৭ কোম্পানির আর্থিক প্রতিবেদন প্রকাশ

Arthik Protibadon Reportশেয়ারবাজার রিপোর্টদ্বিতীয় প্রান্তিকের (জুলাই-ডিসেম্বর ১৫) অনিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত ৭ কোম্পানি। এগুলো হলো: আরএসআরএম স্টীল লিমিটেড, প্রিমিয়ার সিমেন্ট, সাভার রিফ্যাক্টরিজ, এমআই সিমেন্ট, দেশবন্ধু পলিমার, খান ব্রাদার্স এবং রহিম  টেক্সটাইল লিমিটেড। সংশ্লিষ্ট সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

আরএসআরএম স্টীল লিমিটেড : দ্বিতীয় প্রান্তিকে আরএসআরএমের শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ১.৭০  টাকা, শেয়ার প্রতি কার্যকারী নগদ প্রবাহের পরিমাণ হয়েছে (এনওসিএফপিএস) ১.৪৭ টাকা (নেগেটিভ) এবং ৩১ ডিসেম্বর ২০১৫ পর্যন্ত কোম্পানির শেয়ার প্রতি সম্পদ মূল্য (এনএভিপিএস) দাঁড়িয়েছে ৩৯.৩০ টাকা।

যা আগের বছরে একই শেয়ার প্রতি আয় ছিল ২.০৮ টাকা।

এদিকে গত তিন মাসে (অক্টোবর-ডিসেম্বর ১৫) এ কোম্পানির শেয়ার প্রতি আয়(ইপিএস) ০.৫৬ টাকা। যা আগের বছরে একই সময়ে ছিল ০.৭৮ টাকা।

প্রিমিয়ার সিমেন্ট : দ্বিতীয় প্রান্তিকে প্রিমিয়ার সিমেন্টের শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ২.০৬  টাকা, শেয়ার প্রতি কার্যকারী নগদ প্রবাহের পরিমাণ হয়েছে (এনওসিএফপিএস) ৬.৬১ টাকা এবং শেয়ার প্রতি সম্পদ (এনএভিপিএস) হয়েছে ২৯.৫২ টাকা।

যা আগের বছরে একই ইপিএস ছিল ০.৮৯ টাকা এবং এনএভিপিএস ২৬.৫২ টাকা। সে হিসেবে কোম্পানিটির ইপিএস বেড়েছে ১.১৭ টাকা বা ১৩১.৪৬ শতাংশ।

সাভার রিফ্যাক্টরিজ: দ্বিতীয় প্রান্তিকে সাভার রিফ্যাক্টরিজের শেয়ার প্রতি লোকসান হয়েছে ০.৬২  টাকা, শেয়ার প্রতি কার্যকারী নগদ প্রবাহের পরিমাণ হয়েছে (এনওসিএফপিএস) ৩.১৮ টাকা (মাইনাস) এবং শেয়ার প্রতি সম্পদ (এনএভিপিএস) হয়েছে ৭.৬৪ টাকা।

যা আগের বছরে একই শেয়ার প্রতি লোকসান ছিল ০.৩১ টাকা, এনওসিএফপিএস ছিল ১.৫১ টাকা এবং ৩০ জুন ২০১৫ সমাপ্ত অর্থবছরে এ কোম্পানির এনএভিপিএস ছিল ৮.২৬ টাকা। আলোচিত সময় পর্যন্ত এ কোম্পানি পুঁঞ্জিভূত লোকসানের দাঁড়িয়েছে ৫৩ লাখ ৮০ হাজার টাকা।

এদিকে গত তিন মাসে (অক্টোবর-ডিসেম্বর ১৫) এ কোম্পানির শেয়ার প্রতি লোকসান হয়েছে ০.৩৫ টাকা। যা আগের বছরে একই সময়ে ছিল ০.২০ টাকা।

এমআই সিমেন্ট: দ্বিতীয় প্রান্তিকে এমআই সিমেন্টের শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ২.০০  টাকা, শেয়ার প্রতি কার্যকারী নগদ প্রবাহের পরিমাণ হয়েছে (এনওসিএফপিএস) ৩.৩৮ টাকা এবং শেয়ার প্রতি সম্পদ (এনএভিপিএস) হয়েছে ৩৯.১০ টাকা।

