আজ: বৃহস্পতিবার, ২১ অক্টোবর ২০২১ইং, ৫ই কার্তিক, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১৪ই রবিউল আউয়াল, ১৪৪৩ হিজরি

সর্বশেষ আপডেট:

১২ জানুয়ারী ২০২১, মঙ্গলবার |



kidarkar

ইমুর ব্যবহারকারী বাড়ছে বাংলাদেশে

শেয়ারবাজার ডেস্ক: মেসেজিং অ্যাপ ইমো তাদের বার্ষিক প্রতিবেদনে জানিয়েছে, ২০১৯ সালের তুলনায় গত বছর তাদের অ্যাপ ব্যাবহার করে বাংলাদেশিদের পাঠানো মেসেজের সংখ্যা বেড়েছে ৮ শতাংশের বেশি।

বছরজুড়ে বাংলাদেশি ইমো ব্যবহারকারীরা সাড়ে নয় হাজার কোটির বেশি মেসেজ এবং আড়াই হাজার কোটির বেশি অডিও-ভিডিও কল করেছে।

এর মধ্যে তিন হাজার কোটির মত রয়েছে আন্তর্জাতিক মেসেজ আর দেড় হাজার কোটির বেশি আন্তর্জাতিক অডিও-ভিডিও কল রয়েছে।

মেসেজিং অ্যাপ কোম্পানিটি এক বিবৃতিতে বলছে, “বাংলাদেশিদের ইমোর ব্যবহার রেকর্ড ছুঁয়েছে।”

গণমাধ্যমকে পাঠানো বিবৃতিতে ইমো’র ভাইস প্রেসিডেন্ট বাংলাদেশিদের এত এই প্রবণতাকে ‘অভূতপূর্ব’ বলে উল্লেখ করেছেন।

কারা, কোথায় পাঠাচ্ছেন এত বার্তা
ইমো অনেক বেশি জনপ্রিয় বিভিন্ন দেশে কর্মরত বাংলাদেশের অভিবাসী কর্মী ও তাদের পরিবারের সদস্যদের কাছে।

যে কোন অভিবাসী কর্মী ও তাদের আত্মীয় স্বজনদের সাথে কথা বললেই জানা যাবে তাদের মোবাইল ফোনে ইমো ইন্সটল করা আছে।

যেমনটা বলছিলেন একটি ডেলিভারি সার্ভিসের কর্মী আব্দুল কাইয়ুম।

তিনি বলছেন, “আমার নিজের ভাই মালয়েশিয়া থাকে। ফুপাত ভাই, খালুসহ আরও আত্মীয় বিদেশে থাকে। ওনাদের সাথে ইমোতেই কথা বলতে হয়। কারণ ওনারা সবসময় ইমোতেই কল দেয়। আমি অফিসের কাজে হোয়াটসঅ্যাপ ব্যবহার করি কিন্তু দেখা যাইতেছে অন্যদের কাছে হোয়াটসঅ্যাপ বা ভাইবার এইসব নাই।”

মিরপুরের রাবেয়া খাতুনের স্বামী থাকেন সৌদি আরব। তিনি বলছেন, “ইমো না থাকলে জিজ্ঞেস করে- নাই কেন? তাই আমাদেরও ইমো নামাইতে হইছে। ইমোতে সব নম্বর খুইজা পাই। কিন্তু অন্যগুলা নামাইয়া দেখছি। অনেক নম্বর খুইজা পাওয়া যায় না।”

রাবেয়া খাতুনের স্বামী যে দেশে থাকেন সেই সৌদি আরবেই সবচেয়ে বেশি আন্তর্জাতিক মেসেজ ও কল আদান প্রদান হয়েছে বলছে ইমোর বার্ষিক রিপোর্ট বলছে।

বাংলাদেশি অভিবাসী শ্রমিকদের মধ্যে সবচেয়ে বড় সংখ্যকই কাজ করছেন এই দেশটিতে।

সূত্র বিবিসি

শেয়ারবাজার নিউজ/মি

আপনার মতামত দিন

Your email address will not be published.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.