বোকো হারামের সহিংসতার ছবি প্রকাশ করলো অ্যামেনেস্ট্রি

150115092611_baga_640x360_epa_nocreditশেয়ারবাজার ডেস্ক: নাইজেরিয়ার দুটি শহরে বোকো হারাম গত সপ্তাহে বোকো হারামের জঙ্গিরা যে ধ্বংসলীলা চালিয়েছে তার উপগ্রহ থেকে নেয়া ছবি প্রকাশ করেছে আন্তর্জাতিক মানবাধিকার বিষয়ক সংস্থা অ্যামেনেস্ট্রি ইন্টারন্যাশনাল। আন্তর্জাতিক এই মানবাধিকার সংস্থাটি বলছে, উত্তর-পূর্ব নাইজেরিয়ার বাগা এবং ডরন-বাগা শহরে হামলার আগের ও পরের ছবি দেখে তারা মনে করছেন সেখানে সাড়ে তিন হাজরের মতো বাড়িঘর ধ্বংস করা হয়েছে, যা থেকে এই হামলার নৃশংসতা সম্পর্কে একটা ধারণা পাওয়া যায়। সংস্থাটি বলছে, এযাবৎ কালের মধ্যে এটাই বোকো হারামের সবচে বড়ো হামলা যাতে প্রায় দু’হাজার মানুষ নিহত হয়েছে বলে তারা ধারণা করছেন।

বাগা এবং ডরন-বাগার ওপর থেকে স্যাটেলাইটের ছবিগুলো নেয়া হয়েছিল দুই দফায় – প্রথমবার ২রা জানুয়ারিতে আর দ্বিতীয় দফায় ৭ই জানুয়ারিতে। প্রথমটা বোকো হারামের আক্রমণের আগে আর পরেরটি হামলার পরে। এতে দেখা যাচ্ছে বোকো হারাম জঙ্গীরা ঐ দুটি শহরে মোট তিন হাজার ৭০০ বাড়িঘর ধ্বংস করেছে। হামলার আগে ঐ এলাকায় যে গাছপালা দেখা গিয়েছিল। পরের ছবিতে তা ছিল অনুপস্থিত। নদীর ঘটে যেসব নৌকা বাঁধা ছিল, বোকো হারামের হামলার পর সেগুলোকে আর দেখা যায়নি।

মানবাধিকার সংস্থা অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশলের নাইজেরিয়া বিষয়ক গবেষক ড্যানিয়েল আয়ার জানাচ্ছেন, “খুবই উচ্চ রেজলুশনের এসব ছবির একটি সেটে আক্রমণের আগে মানুষের বাড়িঘর স্পষ্ট দেখা যাচ্ছে। দেখা যাচ্ছে কোথায় তারা থাকেন, দোকানপাট এবং উপাসনাস্থল। দ্বিতীয় সেটের ছবিগুলো তোলা আক্রমণের পরে। সেই ছবিগুলোতে দেখা যাচ্ছে এসব বাড়ি-ঘরের অনেকগুলোই নেই। বোঝা যাচ্ছে যে ডরন-বাগা শহরটিকে মূলত ধুলোয় মিশিয়ে দেয়া হয়েছে।” নাইজেরিয়ার কর্মকর্তারা বলছেন, বহুজাতিক শান্তিরক্ষীরা বাগা শহরের নিয়ন্ত্রণ ছেড়ে চলে যাওয়া পর বোকো হারাম গত ৭ই জানুয়ারি সেটা দখল করে।

বিবিসির সংবাদদাতা উইল রস বলছেন, স্যাটেলাইটের ছবিতে বোকো হারামের ধ্বংসলীলার একটা চিত্র পাওয়া গেলেও এই সংগঠনের হাতে প্রাণ দিয়েছেন কতজন, সে সম্পর্কে কোন পরিষ্কার ধারণা পাওয়া যাচ্ছে না। নাইজেরিয়ার সরকার বলছে, ১০ হাজার বাসিন্দার এই দুটি শহরে প্রায় ২০০০ মানুষ নিহত হয়েছে, এটা বিশ্বাস করা কঠিন। তারা মনে করছেন সেখানে মারা গিয়েছে ১৫০ জনের মতো। কিন্তু অ্যামনেস্টি কর্মকর্তা আডোতেই আকোয়েই বলছেন, এটা অসম্ভব।

তার কথায়, অ্যামনেস্টি সেখানকার সাংবাদিক এবং এই হামলার হাত থেকে প্রাণে রক্ষা পাওয়া কিছু মানুষের সাথে কথা বলেছে। আমাদের ধারণা সরকার হতাহতের সংখ্যা অনেক কমিয়ে বলছে। আমাদের হিসেব অনুযায়ী এই সংখ্যা দেড়শোর চেয়ে বেশি – প্রায় দুহাজারের কাছাকাছি বলে আমরা মনে করছি। নাইজেরিয়ার উত্তর-পূর্বাঞ্চলে বোকো হারামের তৎপরতা সম্প্রতি বেড়ে গিয়েছে। বাগা এবং ডরন-বাগা ছাড়াও গত কয়েক সপ্তাহে এই সংগঠনের হামলায় বহু মানুষের মৃত্যু ঘটেছে। কোন কোন হামলায় শিশু আত্মঘাতী ব্যবহার করা হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে। আগামী মাসে নাইজেরিয়ায় সাধারণ নির্বাচন হবে বলে কথা রয়েছে। কিন্তু সরকার দেশের কোন কোন অংশে আদৌ ভোট গ্রহণ করতে পারবে কি না, তা নিয়ে সন্দেহ তৈরি হয়েছে।

আপনার মন্তব্য

Top