রপ্তানি’কে উৎসাহিত করতে ২০ পন্যে বিবি’র ভর্তুকি

%e0%a6%ac%e0%a6%be%e0%a6%82%e0%a6%b2%e0%a6%be%e0%a6%a6%e0%a7%87%e0%a6%b6-%e0%a6%ac%e0%a7%8d%e0%a6%af%e0%a6%be%e0%a6%82%e0%a6%95শেয়ারবাজার ডেস্ক: দেশের রপ্তানি বাণিজ্যকে উৎসাহিত করতে ২০ পণ্য রপ্তানিতে নগদ সহায়তা ও ভতুর্কির সিদ্ধান্ত নিয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক। এর মধ্যে ১২ পণ্যে ভর্তুকি ও ৮ পণ্যে নগদ সহায়তা করা হবে।

মঙ্গলবার (২১ সেপ্টেম্বর) এ সংক্রান্ত একটি প্রজ্ঞাপন বৈদেশিক মুদ্রা লেনদেনে নিয়োজিত বাণিজ্যিক ব্যাংকের সব অনুমোদিত ডিলার বা এডি শাখায় পাঠিয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক। চলতি বছরের ১ জুলাই থেকে আগামী বছরের ৩০ জুন পর্যন্ত জাহাজে করে পণ্য রপ্তানির ক্ষেত্রে এ সহায়তা পরিশোধ করা হবে। এর মধ্যে ১৭টি পন্য আগে থেকেই এ তালিকায় ছিল এবং তিনটি পন্য নতুন করে যোগ হয়েছে। আগের ১৭টি পণ্যের ভর্তুকি ও নগদ সহায়তার হারে এসেছে পরিবর্তন।

বৈদেশিক মুদ্রানীতি বিভাগের উপ-মহাব্যবস্থাপক মো. জাকির হোসেন চৌধুরী স্বাক্ষরিত প্রজ্ঞাপনে বলা হয়েছে, গরু মহিষের নাড়ি, ভুঁড়ি, শিং ও রগ রপ্তানির বিপরীতে রপ্তানি ভর্তুকি দেওয়া হবে ১০ শতাংশ। শস্য ও শাক সবজির বীজ রপ্তানির বিপরীতে রপ্তানি ভর্তুকি দেওয়া হবে ২০ শতাংশ এবং পাটকাঠি থেকে উৎপাদিত কার্বন রপ্তানির বিপরীতে রপ্তানি ভর্তুকি হবে ২০ শতাংশ। তিনটি পণ্যই এবার নতুন যোগ হয়েছে।

আগের ১৭ পণ্যের ভর্তুকি ও নগদ সহায়তার হারে পরিবর্তন এসেছে। এর মধ্যে কৃষিপণ্য ও প্রক্রিয়াজাত কৃষিপণ্য রপ্তানি খাতে ২০ শতাংশ ভর্তুকি, হাল্কা প্রকৌশল পণ্য রপ্তানিতে ভর্তুকি ১৫ শতাংশ, ১০০% হালাল মাংস রপ্তানিতে ভর্তুকি ২০ শতাংশ, জাহাজ রপ্তানিতে ভর্তুকি ১০ শতাংশ, পেট বোতল-ফ্লেক্স রপ্তানিতে ভর্তুকি ১০ শতাংশ, ফার্নিচার রপ্তানিতে ভর্তুকি ১৫ শতাংশ, প্লাস্টিক দ্রব্য রপ্তািনতে ভর্তুকি ১০ শতাংশ, পাটজাত দ্রব্যাদি রপ্তানিতে নগদ ভর্তুকি ৩২ দশমিক ৫ শতাংশ ও সাভারে চামড়া শিল্প নগরীতে স্থানান্তরিত শিল্প প্রতিষ্ঠান থেকে ক্রাস্ট ও ফিনিশড লেদার রপ্তানিতে ভর্তুকি দেয়া হবে ৫ শতাংশ।

প্রজ্ঞাপনে আরও বলা হয়, রপ্তানিমুখী দেশীয় বস্ত্র খাতে শুল্ক বন্ড ও ডিউটি ড্র-ব্যাক এর পরিবর্তে বিকল্প নগত সহায়তা দেয়া হবে ৪ শতাংশ, বস্ত্র খাতের ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্পের অতিরিক্ত সুবিধা (প্রচলিত নিয়মের) ৪ শতাংশ, ইউরো অঞ্চলে বস্ত্র খাতের রপ্তািনকারকদের জন্য বিদ্যমান ৪ শতাংশের অতিরিক্ত বিশেষ সহায়তা ২ শতাংশ, নতুন পণ্য ও বাজার সম্প্রসারণে ৩ শতাংশ সহায়তা, হোগলা খড় আখের ছোবড়া দিয়ে তৈরি পণ্য রপ্তানিতে নগদ সহায়তা দেয়া হবে ১৫ শতাংশ। এছাড়া হিমায়িত চিংড়ি ও অন্যান্য মাছ রপ্তানিতে নগদ সহায়তা দেয়া হবে প্রায় ৪৮ শতাংশ। চামড়া দ্রব্যাদি রপ্তানি খাতে নগদ সহায়তা দেয়া হবে ১৫ শতাংশ এবং আলু রপ্তানি খাতে নগদ সহায়তা দেয়া হবে ১০ শতাংশ।

শেয়ারবাজারনিউজ/রু

আপনার মন্তব্য

Top