আগ্রহের তালিকায় নয়া কোম্পানি

n category companyশেয়ারবাজার রিপোর্ট: দেশের শেয়ারবাজারে তালিকাভুক্ত কোম্পানিগুলোর মধ্যে বিনিয়োগকারীদের সবচেয়ে বেশি আগ্রহ বাড়ছে নতুন কোম্পানিরগুলোর প্রতি। গেল সপ্তাহে নতুন কোম্পানি অর্থাৎ ‘এন’ ক্যাটাগরির শেয়ার দর অধিকাংশ বেড়েছে। সপ্তাহজুড়ে দেশের প্রধান শেয়ারবাজার ঢাকা স্টক একচেঞ্জে (ডিএসই) ‘এন’ ক্যাটাগরিতে শেয়ার দর বেড়েছে প্রায় ৯ শতাংশ।

এ বিষয়ে বাজার সংশ্লিষ্টরা জানান, বছরে শেষে ভালো ডিভিডেন্ড বা রিটার্ন পাওয়ার আশায় নতুন কোম্পানির প্রতি ঝোঁক বাড়ছে বিনিয়োগকারীদের। যার ফলে বিনিয়োগকারীরা পুরোনো কোম্পানির চেয়ে নতুন কোম্পানির শেয়ারে বিনিয়োগ করছেন। যে কারণে সম্প্রতি পুঁজিবাজারে নতুন তালিকাভুক্ত কোম্পানির শেয়ারের দর বাড়ছে।

গেল সপ্তাহে ডিএসইতে নতুন কোম্পানির মধ্যে সবচেয়ে বেশি শেয়ার দর বেড়েছে ইয়াকিন পলিমার, ইভেন্স টেক্সটাইল, বাংলাদেশ ন্যাশনাল ইন্স্যুরেন্স লিমিটেড এবং ডোরিন পাওয়ার জেনারেশন অ্যান্ড সিসেন্টম লিমিটেড। এর মধ্যে ইয়াকিন পলিমার সাপ্তাহিক গেইনারের তালিকায় এবং লেনদেনের শীর্ষে উঠে এসেছে।

ইয়াকিন পলিমারের লেনদেন ২১.৩৮ শতাংশ বেড়ে লেনদেনের শীর্ষে উঠে আসে। কোম্পানির ২ কোটি ৪২ লাখ ৭৮ হাজার ৭৮টি শেয়ার হাতবদল হয়, যার বাজারদর ৯৭ কোটি ৭৭ লাখ ৭৯ হাজার টাকা। তবে সপ্তাহের শুরুতে কোম্পানির শেয়ার দর বাড়তে থাকলেও সপ্তাহের শেষ দিকে কোম্পানির শেয়ার দর অনেকটাই কমতে দেখা গেছে। সপ্তাহের শুরুতে কোম্পানির শেয়ার লেনদেন হয় ৩৩ টাকায়। সপ্তাহশেষে লেনদেন হয় ৩৮.৬০ টাকায়।

অন্যদিকে ইভেন্স টেক্সটাইলের মোট লেনদেন হয়েছে ১ কোটি ৪৫ লাখ ৬৩ হাজার ৩৫০টি শেয়ার, যার বাজারদর ছিল ২৪ কোটি ৮০ লাখ ৯৩ হাজার টাকা। সপ্তাহের শুরুতে কোম্পানির শেয়ার লেনদেন হয় ১৭.২০ টাকায়। সপ্তাহশেষে লেনদেন হয় ১৫.৪০ টাকায়।

এদিকে বাংলাদেশ ন্যাশনাল ইন্স্যুরেন্স লেনদেন করে মোট ৮৪ লাখ ৮০ হাজার ৮১৯টি শেয়ার, যার বাজারদর ছিল ১২ কোটি ৩ লাখ ৯২ হাজার টাকা। সপ্তাহের শুরুতে কোম্পানির শেয়ার লেনদেন হয় ১২.৯০ টাকায়। সপ্তাহশেষে লেনদেন হয় ১৪.৯০ টাকায়।

এছাড়া লেনদেনের শীর্ষে তালিকায় থাকা ডোরিন পাওয়ার জেনারেশন মোট ৬৯ লাখ ৯৪ হাজার ৮৪২টি শেয়ার লেনদেন করে, যার বাজার দর ছিল ৪৯ কোটি ৮৭ লাখ ৫৩ হজার টাকা।সপ্তাহের শুরুতে কোম্পানির শেয়ার লেনদেন হয় ৭৪.৫০ টাকায়। সপ্তাহশেষে লেনদেন হয় ৭০.৪০ টাকায়।

এ বিষয়ে বিনিয়োগকারীরা জানান, বছর শেষে ভাল রির্টাণ বা ডিভিডেন্ড পাওয়ার আশায় নতুন কোম্পানির শেয়ার ক্রয় করতে সাধারণ বিনিয়োগকারীদের আগ্রহ দেখা গেছে। তাছাড়া নতুন কোম্পানিগুলো বছর শেষে শেয়ারহোল্ডারদের কী পরিমাণ ডিভিডেন্ড দেবে তা জানা যায়। আর এ কারণেই নতুন কোম্পানির শেয়ার ক্রয়ের প্রতি জোঁক বাড়ছে বিনিয়োগকারীদের।

শেয়ারবাজারনিউজ/এম.আর

আপনার মন্তব্য

Top