সবচেয়ে বেশি সেল প্রেসারে যে ১০ কোম্পানি

sellশেয়ারবাজার রিপোর্ট: দেশের শেয়ারবাজারে গত অক্টোবর মাসে বেশিরভাগ দিনই সেল প্রেসারের চাপে ছিল লেনদেন। আর এর ফলে বেশিরভাগ কোম্পানির শেয়ার দর কমেছে। এর মধ্যে সবচেয়ে বেশি সেল প্রেসারে যে ১০ কোম্পানি ছিল সেগুলো হলো: অলটেক্স ইন্ডাষ্ট্রিজ, লিগ্যাসি ফুটওয়্যার, ফরচুন সুজ, সিনো বাংলা ইন্ডাষ্ট্রিজ, দেশবন্ধু পলিমার, বিডি ফাইন্যান্স, গোল্ডেন সন, ইয়াকিন পলিমার, রেনউইক যজ্ঞেশ্বর এবং ন্যাশনাল টিউবস লিমিটেড।

ডিএসই সূত্রে জানা যায়, বস্ত্র খাতের অলটেক্স ইন্ডাস্ট্রিজের গত এক মাসে শেয়ার দর কমেছে ৪৮ শতাংশ। এরপরেই রয়েছে লিগ্যাসি ফুটওয়্যার লিমিটেড। গত মাসে কোম্পানির শেয়ার দর কমেছে ৪১.৮০ শতাংশ।  আর তৃতীয় অবস্থানে থাকে ফরচুন সুজের শেয়ার দর ৩২.১১ শতাংশ কমেছে।

এছাড়া সিনো বাংলা ইন্ডাস্ট্রিজের ৩০.৫৯ শতাংশ,  দেশ বন্ধু পলিমারের ৩০.১৭ শতাংশ, বিডি ফাইন্যান্সের ২৯.৫৮ শতাংশ, গোল্ডেন সনের ২৫.১১ শতাংশ, ইয়াকিন পলিমারের ২৪.২৯ শতাংশ, রেনউইক যজ্ঞেশ্বরের ২২.৫৫ শতাংশ এবং ন্যাশনাল টিউবসের ২২.০৬ শতাংশ শেয়ার দর কমেছে।

যদিও সেপ্টেম্বর মাসে অনেক কোম্পানির শেয়ার দর বেশি ছিল। কিন্তু অক্টোবর মাসের শুরু থেকে তা কমতে থাকে।  এর কারণ হিসেবে গত মাসে কোম্পানিগুলোর আর্থিক প্রতিবেদন প্রকাশ করাকে দায়ী করছে বাজার সংশ্লিষ্টরা।

তারা বলেন, সেপ্টেম্বরের তুলনায় অক্টোবরে কোম্পানিগুলোর শেয়ার দর কমছে মূলত কোম্পানির আয়ের উপর নির্ভর করে।কারণ কোম্পানিগুলো আয়ের প্রতিবেদন প্রকাশ করার পর থেকে বাজারে অনেকটাই সেল প্রেসার দেখা দিয়েছে। যে সকল কোম্পানির আয় কমেছে বা লোকসান হয়েছে সেগুলোর প্রতি মুখ ফিরিয়ে নিয়েছেন বিনিয়োগকারীরা। তারা শেয়ার বিক্রি করে ভাল ও মৌলভিত্তি কোম্পানির শেয়ারের প্রতি ঝুঁকেছে।

অলটেক্স ইন্ডাস্ট্রিজ

পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত বস্ত্র খাতের কোম্পানি অলটেক্স ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেড ৩০ জুন ২০১৬ সমাপ্ত অর্থবছরে বিনিয়োগকারীদের জন্য নো ডিভিডেন্ড ঘোষণা করেছে। সমাপ্ত অর্থবছরে কোম্পানির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ০.৩৮ টাকা, শেয়ার প্রতি সম্পদ (এনএভি) হয়েছে ২৭.৬৪ টাকা এবং শেয়ার প্রতি কার্যকরী নগদ প্রবাহের পরিমাণ (এনওসিএফপিএস) ০.৭৭ টাকা।

২০১৫ সমাপ্ত অর্থবছরে কোম্পানিটি বিনিয়োগকারীদের জন্য ৪ শতাংশ ক্যাশ ও ৬ শতাংশ স্টকসহ মোট ১০ শতাংশ ডিভিডেন্ড ঘোষণা করেছিলো। আলোচিত সময়ে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছিলো ১.২২ টাকা, শেয়ার প্রতি সম্পদ (এনএভি) হয়েছিলো ২৯.১৫ টাকা এবং শেয়ার প্রতি কার্যকরী নগদ প্রবাহের পরিমাণ (এনওসিএফপিএস) হয়েছিলো ০.৪২ টাকা। গত এক মাসে এ কোম্পানির শেয়ার দর কমেছে ৪৮ শতাংশ।

