শেয়ার ব্যবসা শুরু করার পূর্ব প্রস্তুতি

cse market openingশেয়ারবাজার রিপোর্ট: আমাদের ইনভেস্টমেন্ট স্ট্রাটেজি সিরিজের গত ৩ পর্বের লেখা পড়ে যদি আপনি স্টক মার্কেটে বিনিয়োগের ব্যাপারে আপনার সুনির্দিষ্ট পরিকল্পনার ভিত্তিতে নিজস্ব ব্যক্তিগত রিপোর্ট তৈরি করে থাকেন তাহলে আশা করি অবশ্যই তাতে আপনার বিনিয়োগের পুঁজি কিভাবে বিনিয়োগ করবেন সেই ব্যাপারে নিরাপদ প্ল্যান আছে। যদি না থেকে থাকে তাহলে কিভাবে প্ল্যান অনুযায়ী বিনিয়োগ করবেন তা জানিয়ে দিচ্ছি; মানা, না মানা আপনার ব্যাপার।

>সময়ঃ প্রথমেই বলি আপনার ইনভেস্টমেন্ট স্টাইল নির্ভর করবে আপনার হাতে কি রকম সময় আছে এবং আপনি আপনার মূলধনকে কতদিন বিনিয়োগে রাখতে পারবেন তার উপর। স্বল্প-মেয়াদী, মধ্য-মেয়াদী এবং দীর্ঘ-মেয়াদী এই তিন ধরণের মেয়াদে বিনিয়োগ করা হয়ে থাকে।

স্বল্প-মেয়াদী = ৩ বছরের কম
মধ্য-মেয়াদী = ৩-১০ বছর
দীর্ঘ-মেয়াদী = ১০ বছরের বেশি সময়

ঠিকঠাক ভাবে যত দীর্ঘ সময়ে বিনিয়োগ করা যায় ততই লাভের পরিমাণ চক্রবৃদ্ধি হারে বেড়ে থাকে।

যাই হোক, আগে ভেবে দেখুন আপনি মার্কেটে কিরকম সময় দিতে পারবেন। যদি হাতে প্রতিদিন মার্কেট দেখার মত পর্যাপ্ত সময় না থাকে তাহলে মধ্য-মেয়াদী বা দীর্ঘ-মেয়াদী বিনিয়োগ আপনার জন্য ভালো অপশন। তবে হ্যাঁ, এর সাথে আরেকটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হচ্ছে আপনার অলস সঞ্চয় কত বছর প্রয়োজনহীন থাকবে তা। যেমন- আপনি যদি আপনার ২০-৩০ বছর পরের Retirement সময়ে স্বচ্ছল ও নির্বিঘ্নে থাকতে চান তাহলে দীর্ঘ-মেয়াদে বিনিয়োগের ব্যাপারে আপনার দ্বিতীয়বার ভাবা উচিত নয়। অবশ্যই মনে রাখবেন, স্বল্প-মেয়াদী বিনিয়োগে গেলে আপনাকে অবশ্যই প্রতিদিন মার্কেটে সময় দেবার মত সময় দিতে হবে। শেয়ার কিনে ১ বছর পর এর কি অবস্থা তা দেখলে কাজের কাজ কিছুই হবে না।

>পুঁজির পরিমাণঃ
> কি পরিমাণ পুঁজি নিয়ে শেয়ার ব্যবসা শুরু করবেন?
> অনেক টাকা। তাহলে অনেক লাভ হবে।
> যদি লাভ অনেক হতে পারে লস কি অনেক হতে পারে না?
> হুম, ঠিক বলছেন ভাই। তাহলে অল্প টাকা দিয়ে ব্যবসা শুরু করি? ব্যবসার হাব-ভাব আরও ভালো করে বুঝি তারপর না হয় …… কি বলেন?
> জি, ঠিক সিদ্ধান্ত।
> অল্প তো বুঝলাম। কিন্তু কত অল্প?

