১০ কোম্পানির আর্থিক প্রতিবেদন প্রকাশ

Arthik Protibadon Reportশেয়ারবাজার ডেস্ক: অর্ধবার্ষিকের অনিরীক্ষিত (জানুয়ারি-জুন ১৫) আর্থিক প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত ১০ কোম্পানি। এগুলো হলো: পাইওনিয়ার ইন্স্যুরেন্স, মার্কেন্টাইল ব্যাংক, আইডিএলসি ফাইন্যান্স, লংকাবাংলা ফাইন্যান্স, সামিট এলায়েন্স, ইস্টার্ন ব্যাংক, আইসিবি ইসলামী ব্যাংক, ইসলামিক ফাইন্যান্স, উত্তরা ফাইন্যান্স এবং রূপালি লাইফ ইন্স্যুরেন্স কোম্পানি লিমিটেড। প্রতিবেদন অনুযায়ী ৬টি কোম্পানির ইপিএস বাড়লেও কমেছে ৪টির। ডিএসই সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

পাইওনিয়ার ইন্স্যুরেন্স:

দ্বিতীয় প্রান্তিকে পাইওনিয়ার ইন্স্যুরেন্সের শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ১.৭২ টাকা, শেয়ার প্রতি সম্পদ (এনএভিপিএস) হয়েছে ২২.৩৯ টাকা। যা আগের বছরে একই সময়ে ইপিএস ছিল ২ টাকা এবং ৩১ ডিসেম্বর ২০১৪ সমাপ্ত অর্থবছরে এনএভিপিএস ছিল ২১.৬০ টাকা । সে হিসেবে কোম্পানিটির ইপিএস কমেছে ০.২৮ টাকা বা ১৪ শতাংশ।

গত তিন মাসে (এপ্রিল-জুন ১৫) এ কোম্পানির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ০.৬৪ টাকা। যা আগের বছরে একই সময়ে ছিল ০.৯৭ টাকা।

মার্কেন্টাইল ব্যাংক:

দ্বিতীয় প্রান্তিকে মার্কেন্টাইল ব্যাংকের শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ০.৫০ টাকা, শেয়ার প্রতি সম্পদ (এনএভিপিএস) হয়েছে ১৭.৯১ টাকা এবং শেয়ার প্রতি কার্যকারী নগদ প্রবাহের পরিমাণ হয়েছে (এনওসিএফপিএস) ৪.০৯ টাকা। যা আগের বছরে একই সময়ে ইপিএস ছিল ০.৫৮ টাকা, এনওসিএফপিএস ছিল ৮.৯৫ টাকা এবং ৩১ ডিসেম্বর ২০১৪ সমাপ্ত অর্থবছরে এনএভিপিএস ছিল ১৮.৩৪ টাকা । সে হিসেবে কোম্পানিটির ইপিএস কমেছে ০.০৮ টাকা।

গত তিন মাসে (এপ্রিল-জুন ১৫) এ কোম্পানির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ০.৪৬ টাকা। যা আগের বছরে একই সময়ে ছিল ০.২৯ টাকা।

রূপালি লাইফ:

দ্বিতীয় প্রান্তিকে রূপালি লাইফের রেভেনিউ এ্যাকাউন্ট বেড়েছে ৩ কোটি ৩৫ লাখ টাকা। আর বীমা তহবিলের পরিমাণ হচ্ছে ৩৪০ কোটি ৩৯ লাখ ২০ হাজার টাকা। যা আগের বছর এক সময়ে রেভেনিউ এ্যাকাউন্ট বেড়েছিলো ১১ কোটি ৮৬ লাখ ৯০ হাজার টাকা। আর বীমা তহবিলের পরিমাণ ছিলো ৩১৩ কোটি ৫৪ লাখ ৯০ হাজার টাকা। সে হিসাবে আগের বছরের তুলনায় কোম্পানির বীমা তহবিলের পরিমাণ বেড়েছে ২৬ কোটি ৮৪ লাখ ৩০ হাজার টাকা বা ৮.৫৬ শতাংশ।

এদিকে গত তিন মাসে (এপ্রিল-জুন ১৫) এ কোম্পানিটির রেভেনিউ এ্যাকাউন্ট বেড়েছে ৩ কোটি ৫৪ লাখ ৫০ হাজার টাকা। যা আগের বছরে বেড়েছিলো ৩ কোটি ৯০ লাখ টাকা।

