আজ: মঙ্গলবার, ২২ জুন ২০২১ইং, ৯ই আষাঢ়, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১১ই জিলকদ, ১৪৪২ হিজরি

সর্বশেষ আপডেট:

১৮ মে ২০২১, মঙ্গলবার |


kidarkar

কানাডার কাছে অ্যাস্ট্রাজেনেকার ২০ লাখ টিকা চেয়েছে বাংলাদেশ

শেয়ারবাজার ডেস্ক: কানাডার কাছে অ্যাস্ট্রাজেনেকার ২০ লাখ ডোজ টিকা চেয়েছে বাংলাদেশ।

ঢাকাস্থ কানাডার হাইকমিশনার বেনাওয়ে প্রিফন্টেইন মঙ্গলবার (১৮ মে) পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আবদুল মোমেনের সঙ্গে তার কার্যালয়ে সাক্ষাৎ করতে গেলে মন্ত্রী কানাডাকে ২০ লাখ ডোজ করোনাভাইরাস প্রতিরোধী অ্যাস্ট্রাজেনেকার টিকা সরবরাহ করার আহ্বান জানান।

ড.মোমেন জানান, বাংলাদেশ ভারতের সেরাম ইনস্টিটিউটের সাথে অ্যাস্ট্রাজেনেকা ভ্যাকসিনের ৩ কোটি ডোজ সংগ্রহের চুক্তি করে এটি সংগ্রহের ক্ষেত্রে দ্রুত পদক্ষেপ নিয়েছিল। এখন কোভিড-১৯ নিয়ে ভারতে এক কঠিন পরিস্থিতিতে রয়েছে তার জন্য সেখান থেকে মাত্র ১০.২ মিলিয়ন ডোজ টিকা পাওয়া গেছে। ভারতে চলমান কোভিড-১৯ প্রাদুর্ভাবের কারণে এখন টিকা পাওয়ার সম্ভাবনা কম।

তিনি বাংলাদেশে দ্বিতীয় ডোজ চালু রাখার জন্য অ্যাস্ট্রাজেনেকা ভ্যাকসিনের জরুরি প্রয়োজনের উল্লেখ করে বলেন, বর্তমানে এটি বাংলাদেশের পক্ষে একটি উচ্চ অগ্রাধিকার।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ ইস্যুতে কানাডার সংশ্লিষ্ট মন্ত্রী অনিতা আনন্দের সাম্প্রতিক বক্তব্যের কথা উল্লেখ করে বলেন, কানাডিয়ান সরকার উন্নয়নশীল দেশগুলোতে অ্যাস্ট্রাজেনেকার বাড়তি ভ্যাকসিন বিতরণ করতে পারে বলে অনিতা জানিয়েছেন। পররাষ্ট্রমন্ত্রী কানাডার হাইকমিশনারকে এ ইস্যুতে তার সরকারের সঙ্গে যোগাযোগ করার আহ্বান জানান, যাতে বাংলাদেশ কমপক্ষে ২০ লাখ ডোজ অ্যাস্ট্রাজেনেকার টিকা জরুরি ভিত্তিতে কানাডা থেকে আনতে পারে।

তিনি আরও প্রস্তাব দেন কানাডা বাংলাদেশে জোর করে পাঠানো বাস্তুচ্যুত রোহিঙ্গাদের আলাদাভাবে টিকা দেওয়ার ক্ষেত্রে সহায়তা করতে পারে।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী মোমেন বলেন, চীন, রাশিয়া এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রসহ আরও কয়েকটি দেশ থেকে টিকা সংগ্রহের জন্য সরকারের প্রচেষ্টা করছে।

কানাডিয়ান হাইকমিশনার আশ্বাস দেন, তিনি অবিলম্বে ২০ লাখ ডোজ টিকা সরবরাহের জন্য বাংলাদেশের অনুরোধ সম্পর্কে কানাডিয়ান সরকারের সঙ্গে যোগাযোগ করবেন। এ বিষয়ে অটোয়ায় বাংলাদেশ হাইকমিশন কানাডার সরকারের সঙ্গেও যোগাযোগ করছে।

আপনার মতামত দিন

Your email address will not be published.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.