কারেকশন ও লেনদেন বৃদ্ধি বাজারের জন্য শুভ ইঙ্গিত

শেয়ারবাজার রিপোর্ট: সপ্তাহের দ্বিতীয় কার্যদিবসে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) সূচকের পতনে লেনদেন শেষ হয়েছে। এদিন লেনদেনের শুরুতে উত্থান থাকলেও ৩০ মিনিট পর থেকেই সেল প্রেসারে টানা নামতে থাকে সূচক। তবে শেষদিকে একবার ঘুঁড়ে দাঁড়ানোর চেষ্টা করলেও ব্যহত হয় বাজার। এরই ধারাবাহিকতায় ৫ কার্যদিবস উত্থানের পর পতনে বিরাজ করছে সূচক। সোমবার লেনদেন শেষে সূচকের পাশাপাশি কমেছে বেশিরভাগ কোম্পানির শেয়ার দর। তবে টাকার অংকে লেনদেন আগের দিনের তুলনায় কিছুটা বেড়েছে। আজ দিন শেষে ডিএসইতে লেনদেন বেড়েছে ৩০ কোটি ৯৯ লাখ ১২ হাজার টাকা।

বিশ্লেকদের মতে, কারেকশন ও লেনদেন বৃদ্ধি বাজারের জন্য শুভ ইঙ্গিত। কেননা টানা পতন কিংবা টানা উত্থান কোনোটাই বাজারের জন্য ইতিবাচক নয়। তাই আজ কিছুটা দর পতন স্বাভাবিক। আর বাজারে এমন ধারা বিদ্যমান থাকলে প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীদের পাশাপাশি সাধারণ বিনিয়োগকারীদেরও আস্থা ফিরে আসবে।

আজ দিন শেষে ডিএসইর ব্রড ইনডেক্স আগের দিনের চেয়ে ৯ পয়েন্ট কমে অবস্থান করছে ৪০৮৯ পয়েন্টে। আর ডিএসই শরিয়াহ সূচক ৪ পয়েন্ট কমে অবস্থান করছে ৯৫০ পয়েন্টে এবং ডিএসই ৩০ সূচক ৭ পয়েন্ট কমে অবস্থান করছে ১৩৭৬ পয়েন্টে। দিনভর লেনদেন হওয়া ৩৪৮টি কোম্পানি ও মিউচ্যুয়াল ফান্ডের মধ্যে দর বেড়েছে ৫৭টির, কমেছে ১২৭টির এবং অপরিবর্তিত রয়েছে ১৬৪টির। আর দিন শেষে লেনদেন হয়েছে ৩৭৭ কোটি ৯৫ লাখ ৬৩ হাজার টাকা।

এর আগের কার্যদিবস দিন শেষে ডিএসইর ব্রড ইনডেক্স ৩৭ পয়েন্ট বেড়ে অবস্থান করে ৪০৯৯ পয়েন্টে। আর ডিএসই শরিয়াহ সূচক ১৫ পয়েন্ট বেড়ে অবস্থান করে ৯৫৪ পয়েন্টে এবং ডিএসই ৩০ সূচক ১৪ পয়েন্ট বেড়ে অবস্থান করে ১৩৮৩ পয়েন্টে। আর ওইদিন লেনদেন হয়েছিল ৩৪৬ কোটি ৬৯ লাখ ৫১ হাজার টাকা। সে হিসেবে আজ ডিএসইতে লেনদেন বেড়েছে ৩০ কোটি ৯৯ লাখ ১২ হাজার টাকা।

এদিকে দিন শেষে চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জে (সিএসই) সাধারণ মূল্য সূচক সিএসইএক্স ৪ পয়েন্ট কমে অবস্থান করছে ৭ হাজার ৩৩ পয়েন্টে। দিনভর লেনদেন হওয়া ২০১টি কোম্পানির ও মিউচ্যুয়াল ফান্ডের মধ্যে দর বেড়েছে ৪৩টির, কমেছে ৬৬টির এবং অপরিবর্তিত রয়েছে ৯২টির। আর দিন শেষে লেনদেন হয়েছে ১৩ কোটি ১৫ লাখ ৫৮ হাজার টাকা।

শেয়ারবাজারনিউজ/মু

আপনার মন্তব্য

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

Top