উত্তরা ফাইন্যান্স:

দ্বিতীয় প্রান্তিকে উত্তরা ফাইন্যান্সের শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ৪.৬৮ টাকা, শেয়ার প্রতি সম্পদ (এনএভিপিএস) হয়েছে ৪৭.৮৮ টাকা এবং শেয়ার প্রতি কার্যকারী নগদ প্রবাহের পরিমাণ হয়েছে (এনওসিএফপিএস) ৩৮.০৩ টাকা। যা আগের বছরে একই সময়ে ইপিএস ছিল ৪.৫৩ টাকা, এনওসিএফপিএস ছিল ১৩.৬৭ টাকা এবং ৩১ ডিসেম্বর ২০১৪ সমাপ্ত অর্থবছরে এনএভিপিএস ছিল ৫০.৫৬ টাকা । সে হিসেবে কোম্পানিটির ইপিএস বেড়েছে ০.১৫ টাকা।

গত তিন মাসে (এপ্রিল-জুন ১৫) এ কোম্পানির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ২.৬৪ টাকা। যা আগের বছরে একই সময়ে ছিল ২.৩২ টাকা।

ইসলামিক ফাইন্যান্স:

দ্বিতীয় প্রান্তিকে ইসলামিক ফাইন্যান্সের শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ০.৫৪ টাকা, শেয়ার প্রতি সম্পদ (এনএভিপিএস) হয়েছে ১২.২৫ টাকা এবং শেয়ার প্রতি কার্যকারী নগদ প্রবাহের পরিমাণ হয়েছে (এনওসিএফপিএস) ১.৮৯ টাকা। যা আগের বছরে একই সময়ে ইপিএস ছিল ০.৭২ টাকা, এনএভিপিএস ছিল ১১.৬১ টাকা এবং এনওসিএফপিএস ছিল ৫.৭৯ টাকা। সে হিসেবে কোম্পানিটির এনএভিপিএস বেড়েছে ০.৬৪টাকা।

গত তিন মাসে (এপ্রিল-জুন ১৫) এ কোম্পানির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ০.৫০ টাকা। যা আগের বছরে একই সময়ে ছিল ০.৪৯ টাকা।

আইসিবি ইসলামী ব্যাংক:

অর্ধবাষির্কে আইসিবি ইসলামী ব্যাংকের শেয়ার প্রতি লোকসান হয়েছে ০.১৪ টাকা, শেয়ার প্রতি দায় হয়েছে ১৪.৬২ টাকা এবং শেয়ার প্রতি কার্যকারী নগদ প্রবাহের পরিমাণ হয়েছে (এনওসিএফপিএস) ০.৬২ টাকা (মাইনাস)। যা আগের বছরে একই সময়ে শেয়ার প্রতি লোকসান ছিল ০.৪০ টাকা, শেয়ার প্রতি দায় ছিল ১৪.৪৫ টাকা এবং এনওসিএফপিএস ছিল (মাইনাস) ০.০৮ টাকা। সে হিসেবে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি লোকসান কমেছে ০.২৬ টাকা।

গত তিন মাসে (এপ্রিল-জুন ১৫) এ কোম্পানির শেয়ার প্রতি লোকসান হয়েছে ০.০৩ টাকা। যা আগের বছরে একই সময়ে ছিল ০.১২ টাকা।

এদিকে আলোচিত সময় পর্যন্ত (জুন-১৫) এ কোম্পানির পুঁঞ্জিভূত লোকসানের পরিমাণ ১ হাজার ৬৯৯ কোটি ৯৪ লাখ ৪০ হাজার টাকা এবং শেয়ার হোল্ডার ইক্যুইটি দাঁড়িয়েছে (মাইনাস) ৯৭১ কোটি ৯৬ লাখ ৬০ হাজার টাকা।

ইস্টার্ন ব্যাংক:

অর্ধবাষির্কে ইস্টার্ন ব্যাংকের ইপিএস হয়েছে ২.০৩ টাকা, শেয়ার প্রতি কার্যকারী নগদ প্রবাহের পরিমাণ হয়েছে (এনওসিএফপিএস) ৩.৬৪ টাকা এবং শেয়ার প্রতি সম্পদ (এনএভিপিএস) হয়েছে ৩২.৮৮ টাকা। যা আগের বছরে একই সময়ে ইপিএস ছিল ১.৫৫ টাকা, এনওসিএফপিএস ছিল (মাইনাস) ২১.৮০ টাকা এবং এনএভিপিএস ছিল ৩০.৭৪ টাকা। সে হিসাবে আগের বছরের একই সময়ের তুলনায় কোম্পানিটির ইপিএস বেড়েছে ৩০.৯৭ শতাংশ।

