চীনের আর্থিক সহায়তায় জাহাজ কিনবে সরকার

govশেয়ারবাজার রিপোর্ট: বাংলাদেশ শিপিং করপোরেশনের (বিএসসি) জন্য চীন সরকারের আর্থিক সহায়তায় ৬টি নতুন জাহাজ কিনবে সরকার।

সোমবার সচিবালয়ে ‘অর্থনৈতিক বিষয় সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটি’র বৈঠকে জাহাজ ক্রয়ের বিষয়টি নীতিগতভাবে অনুমোদন দেওয়া হয়। অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত বৈঠকে সভাপতিত্ব করেন।

সরাসরি ক্রয় পদ্ধতিতে ৬টি নতুন জাহাজ ক্রয়ের বিষয়ে নৌ-পরিবহন মন্ত্রণালয়ের প্রস্তাবে বলা হয়েছে, ছয়টি জাহাজের মধ্যে তিনটি প্রোডাক্ট অয়েল ট্যাঙ্কার ও তিনটি বাল্ক ক্যারিয়ার। এতে মোট ব্যয় হবে ১৮ কোটি ৪৫ লাখ ডলার। চীনা সরকারি প্রতিষ্ঠান ‘চায়না ন্যাশনাল মেশিনারি ইমপোর্ট এ্যান্ড এক্সপোর্ট করপোরেশন’ (সিএমসি) এ জাহাজ সরবরাহ করবে। এলক্ষ্যে ২০১২ সালের ১৫ জুন বিএসসি ও সিএমসি’র মধ্যে একটি সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষরিত হয়েছে।

চীনের এক্সিম ব্যাংকের মাধ্যমে চীনা সরকারের প্রিফারেনশিয়াল/কন্সেশনাল ঋণের আওতায় এ জাহাজ কেনা হবে বলে প্রস্তাবে বলা হয়েছে।

এ ছাড়া বৈঠকে চীনের এক্সিম ব্যাংকের অর্থায়নে ‘চতুর্থ টিয়ের (Tier) ন্যাশনাল ডাটা সেন্টার’ স্থাপনে চীনের রাষ্ট্রায়ত্ত কনসোর্টিয়াম ‘জেডটিই হোল্ডিংস কোম্পানি লিমিটেড’ ও ‘জেডটিই করপোরেশন’-এর সঙ্গে চূড়ান্ত কমার্শিয়াল চুক্তি স্বাক্ষরের আরেকটি পৃথক প্রস্তাব নীতিগত অনুমোদন দেওয়া হয়।

বৈঠক শেষে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের যুগ্ম-সচিব মোস্তাফিজুর রহমান জানান, ‘অর্থনৈতিক বিষয় সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটি’র বৈঠকে ৫টি বিষয় আলোচিত হয়েছে। এর মধ্যে উপরোক্ত দু’টি প্রস্তাব নীতিগত অনুমোদন দেওয়া হয়েছে।

অপর তিনটি প্রস্তাব সম্পর্কে যুগ্ম-সচিব বলেন, এগুলো বৈঠকে আলোচনা হয়েছে। কিন্তু এগুলোর বিষয়ে কোনো সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়নি।

প্রস্তাব তিনটি ছিল— তিতাস গ্যাস ফিল্ডের চারটি কূপ খননের জন্য চীনা প্রতিষ্ঠানকে নিয়োগ, বস্ত্র ও পাট মন্ত্রণালয়ের নিয়ন্ত্রণাধীন কোনো প্রতিষ্ঠান বিক্রি, বেসরকারিকরণ ও হস্তান্তরে একমাত্র প্রাইভেটাইজেন কমিশন কর্তৃক প্রয়োজনীয় কার্যক্রম গ্রহণ এবং বেসরকারিকরণের জন্য প্রাইভেটাইজেশন কমিশনে ন্যস্ত বস্ত্র ও পাট মন্ত্রণালয়ের নিয়ন্ত্রণাধীন শিল্প প্রতিষ্ঠানগুলো বিক্রয়ের তালিকা থেকে প্রত্যাহার-পূর্বক সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ে ফেরত প্রদান।

শেয়ারবাজার/অ

আপনার মন্তব্য

Top