‘মশাল’ নিয়ে সিদ্ধান্ত বুধবার

2016_03_13_00_02_09_HIFkHehmp0PKMFfZm3NW5unxPxiZXe_originalশেয়ারবাজার রিপোর্ট: সদ্য বিভক্ত হওয়া জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দলের (জাসদ) প্রতীক ‘মশাল’ নিয়ে দলটির দু’পক্ষের মধ্যে টানাটানি গড়িয়েছে নির্বাচন কমিশনে (ইসি) পর্যন্ত। আগামী ৬ এপ্রিল এ ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নেবে ইসি।

বিভক্ত হওয়া দুই ভাগই নিজেদের পক্ষে প্রতিক বরাদ্দ করার দাবি জানিয়ে ইসি’তে চিঠি পাঠায়। হাসানুল হক ইনুর নেতৃত্বে একপক্ষ জাসদের নামে কেন্দ্রীয় কমিটি গঠন করে নির্বাচন কমিশনে (ইসি) তালিকা পাঠায়। শরীফ নুরুল আম্বিয়ার নেতৃত্বে দলটির অন্যপক্ষও পাল্টা কেন্দ্রীয় কমিটি গঠন করে জাসদের নামেই তালিকা পাঠায়। চলমান ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) নির্বাচনে কোন পক্ষকে প্রতীক হিসেবে ‘মশাল’ বরাদ্দ দেয়া হবে তা নিয়ে দ্বন্দ্বের মধ্যে পড়ে ইসি।

সোমবারও (০৪ এপ্রিল) তৃতীয় ধাপের ইউপি নির্বাচনে ২৭ জন চেয়ারম্যান প্রার্থীর তালিকা পাঠিয়ে তাদের ‘মশাল’ প্রতীক দেওয়ার জন্য প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কাজী রকিবউদ্দীন আহমদকে চিঠি পাঠিয়েছেন ইনু। জাসদ ২০০৮ সালে নির্বাচন কমিশনে ১৩ নম্বর দল হিসেবে নিবন্ধন পায়। সে সময় হাসানুল হক ইনু দলটির সভাপতি এবং শরীফ নুরুল আম্বিয়া ছিলেন সাধারণ সম্পাদক। বর্তমানে ইনু অংশের সাধারণ সম্পাদক শিরীন আখতার। আর শরীফ নুরুল আম্বিয়া অংশের সাধারণ সম্পাদক নাজমুল হক প্রধান ও কার্যকরী সভাপতি মঈন উদ্দীন খান বাদল।
এ অবস্থায় ‘মশাল’ কার হাতে যাবে বিষয়টি নির্ধারণে দু’পক্ষেরই শুনানি করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে নির্বাচন কমিশন।

এক্ষেত্রে আগামী বুধবার (৬ এপ্রিল) সকালে তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু ও শিরীন আখতারকে ডাকছে সংস্থাটি। আর বিকালে মঈন উদ্দীন খান বাদল ও নাজমুল হক প্রধানের শুনানি করা হবে। অন্যদিকে ন্যাশনাল পিপলস পার্টির (এনপিপি) ‘আম’ প্রতীক নিয়েও বিরোধ উত্থাপিত হয়েছে। দলটির দু’পক্ষকেও শুনানির জন্য ডাকা হতে পারে। শুনানির পরেই নির্ধারন করা হবে কে কোন প্রতিক পাচ্ছেন।

 

শেয়ারবাজারনিউজ/রু/মু

আপনার মন্তব্য

Top