ধরুন, আপনার কাছে এখন ১ লক্ষ টাকা আছে যার কোন দরকার নেই আগামি ৫ বছরের মধ্যে। এই ১ লক্ষ টাকা শেয়ার মার্কেটে বিনিয়োগ করতে পারেন। কিন্তু সব টাকা একবারে নয়। শুরুতে হয়ত ২০-৩০ হাজার টাকা বিনিয়োগ করে দেখতে পারেন আপনি এই পর্যন্ত প্রাথমিক যেই জ্ঞান অর্জন করেছেন তা ঠিক শিখেছেন নাকি এবং তা ঠিক মত অ্যাপ্লাই করতে পারছেন কিনা। যদি পুঁজি আরও বেশি হয়ে থাকে? তাহলেও, সেই একই কাজ পুঁজির ২০-৩০% শুরুতে বিনিয়োগ করুন।

>বি.ও. একাউন্ট খোলাঃ
শেয়ার ব্যবসা শুরু করতে হলে প্রথমেই আপনাকে একটি BO account খুলতে হবে। ব্রোকার হাউস থেকে BO account খুলতে হয়। শেয়ার যেখানে বসে কেনা বেচা হয় তাকে ব্রোকার হাউস বলে। আপনি আপনার এলাকার বা আপনি যেখান থেকে ব্যবসা করতে চান সেরকম একটি ব্রোকার হাউসে গিয়ে BO account খুলতে পারবেন। আপনি single অথবা joint account খুলতে পারবেন। ব্রোকারকে বললে আপনাকে তারা একটি ফর্ম দিবে। ঐ ফর্মটি পুরণ করে তাদের কাছে দিতে হবে। এর সাথে আপনাকে যা যা দিতে হবে:

১. ৩ কপি পাসপোর্ট সাইজের ছবি।
২. আপনার ব্যাংক স্টেটমেন্ট ( যে ব্যাংকে আপনার একাউন্ট আছে ঐ ব্যাংকে গিয়ে চাইলেই আপনাকে তারা স্টেটমেন্টটি দিবে।)
৩.একজন নমিনির ছবি।
৪. আপনার ভোটার আইডির ফটোকপি।

বিভিন্ন ব্রোকার বিভিন্ন ডকুমেন্ট চাইতে পারে। তাই তাদের কাছ থেকে ঠিকভাবে সবকিছু জেনে নিন। BO account খোলার জন্য ব্রোকাররা ১০০০-২০০০ টাকা পর্যন্ত চার্য করে থাকে। বিস্তারিত প্রক্রিয়া নিম্নরুপঃ

> Beneficiary Owner (BO) account opening form:
একজন বিনিয়োগকারীকে (Electronic Share) ক্রয়/বিক্রয়ের জন্য Central Depository of Bangladesh Ltd. (CDBL) এর আওতাধীন যেকোন Depository Participant (DP) তে একটি BO Account Opening Form সঠিকভাবে পূরণ করে DP তে BO account open করতে হবে এবং উক্ত Account Number সংরক্ষন করতে হবে।

প্রধানত প্রাথমিক শেয়ার (IPO) তে আবেদন করার জন্য এই নাম্বারটি আপনার প্রয়োজন হবে। এটি ১৬ ডিজিটের একটি নাম্বার।

একজন বিনিয়োগকারী (প্রাতিষ্ঠনিক বিনিয়োগকারী ব্যতীত) একাধিক হিসাব (BO Account) খুলতে পারবেন না। তবে নিজের একক নামে ছাড়াও যৌথনামে (Joint account) আরেকটি হিসাব (মোট ২টি) খুলতে পারবেন।

একজন বিনিয়োগকারীকে BO Account Open করার সময় CDBL Laws অনুযায়ী Terms & Conditions (শর্তাবলী) ভালভাবে পড়ে স্বাক্ষর করা উচিত।

যেকোন DP-তে একজন BO Account Holder-কে শনাক্ত করার জন্য Account Open করার সময় প্রয়োজনীয় কাগজপত্র যেমন- নাগরিকত্ব সনদপত্র/পাসপোর্টের সত্যায়িত কপি, ব্যাংক একাউন্টের সার্টিফিকেটের কপি জমা দিতে হবে।

> Non-Resident Bangladeshi (NRB) BO Account:
বিদেশে অবস্থানরত কোন বিনিয়োগকারী যদি NRB BO A/C Open করতে চান তাহলে উক্ত বিনিয়োগকারীকে Client Account এবং NRB BO A/C opening Form-এর সাথে পাসপোর্টের সত্যায়িত কপি জমা দিতে হবে।

NRB account পরিচালনার জন্য একজনকে Power of Attorney প্রদান করতে হবে।

NRB account holder শেয়ার বিক্রয় করার পর চেক/পে-অর্ডার জমা করার জন্যউক্ত NRB Account Holder এর নামে যেকোন Schedule Bank-এ একটি সাধারন ব্যাংক একাউন্ট খুলতে হবে।