লিগ্যাসি ফুটওয়্যার

চামড়া খাতের কোম্পানি লিগ্যাসি ফুটওয়্যার লিমিটেড ৩০ জুন ২০১৬ সমাপ্ত অর্থবছরে বিনিয়োগকারীদের জন্য নো ডিভিডেন্ড ঘোষণা করেছে। সমাপ্ত অর্থবছরে কোম্পানির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ০.৩৯ টাকা, শেয়ার প্রতি সম্পদ (এনএভি) হয়েছে ১৯.১৪ টাকা এবং শেয়ার প্রতি কার্যকরী নগদ প্রবাহের পরিমাণ (এনওসিএফপিএস) ০.০৭ টাকা।

২০১৫ সমাপ্ত অর্থবছরে কোম্পানিটি বিনিয়োগকারীদের জন্য ৫ শতাংশ স্টক ডিভিডেন্ড ঘোষণা করেছিলো। আলোচিত সময়ে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছিলো ০.৫৭ টাকা, শেয়ার প্রতি সম্পদ (এনএভি) হয়েছিলো ১৮.৫০ টাকা এবং শেয়ার প্রতি কার্যকরী নগদ প্রবাহের পরিমাণ (এনওসিএফপিএস) হয়েছিলো ০.১৩ টাকা। গত মাসে এ কোম্পানির শেয়ার দর কমেছে ৪১.৮০ শতাংশ।

ফরচুন সুজ লিমিটেড 

গত মাসে পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত হয়েছে চামড়া খাতের কোম্পানি ফরচুন সুজ লিমিটেড। লেনদেনের প্রথম দিন চমক দেখালেও এরপরের কার্যদিবস থেকেই কমতে থাকে এ কোম্পানির শেয়ার দর।

গত ২০ অক্টোবর লেনদেনের প্রথম দিনে এ কোম্পানির শেয়ার দর বেড়েছিলো ৪৯৭ শতাংশ। কিন্তু গত বৃহস্পতিবারের লেনদেন শেষে কোম্পানির শেয়ার দর কমে দাড়িয়েছে ২.১৬ শতাংশ।

সিনোবাংলা ইন্ডাস্ট্রিজ

বিবিধ খাতের এ কোম্পানি ব্যবসা বাড়ানোর দোহাই দিয়ে বিনিয়োগকারীদের জন্য ১ নভেম্বর ২০১৫ থেকে ৩০ জুন ২০১৬ সমাপ্ত অর্থবছরে ৮ মাসের জন্য ডিভিডেন্ড দেয়নি। কোম্পানিটি এর আগে ৩১ অক্টোবর ২০১৫ সমাপ্ত অর্থবছরের জন্য ১০ শতাংশ ক্যাশ ডিভিডেন্ড ঘোষণা করেছিলো তাই বহাল রেখেছে।

সমাপ্ত অর্থবছরে কোম্পানির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ০.৭১ টাকা, শেয়ার প্রতি সম্পদ (এনএভিপিএস) হয়েছে ২৪.৬৪ টাকা এবং শেয়ার প্রতি কার্যকরী নগদ প্রবাহের পরিমাণ (এনওসিএফপিএস) হয়েছে ১.৪৩ টাকা ।

উল্লেখ্য, সিনোবাংলা ইন্ডাস্ট্রিজের হিসাব বছর ছিল ৩১ অক্টোবর। কিন্তু ফাইন্যান্স অ্যাক্ট, ২০১৫ অনুযায়ী ফাইন্যান্সিয়াল ইয়ারের সমাপ্ত সময় কোম্পানিটি সেপ্টেম্বর-অক্টোবরের পরিবর্তে  জুলাই-জুন হিসাব বছর অনুসরণ করে। গত মাসে এ কোম্পানির শেয়ার দর কমেছে ৩০.৫৯ শতাংশ।

দেশবন্ধু পলিমার

বিনিয়োগকারীদের জন্য ৩০ জুন, ২০১৬ সমাপ্ত অর্থবছরের জন্য নো ডিভিডেন্ড ঘোষণা করেছে  প্রকৌশল খাতের কোম্পানি দেশবন্ধু পলিমার লিমিটেড। সমাপ্ত হিসাব বছরে কোম্পানির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ০.১৯ টাকা, শেয়ার প্রতি সম্পদ মূল্য (এনএভি) ১০.৮৪ এবং শেয়ার প্রতি কার্যকরী নগদ প্রবাহের পরিমাণ (এনওসিএফপিএস) হয়েছে ২.০২ টাকা।

