৩৩ হাজার কোটি টাকা ঋণের তলে ১১ ব্যাংকের পরিচালক!

bd_all_bank-logoশেয়ারবাজার রিপোর্ট: প্রভাব খাটিয়ে প্রায় ৩৩ হাজার কোটি টাকা ঋণ একে অপরের সঙ্গে ভাগাভাগি করে নিয়েছেন পরিচালকরা। পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত ১১ ব্যাংকের পরিচালক নিজ নিজ ব্যাংক থেকে এ ঋণ ভাগাভাগি করে নিয়েছেন। বাংলাদেশ ব্যাংক সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

সূত্র জানায়, ব্যাংক এশিয়া প্রায় ৪ হাজার ১৭৮ কোটি টাকা, ন্যাশনাল ব্যাংক প্রায় ৪ হাজার ৮৯৩ কোটি টাকা, এক্সিম ব্যাংক প্রায় ৪ হাজার ৭৮৮ কোটি টাকা, এবি ব্যাংক প্রায় ৩ হাজার ৫৩২ কোটি টাকা, ঢাকা ব্যাংক প্রায় ৩ হাজার ৪১৯ কোটি টাকা, ব্র্যাক ব্যাংক প্রায় ৩ হাজার ১০১ কোটি টাকা, ডাচ্-বাংলা ব্যাংক প্রায় ২ হাজার ৪০৩ কোটি টাকা, প্রাইম ব্যাংক প্রায় ২ হাজার ৬৭১ কোটি টাকা, প্রিমিয়ার ব্যাংক প্রায় ১ হাজার ৬৫৬ কোটি টাকা, আইএফআইসি ব্যাংকের প্রায় ১ হাজার ৫৩৫ কোটি টাকা এবং রূপালী ব্যাংক দিয়েছে প্রায় ৪৮৫ কোটি টাকা। চলতি বছরের জুন পর্যন্ত ১১ ব্যাংকের পরিচালকরা একে অপরের সঙ্গে ভাগাভাগি করে ঋণ দেয়া নেয়া করেন।

কেন্দ্রীয় ব্যাংকের এক উর্ধ্বতন কর্মকর্তা এ প্রসঙ্গে শেয়ারবাজারনিউজ ডটকমকে বলেন, সরকারি ও বেসরকারি মিলিয়ে চলমান ৫৬টি ব্যাংকের বেশিরভাগ পরিচালক এভাবে নিজেদের মধ্যে ঋণ ভাগাভাগি করে নিয়েছেন। ব্যাংকগুলোর পরিচালকের সংখ্যা এক হাজারের কাছাকাছি হলেও এ ধরনের সমঝোতাভিত্তিক বড় অংকের ঋণ বিনিময় করেন প্রায় ৫০ জন।

এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে সাবেক তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অর্থ উপদেষ্টা ড. এবি মির্জ্জা আজিজুল ইসলাম বলেন, ব্যাংকের পরিচালকদের যোগসাজশের লেনদেন বন্ধ করতে হবে। প্রয়োজনে আইন পরিবর্তন করে এ ধরনের ‘কানেক্টিং লেনদেন’ বন্ধ করা উচিত। তা না হলে খেলাপি ঋণ আরও বাড়বে, যা ব্যাংকিং খাতের ভবিষ্যৎ অন্ধকার করে দেবে।

বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক ডেপুটি গভর্নর খোন্দকার ইব্রাহিম খালেদ বলেন, ব্যাংকের পরিচালকদের নিজের ব্যাংক থেকে ঋণ নেয়ার কোনো বিধান নেই। অথচ বর্তমানে এক ব্যাংকের পরিচালক অন্য ব্যাংকের পরিচালকের সঙ্গে সমঝোতা করে ঋণ নিচ্ছেন।

এদিকে, বাংলাদেশ ব্যাংক থেকে প্রাপ্ত তথ্য অনুযায়ী, জুন পর্যন্ত ব্যাংক খাতে মোট ঋণ বিতরণ করা হয়েছে ৬ লাখ ৩০ হাজার ১৯ কোটি টাকা। এর মধ্যে ৯৩ হাজার ৪৫০ কোটি টাকার ঋণ নিয়েছে ব্যাংক মালিকরা, যা বিতরণকৃত ঋণের ১৪.৮৩ শতাংশ। একই সময়ে এক ব্যাংকের পরিচালক অন্য ব্যাংকের পরিচালককে মোট ঋণ দিয়েছেন ৯০ হাজার ৫৯৪ কোটি ৮৫ লাখ টাকা।

আইন অনুযায়ী, ব্যাংকের কোনো পরিচালক নিজের প্রতিষ্ঠান থেকে ঋণ নিতে পারবেন না। একই সঙ্গে গ্যারান্টার হওয়ারও সুযোগ নেই। তবে বাংলাদেশ ব্যাংকের অনুমতি সাপেক্ষে মূল শেয়ারের ৫০ শতাংশ ঋণ নিতে পারবেন, যা উভয় ক্ষেত্রে প্রযোজ্য।

শেয়ারবাজারনিউজ/আ

আপনার মন্তব্য

Top