আজ: সোমবার, ২৬ জুলাই ২০২১ইং, ১১ই শ্রাবণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১৫ই জিলহজ, ১৪৪২ হিজরি

সর্বশেষ আপডেট:

০৩ জুলাই ২০২১, শনিবার |



kidarkar

তিন বছরের মধ্যে তেলের দাম সর্বোচ্চ

শেয়ারবাজার ডেস্ক: মহামারি করোনাভাইরাসের ধকল কাটিয়ে বেশ চাঙা হয়ে উঠেছে তেলের বাজার। দফায় দফায় দাম বেড়ে বিশ্ববাজারে প্রতি ব্যারেল অপরিশোধিত তেলের দাম ৭৫ ডলার ছাড়িয়ে গেছে। এতে প্রায় তিন বছরের মধ্যে সর্বোচ্চ অবস্থানে উঠে এসেছে তেলের দাম।

বিশ্বাবাজারে তেলের দাম বৃদ্ধির প্রবণতা দেখা যাচ্ছে গত বছরের নভেম্বর থেকেই। তবে জুন মাসে সাম্প্রতিক সময়ের মধ্যে তেলের দামে বড় উত্থান হয়েছে। এর মাধ্যমে ২০১৮ সালের অক্টোবরের বা ৩২ মাস পর অপরিশোধিত তেলের ব্যারেল ৭৫ ডলারে উঠে আসল।

অপরিশোধিত তেলের পাশাপাশি ব্রেন্ট ক্রুড অয়েল ও হান্টিং অয়েলও প্রায় তিন বছরের মধ্যে সর্বোচ্চ অবস্থানে উঠেছে। ব্রেন্ট ক্রুড অয়েল ২০১৮ সালের অক্টোবরের পর এবং হান্টিং অয়েল ২০১৮ সালের নভেম্বরের পর এখন সর্বোচ্চ দামে রয়েছে।

তথ্য পর্যালোচনায় দেখা যায়, অপরিশোধিত তেলের পাশাপাশি ব্রেন্ট ক্রুড অয়েল ও হান্টিং অয়েলের দাম ধারাবাহিকভাবে বাড়ছে। গত এক মাসে বিশ্ববাজারে অপরিশোধিত তেলের দাম বেড়েছে ৯ শতাংশের ওপরে। ব্রেন্ট ক্রুড অয়েলের দাম বেড়েছে সাড়ে ৬ শতাংশের ওপরে। আর হান্টিং অয়েলের দাম বেড়েছে সাড়ে ৩ শতাংশের ওপরে।

গত সপ্তাহের শেষ কার্যদিবসে প্রতি ব্যারেল অপরিশোধিত তেলের দাম দশমিক শূন্য ৪ ডলার কমে ৭৫ দশমিক শূন্য ৯ ডলারে দাঁড়িয়েছে। এতে সপ্তাহের ব্যবধানে অপরিশোধিত তেলের দাম বেড়েছে ১ দশমিক ৪০ শতাংশ। আর মাসের ব্যবধানে বেড়েছে ৯ দশমিক ১৩ শতাংশ।

ব্রেন্ট ক্রুড অয়েলের দাম গত সপ্তাহের শেষ কার্যদিবসে দশমিক ২৭ ডলার বেড়ে প্রতি ব্যারেল ৭৬ দশমিক শূন্য ৩ ডলারে উঠে এসেছে। এরপরও গত এক সপ্তাহে ব্রেন্ট ক্রুড অয়েলের দাম কমেছে দশমিক ২০ শতাংশ। অবশ্য মাসের ব্যবধানে বেড়েছে ৬ দশমিক ৬২ শতাংশ।

অপরদিকে গত এক সপ্তাহে ১ দশমিক ২৫ শতাংশ বেড়ে প্রতি গ্যালন হান্টিং অয়েলের দাম ২ দশমিক ১৮ ডলারে উঠে এসেছে। এর মাধ্যমে মাসের ব্যবধানে হান্টিং অয়েলের দাম ৩ দশমকি ৫৪ শতাংশ বেড়েছে।

বিশ্বজুড়ে ছড়িয়েপড়া মহামারি করোনাভাইরাসের প্রকোপ ভয়াবহ রূপ নিলে গত বছরের ২০ এপ্রিল বিশ্ববাজারে ইতিহাসের সর্বোচ্চ দরপতনের মধ্যে পড়ে তেল। সেদিন প্রতি ব্যারেল অপরিশোধিত তেলের দাম ঋণাত্মক ৩৭ ডলারের নিচে নেমে যায়।

রেকর্ড এই দরপতনের পরেই অবশ্যই তেলের দাম বাড়তে থাকে। এতে রেকর্ড দরপতনের ধকল সামলে গত বছরের বেশিরভাগ সময় প্রতি ব্যারেল অপরিশোধিত তেলের দাম ৪০ ডলারে আশেপাশে ঘুরপাক খাচ্ছিল।

কিন্তু বিশ্বজুড়ে মহামারি করোনাভাইরাসের সংক্রমণ নতুন করে বৃদ্ধি পাওয়া এবং লিবিয়ার তেল উত্তোলন বৃদ্ধি পাওয়ায় মাঝে বিশ্ববাজারে তেলের বড় দরপতন হয়। অক্টোবরের শেষ সপ্তাহে অপরিশোধিত ও ব্রেন্ট ক্রুড অয়েলের দাম প্রায় ১০ শতাংশ কমে যায়।

তবে এই পতনের ধকল কাটিয়ে গত বছরের নভেম্বর থেকে আবার তেলের দাম বাড়তে শুরু করে। অবশ্য প্রতি ব্যারেল অপরিশোধিত তেলের দাম ৫০ ডলারের নিচে থেকেই ২০২০ সাল শেষ হয়।

চলতি বছরের শুরুতেও তেলের দামের এই বৃদ্ধির প্রবণতা দেখা যায়। কয়েক দফা দাম বেড়ে করোনার মধ্যে প্রথমবার ফেব্রুয়ারির দ্বিতীয় সপ্তাহে প্রতি ব্যারেল অপরিশোধিত তেলের দাম ৬০ ডলারে উঠে আসে। এর মাধ্যমে মহামারি শুরু হওয়ার আগের দামে ফিরে যায় তেল। আর প্রায় তিন বছর পর গত সপ্তাহে প্রতি ব্যারেল অপরিশোধিত তেল আবারও ৭৫ ডলার স্পর্শ করল।

আপনার মতামত দিন

Your email address will not be published.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.