আজ: শনিবার, ৩১ জুলাই ২০২১ইং, ১৭ই শ্রাবণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ২০শে জিলহজ, ১৪৪২ হিজরি

সর্বশেষ আপডেট:

২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২১, শুক্রবার |



kidarkar

লন্ডন এক্সপ্রেসের বেপরোয়া গতির কারণে প্রাণ গেল ৮ জনের   

শেয়ারবাজার ডেস্ক: সিলেটগামী লন্ডন এক্সপ্রেস পরিবহনের বাসটি বেপরোয়া গতিতে ‘ভুলপথে’ চলার কারণে এনা পরিবহনের বাসের সঙ্গে মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়েছে বলে মনে করছেন যাত্রী ও সংশ্লিষ্টরা। এই দুর্ঘটনায় ৮ জন মারা গেছেন। আহত হয়েছেন আরও অর্ধশত যাত্রী।

আজ শুক্রবার সকাল সাড়ে ৬টার দিকে সিলেট-ঢাকা মহাসড়কের দক্ষিণ সুরমা উপজেলার রশিদপুরে এ দুর্ঘটনা ঘটে। দুর্ঘটনার পর প্রায় আধাঘণ্টা বাসের মধ্যে আটকে ছিলেন যাত্রীরা। চিৎকার শুনে স্থানীয়রা এগিয়ে এসে তাদের উদ্ধার করেন। খবর পেয়ে পুলিশ ও ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা আহতদের উদ্ধার করে সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিক‌্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠান।

সিলেট শহরের বাসিন্দা লন্ডন এক্সপ্রেস পরিবহনের বাসের বেঁচে যাওয়া যাত্রী রোমেল হোসেন সাংবাদিকদের বলেন, ‘ঢাকা থেকে রাতে ছাড়ার পর চালক বেপরোয়া গতিতে বাস চালাচ্ছিলেন। কয়েকবার অন্য গাড়িকে বিপজ্জনকভাবে ওভারটেক করেন। এ নিয়ে যাত্রীরা তাকে কয়েকবার সতর্কও করেন। কিন্তু যাত্রীদের কথায় চালক গুরুত্ব দেননি।’ তাই এমন দুর্ঘটনা ঘটেছে বলে অভিমত ব্যক্ত করেন এই যাত্রী।

ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স সিলেটের উপ-পরিচালক কোবাদ আলী সরকার বলেন, ‘প্রত্যেক গাড়ি সড়কে তার বাম পাশ দিয়ে চলে। কিন্তু লন্ডন এক্সপ্রেস ডান পাশে চলে আসে। এ কারণে বিপরীতদিক থেকে আসা বাসের সঙ্গে মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়।’

কোবাদ আলী সরকার বলেন, ‘প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে, রশিদপুর সেতু ক্রস করতে গিয়ে লন্ডন এক্সপ্রেসের বাসের চালক নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে ভুল লাইনে চলে আসেন। এ কারণে দুর্ঘটনা ঘটতে পারে।’ তবে দুর্ঘটনার আসল কারণ তদন্তে জানা যাবে বলে জানান তিনি।

স্থানীয়রা জানান, সিলেটগামী লন্ডন এক্সপ্রেসের বাস (ঢাকা মেট্রো-ব ১৫-৩১৭৬) ও ঢাকামুখী এনা পরিবহনের বাসের (ঢাকা মেট্রো ব ১৪-৭৩১১) মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়। এতে উভয় বাসের সামনের অংশ দুমড়ে-মুচড়ে গেছে।

নিহতরা হলেন, সিলেটের উইমেন্স মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ফরেনসিক মেডিসিন বিভাগের প্রভাষক আল মাহমুদ সাদ ইমরান খান (৩৩), এনা পরিবহনের বাসের চালক ওসমানীনগর উপজেলার ধরখা গ্রামের মঞ্জুর আলী (৩৮), সুপারভাইজার সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুর উপজেলার মিঠাভরা গ্রামের সালমান খান (২৫), হেলপার ধরখা গ্রামের জাহাঙ্গীর হোসেন (২৪), ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সরাইল থানার রাজানিয়াকান্দি গ্রামের নুরুল আমিন (৫০), ঢাকার ওয়ারি এলাকার বাসিন্দা নাদিম আহমদ সাগর (২৯), সিলেট নগরীর আখালিয়া এলাকা শাহ কামাল (২৭) ও সিলেটের ছাতকের বাংলাবাজার এলাকার রহিমা (২৬)।

সিলেট মেট্রোপলিটন পুলিশের অতিরিক্ত উপ-কমিশনার (মিডিয়া অ্যান্ড কমিউনিটি সার্ভিস) বি এম আশরাফ উল্ল্যা তাহের বলেন, দুর্ঘটনার পর প্রায় তিন ঘণ্টা সড়কে যান চলাচল বন্ধ ছিল। দুর্ঘটনা কবলিত বাস দুটি সরিয়ে যান চলাচল স্বাভাবিক করা হয়।

আপনার মতামত দিন

Your email address will not be published.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.