স্টক ব্রোকারদের হাজার কোটি টাকার মার্জিন ঋণ বিতরণ

DSE_ডিএসইশেয়ারবাজার রিপোর্ট: ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) ৬৬টি স্টক ব্রোকার মোট ৮৮৪ কোটি ১৫ লাখ টাকা মার্জিন ঋণ বিনিয়োগকারীদের মধ্যে বিতরণ করেছে। চলতি বছরের সেপ্টেম্বর পর্যন্ত এ ঋণ বিতরণ হয়েছে।

এর আগের মাসে অর্থাৎ আগস্ট মাসে মোট ৮৮২ কোটি ৭৭  লাখ টাকা মার্জিন ঋণ বিতরণ হয়েছিল। দেখা যাচ্ছে, মাসের ব্যবধানে মার্জিন ঋণের পরিমাণ বেড়েছে ১ কোটি ৩৮ লাখ টাকা।

উল্লেখ্য, ব্যাংক, বীমা, আর্থিক প্রতিষ্ঠানের সহযোগী ব্যাতীত ৬৬টি স্টক ব্রোকার মার্জিন ঋণ বিতরণ করছে। ডিএসই সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

জানা যায়, সেপ্টেম্বর মাসে ৬৬টির মধ্যে ২৮ টি ব্রোকারেজ হাউজের মার্জিণ ঋণ বিতরণের পরিমান কমেছে। আলোচিত মাসে মার্জিন ঋণের পরিমাণ কমেছে ৯ কোটি ৯০ লাখ টাকা।

যেসব ব্রোকারেজ হাউজের বিনিয়োগকারীদের মার্জিন ঋণের পরিমাণ কমেছে সেগুলোর মধ্যে এম সিকিউরিটিজের মার্জিন ঋণ বিতরণের পরিমাণ ৩ কোটি ২ লাখ টাকা কমেছে। প্রতিষ্ঠানটির বিনিয়োগকারীদের সেপ্টেম্বরের প্রথম দিন ঋণের পরিমাণ ছিল ১০ কোটি ১২ লাখ টাকা। মাসের শেষে ঋণের পরিমাণ কমে দাঁড়িয়েছে ৭ কোটি ১০ লাখ টাকা।

তাছাড়া আলোচিত মাসে অ্যালায়েন্স সিকিউরিটিজ অ্যান্ড ম্যানেজমেন্ট লিমিটেডের মার্জিন ঋণের পরিমাণ কমেছে ২ কোটি ৮৯ লাখ টাকা। প্রতিষ্ঠানটির মাসের শুরুতে মার্জিন ঋণ বিতরণের পরিমাণ ছিল ৩৫ কোটি ৫৭ লাখ টাকা। যা মাস শেষে কমে দাঁড়িয়েছে ৩২ কোটি ৬৮ লাখ টাকা। এছাড়া যেসব ব্রোকারেজ হাউজের মার্জিণ ঋণের পরিমাণ কমেছে সেগুলো হলো: পিএইচপি স্টক অ্যান্ড সিকিউরিটিজ লিমিটেড, আকিজ সিকিউরিটিজ, এএল সিকিউরিটিজ, মন্ডল সিকিউরিটিজ, ওষাদি সিকিউরিটিজ, কস্ট টু কস্ট সিকিউরিটিজ, এমিনেন্ট সিকিউরিটিজ, ডেল্টা ক্যাপিটাল, পিপলস ইক্যুইটি, একে খান সিকিউরিটিজ, শ্যামল ইক্যুইটি অ্যান্ড ম্যানেজমেন্ট, রোজা ইক্যুইটি, গ্রীনল্যান্ড ইক্যুইটিস, রয়েল সিকিউরিটিজ, এসএআর সিকিউরিটিজ, ইমতিয়াজ হাসাইন সিকিউরিটিজ, টান্সকন সিকিউরিটিজ, হ্যাক সিকিউরিটিজ, স্কয়ার সিকিউরিটিজ, তামহা সিকিউরিটিজ, আলহাজ সিকিউরিটিজ, সালতা সিকিউরিটিজ, আইল্যান্ড সিকিউরিটিজ, ইউনিক শেয়ার ম্যানেজমেন্ট, সেলটেক ব্রোকারেজ, সাহেদ সিকিউিরিটিজ লিমিটেড।

এদিকে যেসব ব্রোকারেজ হাউজের মার্জিন ঋণ বিতরণ বেড়েছে তাদের মধ্যে রয়েছে এসসিএল সিকিউরিটিজ লিমিটেড। প্রতিষ্ঠানটির মার্জিণ ঋণ বিতরণের পরিমাণ সেপ্টেম্বরের শেষে বেড়েছে ৮ কোটি ৩০ লাখ টাকা। ওই মাসের শুরুতে মার্জিন ঋণের পরিমাণ ছিল ৪০ কোটি ৯২ লাখ টাকা। আলোচিত মাসের শেষে ঋণের পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ৪৯ কোটি ২২ লাখ টাকা। তাছাড়া স্টক অ্যান্ড বন্ড লিমিটেডের মার্জিন ঋণ ৬৮ লাখ টাকা বেড়ে মাস শেষে দাঁড়িয়েছে ২০ কোটি ৮০ লাখ টাকা।

এ সম্পর্কে লঙ্কাবাংলা সিকিউরিটিজ লিমিটেডের পরিচালক ও সিইও মোহাম্মদ খাইরুল আনাম চৌধুরী শেয়ারবাজার নিউজ-কে বলেন, বাজার আগের চেয়ে ভালোর দিকে যাচ্ছে। তাই মার্জিন ঋণ বিতরণের পরিমাণ বাড়বে।

সংশ্লিষ্টরা বলেন, মার্চেন্ট ব্যাংক ও ব্রোকারেজ হাউজের কয়েক হাজার কোটি টাকার মার্জিণ ঋণ রয়েছে। বাজারে দীর্ঘ মেয়াদী স্থিতিশীলতা না ফিরলে এ ঋণ আদায়ের সম্ভবনা কম। তবে ব্রোকারেজ হাউজগুলো স্বল্প সুদে ঋণ পেলে তা থেকে উত্তোরণ হওয়া যেতো।

শেয়ারবাজারনিউজ/আ

আপনার মন্তব্য

Top