করতে পারিনি উল্লেখ করে সালমান এফ রহমান বলেন, জিডিপি ও শেয়ারবাজারের বাজার মূলধনের অনুপাত খুবই কম। একইভাবে কর জিডিপি অনুপাত বিশ্বের অন্যান্য দেশের পাশাপাশি দক্ষিণ এশিয়ার অনেক দেশের তুলনায় আমাদের এখানে অনেক কম। শেয়ারবাজার ও রাজস্ব আহরণ পরিস্থিতির উন্নয়নে চার্টার্ড অ্যাকাউন্ট্যান্টদের গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রয়েছে। বিশ্বের চার-পাঁচটি বড় ফার্ম বাংলাদেশে অ্যাডভাইজরি সেবা দিচ্ছে। এক্ষেত্রে আমি বাংলাদেশী ফার্মগুলোকে এগিয়ে আসার অনুরোধ করছি। বাংলাদেশী ফার্মগুলো বিদেশীদের তুলনায় দেশের অর্থনীতিকে ভালোভাবে অনুধাবন করতে পারবে।

অতিমারীর আগে বিশ্বে আমাদের সবচেয়ে বেশি জিডিপি প্রবৃদ্ধি ছিল উল্লেখ করে তিনি বলেন, করোনার কারণে এ প্রবৃদ্ধি বাধাগ্রস্ত হয়েছে। কয়েক বছর ধরে অতিদরিদ্রের সংখ্যা কমিয়ে আনতে সফল হলেও করোনার কারণে দুর্ভাগ্যজনকভাবে এটি আবার বেড়ে যাবে। নারীর ক্ষমতায়নের ক্ষেত্রেও আমরা অনেক এগিয়ে ছিলাম। বিশেষ করে গার্মেন্ট খাতে বিপুলসংখ্যক নারী কাজ করছেন। করোনার প্রভাবে তারাও ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন। কৃষিতেও আমরা সফল হয়েছি। সরকার বর্তমানে কৃষি প্রক্রিয়াকরণের দিকে গুরুত্ব দিচ্ছে। এসএমই আরেকটি গুরুত্বপূর্ণ খাত। আমাদের সেদিকেও মনোনিবেশ করতে হবে।

মূল প্রবন্ধে ইনস্টিটিউট অব চার্টার্ড অ্যাকাউন্ট্যান্টস ইন ইংল্যান্ড অ্যান্ড ওয়েলসের নির্বাহী পরিচালক (টেকনিক্যাল) রবার্ট হজকিনসন বলেন, কভিড-১৯-এর এই সময়ে চার্টার্ড অ্যাকাউন্ট্যান্টসদের জনগণের স্বার্থ সংরক্ষণের দিকে লক্ষ রাখতে হবে। কোম্পানিটির ব্যবসায়িক স্থিতি যতই খারাপ হোক না কেন, চার্টার্ড অ্যাকাউন্ট্যান্টদের উন্নত মানের আর্থিক প্রতিবেদনের পাশাপাশি স্বচ্ছতা নিশ্চিত করতে হবে। টেকসই ব্যবসায়িক মডেল প্রণয়নের ক্ষেত্রে চার্টার্ড অ্যাকাউন্ট্যান্টসদের ভূমিকা রাখতে হবে। সর্বোপরি বৈশ্বিক সহযোগিতার মাধ্যমে আমাদের এ সংকট কাটিয়ে উঠতে হবে।

ওয়েবিনারে বিশেষ অতিথি ছিলেন সিএ শ্রীলংকার প্রেসিডেন্ট মানিল জয়াসিংহে। সম্মানিত অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ইন্টারন্যাশনাল ফেডারেশন অব অ্যাকাউন্ট্যান্টসের (আইএফএসি) প্রেসিডেন্ট ড. ইন কি জো। মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন ইনস্টিটিউট অব চার্টার্ড অ্যাকাউন্ট্যান্টস ইন ইংল্যান্ড অ্যান্ড ওয়েলসের নির্বাহী পরিচালক (টেকনিক্যাল) রবার্ট হজকিনসন। সঞ্চালকের দায়িত্বে ছিলেন আইসিএবির কাউন্সিল সদস্য মো. হুমায়ূন কবীর। স্বাগত বক্তব্য রাখেন আইসিএবির প্রেসিডেন্ট মোহাম্মদ ফারুক।

শেয়ারবাজার নিউজ/ এন

আপনার মন্তব্য

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

Top