সামিট এলায়েন্স:

অর্ধবার্ষিকে সামিট এলায়েন্সের কর পরিশোধের পর সমন্বিত মুনাফা হয়েছে ৭ কোটি ৭৩ লাখ ৮০ হাজার টাকা এবং শেয়ার প্রতি সমন্বিত আয় (ইপিএস) হয়েছে ০.৪৫ টাকা। যা আগের বছরে একই সময়ে ছিল যথাক্রমে ৬ কোটি ৯৮ লাখ ৩০ হাজার টাকা এবং ইপিএস ছিল ০.৪১ টাকা। সে হিসেবে কোম্পানিটির মুনাফা বেড়েছে ৭৫ লাখ ৫০ হাজার টাকা এবং ইপিএস কমেছে ০.০৪ টাকা।

এদিকে গত তিন মাসে (এপ্রিল-জুন ১৫) এ কোম্পানিটির কর পরিশোধের পর সমন্বিত মুনাফা হয়েছে ৩ কোটি ৪৬ লাখ ৬০ হাজার টাকা এবং শেয়ার প্রতি সমন্বিত আয় (ইপিএস) হয়েছে ০.২০ টাকা। যা আগের বছরে একই সময়ে ছিল যথাক্রমে ৩ কোটি ১৬ লাখ ৪০ হাজার টাকা এবং ইপিএস ছিল ০.১৮ টাকা।

লংকাবাংলা ফাইন্যান্স:

অর্ধবার্ষিকে লংকাবাংলা ফাইন্যান্সের কর পরিশোধের পর সমন্বিত মুনাফা হয়েছে ২ কোটি ৫৯ লাখ ২০ হাজার টাকা এবং শেয়ার প্রতি সমন্বিত আয় (ইপিএস) হয়েছে ০.১১ টাকা। যা আগের বছরে একই সময়ে ছিল যথাক্রমে ১৫ কোটি ৭ লাখ ৪০ হাজার টাকা এবং ইপিএস ছিল ০.৬৩ টাকা। সে হিসেবে কোম্পানিটির মুনাফা কমেছে ১২ কোটি ৪৮ লাখ ২০ হাজার টাকা এবং ইপিএস কমেছে ০.৫২ টাকা।

এদিকে গত তিন মাসে (এপ্রিল-জুন ১৫) এ কোম্পানিটির কর পরিশোধের পর সমন্বিত মুনাফা হয়েছে ৩৪ কোটি ৪৪ লাখ ৮০ হাজার টাকা এবং শেয়ার প্রতি সমন্বিত আয় (ইপিএস) হয়েছে ১.৪৩ টাকা। যা আগের বছরে একই সময়ে ছিল যথাক্রমে ৮ কোটি ৩০ লাখ ২০ হাজার টাকা এবং ইপিএস ছিল ০.৩৪ টাকা।

আইডিএলসি ফাইন্যান্স:

অর্ধবার্ষিকে আইডিএলসি ফাইন্যান্সের কর পরিশোধের পর মুনাফা হয়েছে ৮১ কোটি ৭৭ লাখ টাকা এবং শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ৩.২৫ টাকা। যা আগের বছরে একই সময়ে ছিল যথাক্রমে ৩০ কোটি ৬৫ লাখ ৮০ হাজার টাকা এবং ইপিএস ছিল ১.২২ টাকা। সে হিসেবে কোম্পানিটির মুনাফা বেড়েছে ৫১ কোটি ১১ লাখ ২০ হাজার টাকা এবং ইপিএস বেড়েছে ২.০৩ টাকা।

এদিকে গত তিন মাসে (এপ্রিল-জুন ১৫) এ কোম্পানিটির কর পরিশোধের পর মুনাফা হয়েছে ৬৭ কোটি ৫ লাখ ৩০ হাজার টাকা এবং শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ২.৬৭ টাকা। যা আগের বছরে একই সময়ে ছিল যথাক্রমে ৩৫ কোটি ১৫ লাখ ২০ হাজার টাকা এবং ইপিএস ছিল ১.৪০ টাকা।

 

 

শেয়ারবাজারনিউজ/মু

আপনার মন্তব্য

Top