২০১৫ সমাপ্ত অর্থবছরে কোম্পানিটি বিনিয়োগকারীদের জন্য ৫ শতাংশ ক্যাশ ডিভিডেন্ড ঘোষণা করেছিলো। আলোচিত সময়ে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছিলো ০.৪১ টাকা, শেয়ার প্রতি সম্পদ (এনএভি) হয়েছিলো ১০.৬০ টাকা এবং শেয়ার প্রতি কার্যকরী নগদ প্রবাহের পরিমাণ (এনওসিএফপিএস) হয়েছিলো ২.০৭ টাকা (নেগেটিভ)।  গত মাসে এ কোম্পানির শেয়ার দর কমেছে ৩০.১৭ শতাংশ।

বিডি ফাইন্যান্স

তৃতীয় প্রান্তিকের অনিরীক্ষিত (জানুয়ারী-সেপ্টেম্বর’১৬) প্রকাশিত আর্থিক প্রতিবেদন অনুযায়ী মুনাফা কাটিয়ে লোকসানে রয়েছে আর্থিক খাতের এ কোম্পানি।

তৃতীয় প্রান্তিকে বিডি ফাইন্যান্সের শেয়ার প্রতি লোকসান হয়েছে ০.৩৯ টাকা, শেয়ার প্রতি কার্যকারী নগদ প্রবাহের পরিমাণ হয়েছে (এনওসিএফপিএস) ২.৪৮ টাকা (নেগেটিভ) এবং শেয়ার প্রতি সম্পদ (এনএভিপিএস) হয়েছে ১৩.৮০ টাকা। যা আগের বছরে একই সময়ে শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) ছিল ০.০৪ টাকা, এনওসিএফপিএস ছিল ১.০৯ টাকা এবং ৩১ ডিসেম্বর, ২০১৫ পর্যন্ত এনএভিপিএস ছিলো ১৫.৬০ টাকা। গত মাসে এ কোম্পানির শেয়ার দর কমেছে ২৯.৫৮ শতাংশ।

গোল্ডেন সন লিমিটেড

প্রকৌশল খাতের এ কোম্পানিটি বিনিয়োগকারীদের জন্য ১ জানুয়ারি, ২০১৫ থেকে ৩০ জুন, ২০১৬ সমাপ্ত অর্থবছরের ১৮ মাসে ৫ শতাংশ ক্যাশ ডিভিডেন্ড ঘোষণা করেছে। আর ১৮ মাসের এমন ডিভিডেন্ডে অনেকটাই হতাশ করেছে বিনিয়োগকারীদের। সমাপ্ত হিসাব বছরে কোম্পানির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ০.৮৯ টাকা, শেয়ার প্রতি সম্পদ (এনএভিপিএস) হয়েছে ২৪.২৬ টাকা এবং শেয়ার প্রতি কার্যকরী নগদ প্রবাহের পরিমাণ হয়েছে ০.৭০ টাকা।

২০১৪ সমাপ্ত অর্থবছরে এ কোম্পানিটি সাড়ে ১২ শতাংশ ক্যাশ ডিভিডেন্ড ঘোষণা করেছিলো। আলোচিত সময়ে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছিলো ২.০১ টাকা, শেয়ার প্রতি সম্পদ (এনএভিপিএস) হয়েছিলো ২৭.০৯ টাকা এবং শেয়ার প্রতি কার্যকরী নগদ প্রবাহের পরিমাণ হয়েছিলো ২.১৫ টাকা। গত মাসে এ কোম্পানির শেয়ার দর কমেছে ২৫.১১ শতাংশ।

ইয়াকিন পলিমার

২০১৬ সালে তালিকাভূক্ত হওয়া প্রকৌশল খাতের এ কোম্পানিটি ৩০ জুন, ২০১৬ সমাপ্ত হিসাব বছরের জন্য বিনিয়োগকারীদের ১০ শতাংশ স্টক ডিভিডেন্ড দেয়ার সুপারিশ করেছে। সমাপ্ত বছরে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ১.০১ টাকা, শেয়ার প্রতি প্রকৃত সম্পদ মূল্য (এনএভি) হয়েছে ১৫.৬২ টাকা এবং শেয়ার প্রতি নগদ কার্যকর প্রবাহ (এনওসিএফপিএস) হয়েছে ১.২২ টাকা। গত মাসে এ কোম্পানির শেয়ার দর কমেছে ২৪.২৯ শতাংশ।

