বিনিয়োগকারীদের বাঁচতে দিন: সেনসেটিভ মার্কেটে নেতিবাচক কথা নয়

Editorialশুধু বাংলাদেশেই নয়, বিশ্বের সব রাষ্ট্রেই পুঁজিবাজার একটি ‘স্পর্শকাতর জায়গা’। ফলে সামান্যতম নেতিবাচক খবরে এখানে বাজারের জন্য বয়ে আনতে পারে বড় ধরনের পতন। বাজারে উত্থান বা পতন থাকবে এটাই বাজারের স্বাভাবিক ধর্ম। তবে দায়িত্বশীল মহল থেকে কোনো নেতিবাচক মন্তব্যে বাজারে অস্থিতিশীলতা তৈরি হোক সেটা কারোই কাম্য নয়। এতে যেমন বিনিয়োগকারীরা ক্ষতিগ্রস্ত হয় তেমনি বাজারেও নানা বিভ্রান্তির সৃষ্টি হয়। বিষয়টি অনেক পুরনো হলেও পুঁজিবাজার সংশ্লিষ্টরা তা আমলে না নেয়ার কারণে বারবার সেই একই ভুলের পুণরাবৃত্তি ঘটছে।

তাই সংশ্লিষ্ট মহলের কাছে অনুরোধ, দয়া করে বিনিয়োগকারীদের বাঁচতে দিন, সেনসিটিভ মার্কেটে নেতিবাচক মন্তব্য পরিহার করুন।

অত্যন্ত দুঃখজনক হলেও সত্যি যে, ২০১০ সালের স্মরণকালের ভয়াবহ ধসের পর থেকেই এখনো পর্যন্ত পুঁজিবাজার সেই ধাক্কা কাটিয়ে উঠতে পারেনি। বাজারকে গতিশীল করার লক্ষ্যে নিয়ন্ত্রক সংস্থাসহ সংশ্লিষ্ট মহলের (খোদ প্রধানমন্ত্রীও) আন্তরিকতার অভাব না থাকলেও আজো পর্যন্ত বাজারে স্থিতিশীলতা আনয়ন সম্ভব হয়নি। যতবারই বাজার ঘুরে দাঁড়াতে চেয়েছে ঠিক তখনই বাজারে কোনো না কোনোভাবে অপ্রত্যাশিত ঘটনা ঘটেছে।

চলতি বছরে বাজার ভালো হবে সংশ্লিষ্ট মহলের পক্ষ থেকে এমন আশার বানী শোনা গেলেও তার খুব একটা প্রতিফলন বাজারে দেখা যায়নি। তবে বাজারকে গতিশীল করার লক্ষ্যে নীতিনির্ধারনী মহলসহ সংশ্লিষ্ট মহলের আন্তরিকতার কোনো অভাব নেই। বাজারে স্থিতিশীলতা আনয়নে তারা একের পর এক পদক্ষেপ নিচ্ছেন। দফায় দফায় বৈঠকও চালিয়ে যাচ্ছেন। আর সে ধারাবাহিকতায় গত বেশ কিছুদিন ধরে বাজারে ইতিবাচক প্রভাব লক্ষ্য করা যাচ্ছে। কিন্তু এরই মধ্যে আবারো সেই নীতিনির্ধারনী মহলের বেফাঁস মন্তব্যে অস্বস্তিতে ভুগছেন বিনিয়োগকারীরা।

আমাদের মাননীয় অর্থমন্ত্রী মহোদয় একসময় পুঁজিবাজার নিয়ে নানা বিতর্কিত মন্তব্য করলেও এখন উনি পুরোই মার্কেটের সার্পোটে আছেন। বাজারে স্থিতিশীলতা আনয়নে তার ইতিবাচক মনোভাব সত্যিই প্রশংসনীয়। এখন প্রয়োজন অন্যান্য মহোদয়গনের ইতিবাচক দৃষ্টিকোণ। যদি পুঁজিবাজার সংশ্লিষ্ট কোনো বিষয়ে পরিবর্তন করার প্রয়োজন হয় তাহলে সংশ্লিষ্ট মহলে প্রস্তাব পাঠানোর মাধ্যমে তা করা যেতে পারে। শুণ্যে গুলি ছেড়ে নিশানা সঠিক জায়গায় লাগানোর নামে পুরো পুঁজিবাজার মৃত্যুর দিকে ধাবিত হোক সেটা কেউ চায় না।

রাজনৈতিক অঙ্গন থেকে শুরু করে দেশের সব অভিজ্ঞ মহলই চায় দেশের অর্থনীতির প্রাণ পুঁজিবাজার স্বাভাবিক হোক। লাখো বিনিয়োগকারী তাদের হারোনো পুঁজি কিছুটা হলেও ফিরে পাক। বাজারের গতি ফিরে আসতে শুরু করেছে। এটাকে আর পেছন দিকে টানবেন না। আমরা কারো বিরোধিতা করে কিংবা কারো পক্ষপাতিত্ব করছি না। শুধু সূধীমহলের কাছে অনুরোধ জানাচ্ছি, বাজারের স্থিতিশীলতার অন্তরায় নেতিবাচক কথা পরিহার করুন। বিনিয়োগকারীদের বাঁচান। আমরা একটি গতিশীল পুঁজিবাজার দেখতে চাই। আর এতে করে বিনিয়োগকারীদের আস্থা পুনরায় ফিরে আসার পাশাপাশি প্রাণ ফিরে পাবে পুঁজিবাজার।

আপনার মন্তব্য

Top