কোম্পানিগুলো সুযোগ পেলেও বঞ্চিত বিনিয়োগকারীরা

Sakkhatkar_ShadrebazarNewsশেয়ারবাজার রিপোর্ট: যে বাজেট হয়েছে তাতে পুঁজিবাজারের সাধারণ বিনিয়োগকারীদের কোন লাভ হয়নি। লাভ হয়েছে ব্যাংক, মার্চেন্ট ব্যাংক, ব্রোকারেজ হাউজ এবং প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীদের। এমনটাই মনে করেন কাজী ফিরোজ রশিদ সিকিউরিটিজ হাউজে লেনদেন করা মো: শাহ আলম নামক একজন সাধারণ বিনিয়োগকারী। তার বিও অ্যাকাউন্ট নং ২৪৫৩৮০০৩৫৯। তিনি ২০০৪ সাল থেকে শেয়ার ব্যবসা শুরু করেন। পুঁজিবাজার মন্দায় তার এ পর্যন্ত লোকসানের পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ৪৮ লাখ টাকা।

শেয়ারবাজারনিউজ ডটকমকে শাহ আলম জানান, পুঁজিবাজারকে স্থিতিশীলতায় নিয়ে আসার জন্যে একমাত্র দরকার সংশ্লিষ্ট সংস্থা গুলোর বন্ধুত্বপূর্ন সম্পর্ক এবং বিনিয়োগকারীদের প্রতি সরকারের সুদৃষ্টি। গত ৪ই জুন প্রস্তাবিত বাজেটে বিনিয়োগকারীদের জন্য তেমন কিছুই পাওয়া যায়নি। শুধু কোম্পানিগুলোকে বিভিন্ন সুযোগ-সুবিধা বৃদ্ধি এবং আর্থিক খাতের কোম্পানিগুলোর দিকে বিশেষ নজর দেয়া হয়েছে। বঞ্চিত করা হয়েছে পুঁজিবাজারের প্রাণ সাধারন বিনিয়োগকারীদের।

বর্তমানে বাজার যেই অবস্থানে রয়েছে এর থেকে উত্তোরণের একমাত্র উপায় বিনিয়োগকারীদের সহায়তা করা। এই সহায়তা হিসেবে আমি বলতে চাচ্ছি ২০১১ সাল থেকে এ পর্যন্ত মার্জিন ঋণধারী বিনিয়োগকারীদের সুদ মওকুফ করার কথা। কারন হিসেবে আমি মনেকরি সুদ মওকুফ করলে বিনিয়োগকারীরা স্বাচ্ছন্দে বিনিয়োগ করতে পারবেন। এর ফলে বাজারে টার্নওভার বৃদ্ধি পাবে। টার্নওভার বৃদ্ধি পেলে বাজারের অন্যান্য বিষয় ভালো দিকে অগ্রসর হবে।

কিন্তু এর মধ্যে এক মাত্র বাধা হচ্ছে বিনিয়োগকারীদের কাঁধে মার্জিন ঋণের বোঝা বলে মনে করেন শাহ আলম। তিনি জানান, এই পরিবর্তনের চিত্র দেখলে বাজারে নতুন বিনিয়োগকারী প্রবেশ করবে। এখন দেখা যাচ্ছে যার উল্টো চিত্র। বর্তমান বিনিয়োগকারীরা তাদের বিনিয়োগ তুলে নিয়ে বের হয়ে যাচ্ছে। এরকম চলতে থাকলে এক সময় পর্যাপ্ত বিনিয়োগকারী সংকটে ভুগবে পুঁজিবাজার।

এছাড়াও বাজার সম্পর্কে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের নেগেটিভ মনোভাব এবং অদুরদর্শিতাও বাজারের বর্তমান পরিস্থিতির কারন। আমি মনেকরি ব্যাংগুলোর এক্সপোজার লিমিট বাড়ানো উচিত বলে মনে করেন তিনি।

শেয়ারবাজারনিউজ/রু/সা

আপনার মন্তব্য

Top