রেনউইক যজ্ঞেশ্বর

প্রকৌশল খাতের এ কোম্পানি ৩০ জুন ২০১৬ সমাপ্ত অর্থবছরে বিনিয়োগকারীদের জন্য ১২ শতাংশ ক্যাশ ডিভিডেন্ড ঘোষণা করেছে। সমাপ্ত অর্থবছরে কোম্পানির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ৩.০৮ টাকা, শেয়ার প্রতি সম্পদ মূল্য (এনএভিপিএস) ৩৫.৬৮ টাকা (নেগেটিভ) এবং শেয়ার প্রতি নেট অপারেটিং ক্যাশ ফ্লো (এনওসিএফপিএস) হয়েছে ১১.৭৯ টাকা।

এর পাশাপাশি কোম্পানিটি প্রথম প্রান্তিকের (জুলাই-সেপ্টেম্বর’১৬) অনিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে। আলোচিত সময়ে কোম্পানির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ০.৩২ টাকা, শেয়ার প্রতি সম্পদ মূল্য (এনএভিপিএস) ৩৫.৮৮ টাকা (নেগেটিভ) এবং শেয়ার প্রতি নেট অপারেটিং ক্যাশ ফ্লো (এনওসিএফপিএস) হয়েছে ১২.২১ টাকা (নেগেটিভ)।

২০১৫ সমাপ্ত অর্থবছরে কোম্পানিটি ১২ শতাংশ ক্যাশ ডিভিডেন্ড ঘোষণা করেছিলো। আলোচিত সময়ে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছিলো ৩.০৮ টাকা, শেয়ার প্রতি সম্পদ (এনএভিপিএস) হয়েছিলো ৩০.৬১ টাকা (নেগেটিভ) এবং শেয়ার প্রতি কার্যকরী নগদ প্রবাহের পরিমাণ হয়েছিলো ৩ টাকা। গত মাসে এ কোম্পানির শেয়ার দর কমেছে ২২.৫৫ শতাংশ।

ন্যাশনাল টিউবস

বিনিয়োগকারীদের জন্য ৩০ জুন ২০১৬ সমাপ্ত অর্থবছরে ১০ শতাংশ স্টক ডিভিডেন্ড ঘোষণা করেছে প্রকৌশল খাতের এ কোম্পানিটি। সমাপ্ত অর্থবছরে কোম্পানির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ০.০৩ টাকা, শেয়ার প্রতি সম্পদ মূল্য (এনএভিপিএস) ২৩৯.৬৩ টাকা এবং শেয়ার প্রতি নেট অপারেটিং ক্যাশ ফ্লো (এনওসিএফপিএস) হয়েছে ২.২৬ টাকা। যা আগের বছর একই সময়ে যথাক্রমে ইপিএস ছিল ২.২৬ টাকা, এনএভিপিএস ছিল ২৮৭.৫৪ টাকা এবং এনওসিএফপিএস ছিল ৯.১১ টাকা (নেগেটিভ)।

এর পাশাপাশি কোম্পানিটি  ৩০ সেপ্টেম্বর সমাপ্ত প্রথম প্রান্তিকের অনিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে। আলোচিত সময়ে কোম্পানির শেয়ার প্রতি লোকসান হয়েছে ১.৪৩ টাকা, শেয়ার প্রতি কার্যকরী নগদ প্রবাহ (এনওসিএফপিএস) হয়েছে ৪.৪৩ টাকা এবং শেয়ার প্রতি সম্পদ (এনএভি) হয়েছে ২৩৮.২১ টাকা।। যা আগের বছর একই সময় লোকসান ছিল ০.৭১ টাকা, এনওসিএফপিএস ছিল ৭.২৮ টাকা এবং এনএভিপিএস ছিল ২৮৬.৮৫ টাকা।

২০১৫ সমাপ্ত অর্থবছরে কোম্পানিটি ২০ শতাংশ স্টক ডিভিডেন্ড ঘোষণা করেছিলো। আলোচিত সময়ে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছিলো ২.২৬ টাকা, শেয়ার প্রতি সম্পদ (এনএভিপিএস) হয়েছিলো ২৮৭.৯৪ টাকা (নেগেটিভ) এবং শেয়ার প্রতি কার্যকরী নগদ প্রবাহের পরিমাণ হয়েছিলো ৯.১১ টাকা (নেগেটিভ)।  গত মাসে এ কোম্পানির শেয়ার দর কমেছে ২২.০৬ শতাংশ।

শেয়ারবাজারনিউজ/এম.আর

আপনার মন্তব্য

*

*

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

Top