সদস্য ফর্মে শেয়ার বিক্রয়ের বিপরীতে উক্ত সাধারণ ব্যাংক একাউন্টে চেক জমা করতে পারবেন।

উক্ত সাধারন ব্যাংক একাউন্ট পরিচালনা করার জন্য ব্যাংক আইন অনুযায়ী NRB Account Holder একজনকে Power of attorney প্রদান করতে পারবেন।

> Non-resident Investors Taka Account (NITA):
NITA হিসবের মাধ্যমে প্রবাসী বাংলাদেশীগন ব্যাংকের মাধ্যমে নিম্নোক্ত পদ্ধতি অনুসরন করে বৈদেশিক মুদ্রায় সিকিউরিটিজ ক্রয় করা যাবে।

১) যেকোন অনুমদিত ডিলার/ব্যাংকের মাধ্যমে একটি NITA হিসাব খুলতে হবে যাতে বৈদেশিক মুদ্র সাধারন ব্যাংকিং চ্যানেলের মাধ্যমে সহজে রূপান্তরযোগ্য হয়।

২)NITA হিসাবের Balance ব্যবহার করে সহজেই বাংলাদেশী শেয়ার বা সিকিউরিটিজ ক্রয় করা যেতেপারে। এখানে বর্হিগমন রেমিটেন্স বাংলাদেশ ব্যাংকে রিপোর্ট করতে হবে।

৩)NITA হিসাবটি একাউন্ট হোল্ডার নিজে অথাবা তার নমিনী অথবা অথরাইজডডিলার দ্বরা পরিচালনা করতে পারেন।

৪) লভ্যাংশ/মুনাফা যা শেয়ার বা সিকিউরিটিজ ক্রয়ের মাধ্যমে অর্জিত হয় বা NITA হিসাবের মাধ্যমে ক্রয়কৃত শেয়ার বাসিকিউরিটিজের বিক্রয়কৃত অর্থ NITA হিসাবে জমা করা যাবে।

উল্লেখ্য যে,NITA হিসাব হতে শুধুই শেয়ার ক্রয় বা বিক্রয় করা সম্ভব এবং প্রযোজনে আপনারজমাকৃত অর্থ শেয়ারবাজারের লাভ সহ দেশের বাইরে তথা আপনি বিদেশে যেথানে অবস্থান করছেন সেখানে পাওয়া সম্ভব।

বিনিয়োগকারী উক্ত ব্রোকারেজ হাউজে তার কাস্টমার একাউন্টে শেয়ার ক্রয়ের জন্য টাকা জমা করলে ব্রোকারেজ হাউজ কতৃক প্রদত্ত ছাপানো Money Receipt অবশ্যই গ্রহন করতে হবে। Money Receipt এ ব্রোকারেজ হাউজের কোন অনুমোদিত প্রতিনিধির স্বাক্ষর অবশ্যই থাকতে হবে।

> Payment:
Voucher: বিনিয়োগকারী ব্রোকার হাউজে তার কাস্টমার একাউন্ট হতে শেয়ার বিক্রয়ের বিপরীতে টাকা উত্তোলন করতে চাইলে উক্ত কোন অনুমদিত প্রতিনিধির স্বাক্ষরসহ ব্রোকারেজ হাউজ কতৃক প্রদত্ত ছাপানো Payment Voucher অবশ্যই গ্রহন ও সংরক্ষন করতে হবে।

বিনিয়োগকারী উক্তব্রোকার হাউজে তার কাস্টমার একাউন্টে শেয়ার ক্রয়/বিক্রয়ের টাকা জমা ও উত্তলনের সমস্ত হিসাব ব্র্রোকারেজ হাউহ হতে সংগ্রহ করতে পারবেন।

একাউন্ট খোলা হয়ে গেলে ব্যবসার আরও খুঁটি-নাটি শেখার প্রয়োজন মনে করলে শিখতে থাকুন আর এই সময়ে আই.পি.ও তে অ্যাপ্লাই করতে থাকুন।

 

শেয়ারবাজারনিউজ/ম.সা

আপনার মন্তব্য

One Comment;

  1. Md.Jakaria Islam said:

    I am Jakaria, From Gazipur. Now i am willing to create a BO Account. Where is my near place to create Bo account please inform me.

*

*

Top