ডিএসইর ওয়েবসাইট ভোগান্তি: জালিয়াতি নয়, জ্ঞান,অভিজ্ঞতা ও শিক্ষার ঘাটতি- তদন্ত কমিটি

শেয়ারবাজার রিপোর্ট:ডিএসই ওয়েবসাইট নিয়ে কোনো জালিয়াতি করেনি। জ্ঞান, অভিজ্ঞতা ও শিক্ষার ঘাটতির কারনে ওয়েবসাইট নিয়ে এমনটি হয়েছিল বলে জানিয়েছে তদন্ত কমিটি। দেশের প্রধান শেয়ারবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জেকে (ডিএসই) তাদের তথ্য ও প্রযুক্তি (আইটি) বিভাগের সমস্যা ও সমাধানের পথ দেখিয়েছে নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (বিএসইসি) গঠিত তদন্ত কমিটি। আজ রবিবার বিএসইসির কনফারেন্স হলে তদন্ত কমিটি প্রেজেন্টেশনের মাধ্যমে সমস্যা ও সমাধানের পথ দেখায়।  সংশ্লিষ্ট সূত্রে এ তথ্য জানা যায়।

ডিএসইর আইটি বিভাগের সমস্যা ও সমাধানের উপায় কি, তা জানানোর জন্য স্টক এক্সচেঞ্জটির পর্ষদকে কমিশন ডেকে পাঠিয়েছিল। তদন্ত কমিটি ডিএসইর আইটি বিভাগে বিভিন্ন সমস্যা প্রেজেন্টেশনের মাধ্যমে তুলে ধরেন। এর আলোকে তারা বেশ কিছু সুপারিশ করেছেন।

প্রেজেন্টেশনে ডিএসইর ওএমএস থেকে শুরু করে আইটি বিভাগের অদক্ষ জনবলসহ বিভিন্ন সমস্যার কথা বলা হয়। যা দ্রুত ডিএসইকে সমাধানের জন্য কমিশন নির্দেশ দিয়েছে।

তদন্ত কমিটি জানায়, নতুন সফটওয়্যার চালুতে লেনদেনে সমস্যার ক্ষেত্রে ইচ্ছাকৃত কোন ভুল বা অনিয়ম পাওয়া যায়নি। তবে ডিএসইর আইটি বিভাগের দূর্বলতা ও কাজ না বোঝার কারনে লেনদেনে ভোগান্তি হয়েছিল বলে জানায়। অন্যরা যা বুঝিয়ে দিয়ে যায়, ডিএসইর আইটি বিভাগ তাই করে। তবে কোন জালিয়াতি করেনি। জ্ঞান, অভিজ্ঞতা ও শিক্ষার ঘাটতির কারনে এমনটি হয়েছিল। তাদের চেয়ে অন্যলোকের জ্ঞান বেশি। তারা যা বুঝিয়ে দিয়ে যায়, ডিএসই বোকার মতো তাই করে।

এ বিষয়ে বিএসইসির নির্বাহী পরিচালক (চলতি দায়িত্ব) ও মুখ্যপাত্র রেজাউল করিম শেয়ারবাজারনিউজকে জানান, ডিএসইর ওয়েবসাইট এর ভোগান্তির বিষয় নিয়ে তদন্ত কমিটি এর আগে তাদের প্রতিবেদন জমা দিয়েছে। আজ তদন্ত কমিটি প্রতিবেদনের উপরে একটি প্রেজেন্টেশন দেখায়। এরপরে বিএসইসি ও ডিএসইর মধ্যে আলোচনা হয়।

বৈঠকে ডিএসইর শেয়ারহোল্ডার পরিচালক রকিবুর রহমান ছাড়া অন্যরা অংশগ্রহণ করেন। এছাড়া কমিশনের চেয়ারম্যানসহ সব কমিশনার ও তদন্ত কমিটি ৩জন সদস্য অংশগ্রহণ করেন।

গত ২৪ আগস্ট ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ও সিএসই বিভাগের চেয়ারম্যান ড. মো. মুস্তাফিজুর রহমানকে আহবায়ক করে গঠিত কমিটি ১৪ সেপ্টেম্বর বিএসইসিকে তদন্ত রিপোর্ট জমা দেয়। ওই কমিটির সদস্যরা হলেন- ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ও আইসিটি সেলের পরিচালক ড. মুহাম্মদ আসিফ হোসাইন খান, আইআইটি বিভাগের অধ্যাপক ড. মো. শরিফুল ইসলাম, বিএসইসির পরিচালক রাজিব আহমেদ, উপ-পরিচালক মোহাম্মদ নজরুল ইসলাম ও সহকারি পরিচালক মো. শহিদুল ইসলাম।

এর আগে গত ১৮ আগস্ট বিকালে আপডেট ভার্সনের ওয়েবসাইট উদ্বোধন করে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) চেয়ারম্যান ইউনুসুর রহমান। ওই উদ্বোধনের পরে ১৯ ও ২০ আগস্ট ভোগান্তিতে পড়েন বিনিয়োগকারীরা। আপডেট সাইটটি খুব ব্যবহারবান্ধব ও রেসপনসিভ হবে বলে জানানো হলেও ওই দুই দিন ভোগান্তিতে পড়েন তারা। যে কারনে ২৩ আগস্ট এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে দুঃখ প্রকাশ করে ডিএসই। তবে ওয়েবসাইট এখন স্বাভাবিক কাজ করছে।

 

 

শেয়ারবাজার নিউজ/এন

আপনার মন্তব্য

Top