স্থিতিশীলতার স্বার্থে নিয়ন্ত্রক সংস্থাদের যা বললো বিএসইসি

bsec-bb-idraশেয়ারবাজার রিপোর্ট: দেশের বিভিন্ন খাতের নিয়ন্ত্রক সংস্থাগুলোর কিছু সিদ্ধান্ত পুঁজিবাজারকে অস্থিতিশীল করে। তাই স্থিতিশীল পুঁজিবাজারের স্বার্থে নিয়ন্ত্রক সংস্থাগুলোকে সমন্বয় করে সিদ্ধান্ত নেয়ার আহবান জানিয়েছে পুঁজিবাজার নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ এন্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি)।

আজ বাংলাদেশ ব্যাংকের প্রধান কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত দেশের বিভিন্ন খাতের নিয়ন্ত্রক সংস্থাদের সমন্বয় সভায় এমন আহবান জানিয়েছে বিএসইসি। এসময় কেন্দ্রীয় ব্যাংকের গভর্নর বিএসইসি’র সাথে একমত পোষণ করেন।

সভায় কেন্দ্রীয় ব্যাংকের গভর্নর ফজলে কবীর, ডেপুটি গভর্নর এসকে সুর চৌধুরী; বিএসইসি’র কমিশনার হেলাল উদ্দীন নিজামী, নির্বাহী পরিচালক মো: সাইফুর রহমান; বীমা উন্নয়ন ও নিয়ন্ত্রণ কর্তৃপক্ষের (আইডিআরএ) সদস্য মো: জুবের আহমেদ খাঁন-সহ রেজিস্ট্রার অব জয়েন্ট স্টক, মাইক্রো-ক্রেডিট রেগুলেটরি অথোরিটি’র প্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন। তবে বাংলাদেশ এনার্জি রেগুলেটরি কমিশন-কে (বিইআরসি)  সভায় অংশ নেয়ার জন্য আমন্ত্রণ জানানো হলেও তাদের কোন প্রতিনিধি উপস্থিত ছিলেন না। এর জন্য কেন্দ্রীয় ব্যাংকের গভর্নর ও বিএসইসি’র কমিশনার অসন্তোষও প্রকাশ করেছেন।

সভায় বিএসইসি’র কমিশনার হেলাল উদ্দীন নিজামী বীমা নিয়ন্ত্রক সংস্থা আইডিআরএ’র প্রতি অভিযোগ করে বলেন, পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত স্ট্যান্ডার্ড ইন্স্যুরেন্সের লাইসেন্স কমিশনকে না জানিয়ে বাতিল করা হয়েছে। অথচ কোম্পানিটির ৩৭.৪৮ শতাংশ শেয়ার সাধারণ বিনিয়োগকারীর কাছে রয়েছে। হঠাৎ লাইসেন্স বাতিলের সিদ্ধান্তে পুঁজিবাজারে কোম্পানিটিকে ঘিরে অস্থিতিশীল পরিস্থিতি তৈরি হয়েছে। আর এমন সঙ্কট এড়াতে তালিকাভুক্ত কোন বীমা কোম্পানির বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার ক্ষেত্রে কমিশনকে জানানো বা আলোচনা করার আহবান জানান তিনি।

এ প্রসঙ্গে আইডিআরএ’র সদস্য ও মুখপাত্র মো: জুবের আহমেদ খাঁন বলেন, বীমা আইন অনুযায়ী নিয়ন্ত্রক সংস্থা কোম্পানিগুলোর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিচ্ছে। তবে তালিকাভুক্ত বীমা কোম্পানির বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার ক্ষেত্রে বিএসইসি’র সাথে সমন্বয়ের প্রয়োজন। তাই বিএসইসি-কে জানিয়ে তালিকাভুক্ত বীমা কোম্পানির বিরুদ্ধে কোন শাস্তিমূলক ব্যবস্থা কিংবা বিভিন্ন নির্দেশনা দেয়া হবে বলে জানান তিনি।

