সূচক কমলেও বেড়েছে লেনদেন

price-up-downশেয়ারবাজার রিপোর্ট: ডিভিডেন্ডের মৌসুমেও পুঁজিবাজারে চলছে মন্দা। এ মন্দা পরিস্থিতে কমছে বেশীরভাগ কোম্পানির শেয়ার দর। টানা দরপতনে কিছুতেই কাটছে না দৈন্যতা। অবস্থাটা এমন হয়েছে যে, এক-পা এগোয় তো তিন পা পিছিয়ে যায় বাজার। অর্থাৎ সূচক একদিন বাড়ে তো তিন দিন কমে। যতটুকু সূচক বাড়ছে তার চেয়ে বেশি কমে যায়। এমন পরিস্থিতিতে সপ্তাহের দ্বিতীয় কার্যদিবসে দেশের উভয় শেয়ারবাজারে সূচকের পতনে শেষ হয় লেনদেন। সোমবার লেনদেন শুরু থেকেই সূচকে নিম্মমুখী প্রবণতা লক্ষ্য করা গেছে। এদিন সূচকে পাশাপাশি কমেছে বেশীরভাগ কোম্পানির শেয়ার দর। তবে টাকার অংকে উভয় বাজারে বেড়েছে লেনদেন।

দিনশেষে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) ব্রড ইনডেক্স আগের দিনের চেয়ে ২৬ পয়েন্ট কমে অবস্থান করছে ৪৫০৬ পয়েন্টে। দিনভর লেনদেন হওয়া ৩০৮টি কোম্পানি ও মিউচুয়াল ফান্ডের মধ্যে দর বেড়েছে ৯০টির, কমেছে ১৮১টির আর অপরিবর্তিত রয়েছে ৩৭টি কোম্পানির শেয়ার দর। যা টাকার অংকে লেনদেন হয়েছে ৩১৪ কোটি ৩৮ লাখ ১৬ হাজার টাকা।

এর আগে রোববার ডিএসইর ব্রড ইনডেক্স অবস্থান করে ৪৫৩৩ পয়েন্টে। ওই দিন লেনদেন হয় ২৬৮ কোটি ১৯ লাখ ৪৯ হাজার টাকা। সে হিসেবে সোমবার ডিএসইতে লেনদেন বেড়েছে ৪৬ কোটি ১৮ লাখ ৬৭ হাজার টাকা বা ১৪.৬৯ শতাংশ।

এদিকে দিনশেষে চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জের (সিএসই) সাধারণ মূল্যসূচক ৩০ পয়েন্ট কমে অবস্থান করছে ৮৩৪৫ পয়েন্টে। দিনভর লেনদেন হওয়া ২২৭টি কোম্পানি ও মিউচ্যুয়াল ফান্ডের মধ্যে দর বেড়েছে ৭২টির, কমেছে ১২৬টির ও দর অপরিবর্তিত রয়েছে ২৯টির। যা টাকার অংকে লেনদেন হয়েছে ২১ কোটি ৬৯ লাখ ৩৪ হাজার টাকা।

এর আগে বৃহস্পতিবার সিএসইর সাধারণ মূল্য সূচক অবস্থান করে ৮৩৭৬ পয়েন্টে। ওইদিন লেনদেন হয় ২২ কোটি ৯০ লাখ ১২ হাজার টাকা।

শেয়ারবাজার/অ

 

 

আপনার মন্তব্য

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

Top