যা আগের বছরে একই ইপিএস ছিল ১.৭৪ টাকা,এনওসিএফপিএস ছিল ০.৮৬ টাকা এবং ৩০ জুন ২০১৫ সমাপ্ত অর্থবছরে এ কোম্পানির এনএভিপিএস ছিল ৩৯.৫৯ টাকা। সে হিসেবে কোম্পানিটির ইপিএস বেড়েছে ০.২৬ টাকা বা ১৪.৯৪ শতাংশ।

এদিকে গত তিন মাসে (অক্টোবর-ডিসেম্বর ১৫) এ কোম্পানির ইপিএস হয়েছে ১.০২ টাকা। যা আগের বছরে একই সময়ে শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) ছিল ০.৬১ টাকা।

দেশবন্ধু পলিমার: দ্বিতীয় প্রান্তিকে দেশবন্ধুর শেয়ার প্রতি লোকসান হয়েছে ০.০৯  টাকা, শেয়ার প্রতি কার্যকারী নগদ প্রবাহের পরিমাণ হয়েছে (এনওসিএফপিএস) ০.৭১ টাকা এবং শেয়ার প্রতি সম্পদ (এনএভিপিএস) হয়েছে ১০.৫১ টাকা।

যা আগের বছরে একই শেয়ার প্রতি লোকসান ছিল ০.৬১ টাকা, এনওসিএফপিএস ছিল ০.৪৫ (নেগেটিভ) টাকা এবং ৩০ জুন ২০১৫ সমাপ্ত অর্থবছরে এ কোম্পানির শেয়ার প্রতি সম্পদ মূল্য ছিল ১০.৬০ টাকা।

এদিকে গত তিন মাসে (অক্টোবর-ডিসেম্বর ১৫) এ কোম্পানির শেয়ার প্রতি আয়(ইপিএস) ০.১৯ টাকা। যা আগের বছরে একই সময়ে ছিল ০.২৩ টাকা।

খান ব্রাদার্স: দ্বিতীয় প্রান্তিকে খান ব্রাদার্সের শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ০.৭০  টাকা, শেয়ার প্রতি কার্যকারী নগদ প্রবাহের পরিমাণ হয়েছে (এনওসিএফপিএস) ০.০৩৪ টাকা এবং শেয়ার প্রতি সম্পদ (এনএভিপিএস) হয়েছে ১২.৯৯ টাকা।

যা আগের বছরে একই ইপিএস ছিল ০.৫২ টাকা,এনওসিএফপিএস ছিল ০.০৫৮ টাকা এবং এনএভিপিএস ছিল ১২.২৮ টাকা। সে হিসেবে কোম্পানিটির ইপিএস বেড়েছে ০.১৮ টাকা বা ৩৪.৬২ শতাংশ।

এদিকে গত তিন মাসে (অক্টোবর-ডিসেম্বর ১৫) এ কোম্পানির শেয়ার ইপিএস হয়েছে ০.৩০ টাকা। যা আগের বছরে একই সময়ে শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) ছিল ০.২৪ টাকা।

রহিম টেক্সটাইল: দ্বিতীয় প্রান্তিকে রহিম টেক্সটাইলের শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ৪.৩৬  টাকা, শেয়ার প্রতি কার্যকারী নগদ প্রবাহের পরিমাণ হয়েছে (এনওসিএফপিএস) ৭.৬১ টাকা এবং শেয়ার প্রতি সম্পদ (এনএভিপিএস) হয়েছে ৪৩.৬৯ টাকা।

যা আগের বছরে একই ইপিএস ছিল ৩.৫৬ টাকা,এনওসিএফপিএস ছিল ১৪.৩৯ টাকা এবং ৩০ জুন ২০১৫ পর্যন্ত এ কোম্পানির এনএভিপিএস ছিল ৫৫.০৫ টাকা। সে হিসেবে কোম্পানিটির ইপিএস বেড়েছে ০.৮০ টাকা বা ২২.৪৭ শতাংশ।

এদিকে গত তিন মাসে (অক্টোবর-ডিসেম্বর ১৫) এ কোম্পানির ইপিএস হয়েছে ২.৪৪ টাকা। যা আগের বছরে একই সময়ে শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) ছিল ১.৬০ টাকা।

শেয়ারবাজারনিউজ/মু

আপনার মন্তব্য

Top