আজ: শনিবার, ২৯ জানুয়ারী ২০২২ইং, ১৫ই মাঘ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ২৪শে জমাদিউস সানি, ১৪৪৩ হিজরি

সর্বশেষ আপডেট:

০৬ ডিসেম্বর ২০২১, সোমবার |



kidarkar

শিক্ষার্থীদের মাঝে বঙ্গবন্ধুর আদর্শ ছড়িয়ে দিতে চায় বিকাশ

নিজস্ব প্রতিবেদক: স্কুলের শিক্ষার্থীদের জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আদর্শে অনুপ্রাণিত করতে ঢাকা, রাজশাহী, বরিশাল ও ময়মনসিংহের পর এবার সিলেট বিভাগের ৫৫টি স্কুলে ২২০০ কপি গ্রাফিক নভেল ‘মুজিব’ বিতরণ করলো বিকাশ। মুজিব শতবর্ষ উদযাপন এবং বাংলাদেশের স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উপলক্ষ্যে ধারাবাহিকভাবে সারাদেশের ৫০০টি স্কুলে ২০ হাজার কপি গ্রাফিক নভেল ‘মুজিব’ বিতরণের উদ্যোগ নিয়েছে দেশের সবচেয়ে বড় মোবাইল ফিন্যান্সিয়াল সার্ভিস প্রদানকারী প্রতিষ্ঠান বিকাশ।

সোমবার (৬ ডিসেম্বব) সিলেটে কবি নজরুল অডিটোরিয়ামে স্কুল প্রতিনিধি ও শিক্ষার্থীদের হাতে বই তুলে দেন বিভাগীয় কমিশনার (অতিরিক্ত সচিব) ড. মুহাম্মদ মোশাররফ হোসেন।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন, বিকাশের চিফ এক্সটার্নাল অ্যান্ড কর্পোরেট অ্যাফেয়ার্স অফিসার মেজর জেনারেল শেখ মনিরুল ইসলাম (অবঃ) এবং সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব ও বিশ্বসাহিত্য কেন্দ্রের ট্রাস্টি আব্দুন নূর তুষার।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি সিলেট বিভাগীয় কমিশনার (অতিরিক্ত সচিব) ড. মুহাম্মদ মোশাররফ হোসেন বলেন, বঙ্গবন্ধু ছোটবেলা থেকেই মাটি ও মানুষের কল্যাণে কাজ করেছেন, সংগ্রাম করেছেন তাদের জন্য। বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে প্রকাশিত ‘মুজিব’ নভেল শিক্ষার্থীরা খুব সহজেই বুঝতে পারবে এবং তার জীবনের ঘটনাগুলো আত্মস্থ করতে পারবে। এই উদ্যোগের জন্য বিকাশ ও বিশ্বসাহিত্য কেন্দ্রকে ধন্যবাদ।

বিকাশের চিফ এক্সটার্নাল অ্যান্ড কর্পোরেট অ্যাফেয়ার্স অফিসার মেজর জেনারেল শেখ মনিরুল ইসলাম (অবঃ) বলেন, বাংলাদেশ যখন বিজয়ের সুবর্ণজয়ন্তী পালন করছে সেই মাহেন্দ্রক্ষণে বাংলাদেশের স্বাধীনতার রূপকার বঙ্গবন্ধুকে শিক্ষার্থীদের আরো কাছে পৌঁছে দেয়ার এই উদ্যোগ নিয়েছি আমরা। সহজ ভাষা ও যুৎসই চিত্রে তৈরি মুজিব গ্রাফিক নভেল বঙ্গবন্ধুর ত্যাগ-তিতিক্ষা ও সংগ্রাম সম্পর্কে শিক্ষার্থীদের জানার সুযোগ তৈরি করে দেবে যা ভবিষ্যতে তাদের দেশকে এবং দেশের মানুষকে ভালোবাসতে উদ্বুদ্ধ করবে।

বিশ্বসাহিত্য কেন্দ্রের ট্রাস্টি আব্দুন নূর তুষার বলেন, আমাদের একজন বঙ্গবন্ধু আছেন। এই মানুষটিকে জানা মানেই একটি দেশের অভ্যুদয়কে জানা। মুজিব গ্রাফিক নভেলের মাধ্যমে আজকের শিশুরা কেবল বঙ্গবন্ধুকে নয়, বাংলাদেশকেও জানার সুযোগ পাবে। বর্তমান এবং আগামী প্রজন্মের চেতনায় বঙ্গবন্ধুকে, বাংলাদেশকে ধারণ করার সুযোগ তৈরি করে দিতে এই ধরনের উদ্যোগ অব্যাহত থাকা প্রয়োজন।

আপনার মতামত দিন

Your email address will not be published.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.