এদিকে ব্যাংকের বহি:নিরীক্ষা বিষয়ে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের এক খসড়া নীতিমালার কিছু ধারা নিয়ে আপত্তি জানায় বিএসইসি। এ প্রসঙ্গে বিএসইসি বলছে, খসড়া নীতিমালায় বলা হয়েছে ব্যাংকের বহি:নিরীক্ষা প্রতিবেদন নিয়ে ত্রিপক্ষীয় সভা করা হবে। আর এতে সংশ্লিষ্ট ব্যাংকের মূল্য সংবেদনশীল তথ্য ফাঁস হয়ে যাবে। এতে পুঁজিবাজারে ইনসাইডার ট্রেডিং-য়ের সম্ভাবনা বাড়বে। তাছাড়া কেন্দ্রীয় ব্যাংকের কর্মকর্তাদের শেয়ার ব্যবসার বিষয়ে কোন নিষেধাজ্ঞা নেই।

তবে এখানে মূল্য সংবেদনশীল তথ্য ফাঁস হবে না বলে আশ্বস্ত করেন ডেপুটি গভর্নর এসকে সুর চৌধুরী। তিনি বলেন, অফিসের গোপনীয়তার ক্ষেত্রে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের আইন রয়েছে। তাছাড়া নিরীক্ষককে যথাযথ জবাবদীহীতার আওতায় আনার জন্য ত্রিপক্ষীয় সভার কথা আইনে বলা হয়েছে।

এ প্রসঙ্গে কোন মতামত থাকলে লিখিতভাবে কেন্দ্রীয় ব্যাংককে জানানোর আহবান করেন গভর্নর ফজলে কবীর।

তবে বিইআরস’র কোন প্রতিনিধি উপস্থিত না থাকায় তিতাস ইস্যুতে কোন আলোচনা হয়নি। তবে কমিশন উপস্থিত অন্য নিয়ন্ত্রক সংস্থাদের তিতাস সঙ্কটের কথা বিস্তারিতভাবে জানিয়েছে।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে বিএসইসি’র নির্বাহী পরিচালক ও মুখপাত্র মো: সাইফুর রহমান শেয়ারবাজার নিউজকে বলেন, সিদ্ধান্ত নেয়ার ক্ষেত্রে নিয়ন্ত্রক সংস্থাদের সমন্বয়হীনতা পুঁজিবাজারকে অস্থিতিশীল করে। কারণ আমাদের পুঁজিবাজার খুবই সংবেদনশীল। তাই সমন্বয় কিংবা আলোচনা করে নিয়ন্ত্রক সংস্থাদের সিদ্ধান্ত নেয়ার আহবান জানানো হয়েছে।

প্রসঙ্গত,পুঁজিবাজারের সংবেদনশীলতা বিবেচনায় অর্থ মন্ত্রণালয়ের ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগ থেকে গত ২০১২ সালের ১৯ ফেব্রুয়ারি জারি করা এক প্রজ্ঞাপনে, “পুঁজিবাজারকে প্রভাবিত করে, এমন বিষয়ে সিদ্ধান্ত বা বক্তব্য প্রদানের ক্ষেত্রে বিএসইসির সঙ্গে আলোচনা/সমন্বয়/পরামর্শ করতে নির্দেশক্রমে অনুরোধ জানানো হয়। তবে অর্থ মন্ত্রণালয়ের এ নির্দেশনা সত্ত্বেও স্ট্যান্ডার্ড ইন্স্যুরেন্সের লাইসেন্স স্থগিত এবং তিতাস গ্যাসের ট্রান্সমিশন চার্জ কমানোর বিষয়ে আইডিআরএ এবং বিইআরসি পুঁজিবাজার নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিএসইসির সাথে আলোচনা না করেই সিদ্ধান্ত নেয়। এর ফলে সংশ্লিষ্ট কোম্পানি দুটির বিনিয়োগকারীরা আইডিআরএ ও বিইআরসির সিদ্ধান্তের প্রভাবে শেয়ার দর কমে যাওয়ার কারণে ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে। সভায় বিএসইসির পক্ষ থেকে বিষয়টি তুলে ধরে এ সংক্রান্ত বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেয়ার ক্ষেত্রে বিএসইসির সাথে আলোচনা করার তাগিদ দেয়া হয়েছে।

শেয়ারবাজারনিউজ/আ

আপনার মন্তব্য

*

*

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

Top