আজ: বৃহস্পতিবার, ২৭ জানুয়ারী ২০২২ইং, ১৩ই মাঘ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ২৩শে জমাদিউস সানি, ১৪৪৩ হিজরি

সর্বশেষ আপডেট:

২৮ নভেম্বর ২০২১, রবিবার |



kidarkar

ইএসজিতে এসিইএস অ্যাওয়ার্ড পেয়েছে ব্রিটিশ আমেরিকান টোব্যাকো

নিজস্ব প্রতিবেদক: দেশের প্রথম কোম্পানি হিসেবে এশিয়ার অন্যতম সবুজ কোম্পানি ক্যাটাগরিতে সম্মানসূচক এশিয়া কর্পোরেট এক্সিলেন্স এন্ড সাস্টেইন্যাবিলিটি (এসিইএস) অ্যাওয়ার্ডস অর্জন করেছে ব্রিটিশ আমেরিকান টোব্যাকো (বিএটি) বাংলাদেশ। ইনভায়রনমেন্টাল, সোশ্যাল ও গভর্ন্যান্স (ইএসজি) চর্চায় বর্ণাঢ্য অবদানের জন্য এ পুরস্কারে স্বীকৃত হয়েছে বিএটি বাংলাদেশ।

২০১৪ সালে প্রতিষ্ঠার পর থেকেই এসিইএস অ্যাওয়ার্ডস এশিয়ার সবচেয়ে জনপ্রিয় স্বীকৃতিগুলোর মধ্যে অন্যতম ৷ বিভিন্ন শিল্পের পথিকৃৎদের প্রতিভাধর উদ্ভাবন, সক্ষমতা এবং সহনশীলতার মানদন্ডে এশিয়া কর্পোরেট এক্সিলেন্স অ্যান্ড সাসটেইনেবিলিটি অ্যাওয়ার্ডস (এসিইএস) তার ৮ম সংস্করণে সেরাদের সেরা কর্পোরেশনগুলোকে বিজয়ী নির্বাচন করেছে ।

উল্লেখ্য যে, ব্যবসায় কার্যক্রমে সকল ক্ষেত্রে পরিবেশবান্ধব পদক্ষেপ গ্রহণকারী কোম্পানিগুলোকে ‘এশিয়ার শীর্ষ সবুজ কোম্পানি’ উপাধিতে ভূষিত করা হয়।

এক বিবৃতিতে বিএটি বাংলাদেশের ম্যানেজিং ডিরেক্টর শেহ্জাদ মুনীম বলেন, “আমরা এসিইএস অ্যাওয়ার্ডস ২০২১ বিজয়ী হতে পেরে আনন্দিত। বিএটি বাংলাদেশ সবক্ষেত্রে ইএসজি কে সর্বোচ্চ প্রাধান্য প্রদান করে আসছে এবং এ ধরনের স্বীকৃতি সমাজ ও কোম্পানির অংশীদারদের সাথে নিয়ে একটি সম্ভাবনাময় আগামী বিনির্মানের লক্ষ্যে এগিয়ে যাওয়ার একটি প্রমাণস্বরূপ।”

এ অঞ্চলে ১১০ বছর ধরে ব্যবসায় পরিচালনা করা বিএটি বাংলাদেশ, প্রতিষ্ঠার পর থেকে টেকসই কৃষি কৌশল সম্পর্কে কৃষকদের অবগত করার লক্ষ্যে নানাবিধ পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে। বিএটি বাংলাদেশের অন্যতম ইএসজি উদ্যোগ, দেশের সবচেয়ে বড় বৃক্ষরোপন কর্মসূচি সারাদেশে প্রায় ১১.৫ কোটি চারা বিতরণ করেছে। গ্রামীণ সম্প্রদায়ের ২৭০,০০০ এর অধিক মানুষকে আর্সেনিক ও অন্যান্য বিষাক্ত উপাদানমুক্ত নিরাপদ খাবার পানি সরবরাহ করছে। এছাড়াও পার্বত্য চট্টগ্রামের দুর্গম এলাকায় সোলার হোম সিস্টেম স্থাপন করে ১৫০০০ এর বেশি মানুষকে বিদ্যুৎ সুবিধা প্রদান করছে ।

পরিবেশের উপর ক্ষতিকর প্রভাব মোকাবেলায় অপ্রয়োজনীয় প্লাস্টিকের ব্যবহার বন্ধকরণ, নিরাপদ বর্জ্য ব্যবস্থাপনা, পানির পুনর্ব্যবহার ও কার্বন নিরপেক্ষতা নিশ্চিতকরণের মতো লক্ষ্যসমূহ বাস্তবায়নে কাজ করছে বিএটি বাংলাদেশ। বিএটি বাংলাদেশ বিশ্বাস করে, ইএসজির এই প্রাধান্য জনসমাজের জন্য এক নিরাপদ, উৎপাদনশীল ও সেবামূলক পরিবেশ সৃষ্টি করে একটি সম্ভাবনাময় আগামী নির্মাণ করবে।

 

 

 

আপনার মতামত দিন

Your email address will not be published.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.