আজ: সোমবার, ০৬ ডিসেম্বর ২০২১ইং, ২১শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ২৯শে রবিউস সানি, ১৪৪৩ হিজরি

সর্বশেষ আপডেট:

১০ নভেম্বর ২০২১, বুধবার |



kidarkar

ইংল্যান্ডের স্বপ্নে হানা দিল নিউজিল্যান্ড

স্পোর্টস ডেস্ক: লক্ষ্য বড় নয়। টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের ফাইনালে যেতে নিউজিল্যান্ডের দরকার ১৬৭ রান। এই লক্ষ্য তাড়া করতে নেমেই বিপদে কিউইরা। দুর্দান্ত বোলিংয়ে নিউজিল্যান্ডকে চাপে রেখেছে ইংল্যান্ড। এরই মধ্যে কিউইদের দুই গুরুত্বপূর্ণ ব্যাটসম্যান মার্টিন গাপটিল ও কেন উইলিয়ামসনকে ফিরিয়ে দিয়েছে ইংলিশরা। সে ধারাবাহিকতায় দ্রুত উইকেট হারিয়ে চাপে পড়ে যায় নিউজিল্যান্ড।

এরপর এক ওভার ২০ রান নিয়ে ম্যাচের মোড় ঘুরিয়ে দেন নিউজিল্যান্ড  ব্যাটসম্যান নিশাম।

আজ বুধবার টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের প্রথম সেমিফাইনালে টস হেরে আগে করে নির্ধারিত ২০ ওভারে ১৬৬ রান সংগ্রহ করে ইংল্যান্ড। দলটির হয়ে সর্বোচ্চ ৫১ রান করেন মঈন আলী।

আবুধাবির শেখ জায়েদ স্টেডিয়ামে ব্যাট করতে নেমে শুরুটা সতর্কভাবেই করে ইংল্যান্ড। নিয়মিত ওপেনার রস টেইলর না থাকায় আজ ওপেনিংয়ের দায়িত্ব সামলান জস বাটলার ও জনি বেয়ারস্টো। পাওয়ার প্লেতে প্রথম তিন ওভারে দুজনে তোলেন ১৩ রান, পরের তিন ওভারে আসে ২৭ রান। মোট ছয় ওভারে আসে ৪০ রান।

কিন্তু দুই ওপেনার ভালো কিছুর আভাস দিয়েও টিকে থাকতে পারেননি। জুটিতে ভালো সাফল্য পায়নি ইংলিশরা। সাবধানী শুরুর পর দুজনেই ফিরেছেন সাজঘরে। সেট হয়ে টিকতে পারেননি একজনও।

ষষ্ঠ ওভারে বোলিংয়ে এসে নিউজিল্যান্ডকে প্রথম সাফল্য এনে দেন অ্যাডাম মিলনে। ডানহাতি পেসারের ফুলার লেন্থ বল মারতে গিয়ে মিড অফে ক্যাচ তুলে দেন বেয়ারস্টো। সেখানে থাকা উইলিয়ামসন দুর্দান্ত ক্যাচ নিয়ে বিদায় করেন ইংলিশ তারকাকে। ১৭ বলে ১৩ রান করে ফেরেন বেয়ারস্টো।

বেয়ারস্টোর পর বেশিক্ষণ টিকলেন না বাটলারও। ইশ শোধির বলে রিভার্স সুইপ খেলতে গিয়ে এলবির ফাঁদে পড়ে যান তিনি। রিভিউ নিয়ে বাঁচতে চেয়েছিলেন তিনি। কিন্তু শেষ রক্ষাও হলো না। ২৪ বলে ২৯ রান করে সাজঘরে ফিরেছেন বাটলার।

দুই ওপেনারকে হারানোর পর প্রতিরোধ গড়েন মঈন আলী ও ডেভিড মালান। এই জুটিতে স্কোরবোর্ডে ৬৩ রান তোলে ইংল্যান্ড। ১৬তম ওভারে এই জুটি ভাঙেন টিম সাউদি। চার বাউন্ডারি ও এক ছক্কায় ৩০ বলে ৪১ করে ফেরেন মালান। তারপর উইকেটে এসে ফিরে যান লিয়াম লিভিংস্টোনও।

তবে মালান-লিয়াম ফিরলেও টিকে ছিলেন মঈন। দায়িত্বশীল ব্যাটিংয়ে দলকে টেনে নেন তিনি। শেষ ওভারে বাউন্ডারি হাঁকিয়ে ৩৬ বলে তুলে নেন ব্যক্তিগত হাফসেঞ্চুরি। তাঁর ব্যাটে চড়েই শেষ পর্যন্ত ১৬৬ রানের পুঁজি পায় ইংলিশ। ইনিংস শেষে ৫১ রানে অপরাজিত ছিলেন মঈন। ৩৭ বলে তাঁর ইনিংসে ছিল তিন বাউন্ডারি ও দুই ছক্কা।

নিউজিল্যান্ডের হয়ে বল হাতে ২৪ রান দিয়ে এক উইকেট নেন সাউদি। ৩২ রান খরচায় সমান একটি নেন ইশ শোধি। ৩১ রান দিয়ে অ্যাডাম মিলনেও নেন একটি।

আপনার মতামত দিন

Your email address will not be published.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.