বার্সায় ভাঙ্গন!

indexghfghfghfনতুন বছর নিয়ে আসে নতুন সম্ভাবনা। কিন্তু বার্সেলোনার জন্য সেই ‘সম্ভাবনা’র বদলে ২০১৫ সালের শুরুটা হলো ‘শঙ্কা’ নিয়ে! একসঙ্গে অনেকগুলো খারাপ খবরে বছরের শুরুতেই যেন টালমাটাল কাতালান ক্লাবটি। বছর শুরুর আগেই তারা পেয়েছিল প্রথম দুঃসংবাদটি, কোর্ট অব আরবিট্রেশনেও হেরে যাওয়ায় এ বছর দলবদলে কোনো খেলোয়াড়ই কিনতে পারবে না তারা। সেই খবরটা হজম করতে না করতেই বছরের প্রথম ম্যাচে রিয়াল সোসিয়েদাদের কাছে হার। সেই ম্যাচটা বেঞ্চে বসে শুরু করেছিলেন লিওনেল মেসি ও নেইমারের মতো খেলোয়াড়রা, হারের খবর বাতাসে মিলিয়ে যাওয়ার আগেই স্প্যানিশ মিডিয়ায় গুঞ্জন- বিষয়টি নাকি ঠিক হজম করতে পারেননি চারবারের বর্ষসেরা ফুটবলার। কোচ লুই এনরিকের সঙ্গে তাঁর নাকি তর্কও হয়েছে এ নিয়ে। পেট ব্যথার কারণে সোমবার মেসির অনুশীলনে উপস্থিত না থাকা আরো উসকে দিয়েছে গুঞ্জনটাকে। আর এসব গুঞ্জনের ফাঁকে বড় একটা পরিবর্তনও হয়ে গেছে স্প্যানিশ ক্লাবটিতে- ফুটবল ডিরেক্টর আনদোনি জুবিজারেতাকে বরখাস্ত করা হয়েছে এবং সেই খবর শুনে নিজেই সরে দাঁড়ানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছেন তাঁর সহকারী ক্লাব কিংবদন্তি কার্লেস পুয়োল। শোনা যাচ্ছে, এনরিকের চাকরিও নাকি ঝুলছে মিহি সুতোয়!

স্প্যানিশ জাতীয় দলের সাবেক গোলরক্ষক জুবিজারেতাকে মূল্য দিতে হয়েছে দলবদলের বাজারে ভুল সিদ্ধান্ত নেওয়ার জন্য। গত গ্রীষ্মে যে সাতজন খেলোয়াড়কে কিনেছেন তিনি, তাঁদের মধ্যে কেউই নজর কাড়তে পারেননি সেভাবে। ৭৫ মিলিয়ন ইউরো দিয়ে কেনা লুই সুয়ারেস এখন পর্যন্ত লিগে গোল করেছেন মোটে একটি, এর চেয়েও বিব্রতকর হয়েছে দুই ডিফেন্ডার মার্ক ভারমিউলেন ও ডগলাসের সঙ্গে করা চুক্তি। মৌসুমের অর্ধেক চলে যাওয়ার পর দুজনে মিলে খেলেছেন মোটে একটি ম্যাচ! খেলোয়াড় কেনাবেচা নিয়ে ফিফা ও কোর্ট অব আরবিট্রেশনের সঙ্গে লড়াইয়েও চরম ব্যর্থতার পরিচয় দিয়েছেন তিনি। সব মিলিয়ে তাঁর ওপর বিরক্ত বার্সেলোনার ভারপ্রাপ্ত সভাপতি জোসেপ বার্তোমিউ সিদ্ধান্ত নিয়েছেন চুক্তি বাতিল করার, আনুষ্ঠানিক এক বিবৃতিতে ক্লাবের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে এ খবর। আর এর পর পরই তাঁর সহকারী পুয়োল নিজেই জানিয়েছেন, ‘আমি সিদ্ধান্ত নিয়েছি বার্সেলোনার সঙ্গে আমার চুক্তি বাতিল করার। হয়তো অন্য কোথাও অন্য কিছু করার চেষ্টা করব আমি।’ আজ বিকেলে ক্লাবে এক সংবাদ সম্মেলন ডেকেছেন বার্তোমিউ, ধারণা করা হচ্ছে যে সেখানে নতুন ফুটবল ডিরেক্টরের নাম ঘোষণা করা হবে। খুব সম্ভব দায়িত্বটি পেতে যাচ্ছেন বর্তমানে ফিওরেন্তিনার দায়িত্বে থাকা এদুয়ার্দো মেসিয়া। তবে এমন যুক্তিও দেখাচ্ছেন কেউ কেউ, বার্সা যখন দলবদলের বাজারেই নেই, তখন ফুটবল ডিরেক্টরের প্রয়োজনটাই বা কোথায়?

তবে স্প্যানিশ মিডিয়ায় সবচেয়ে বড় গুঞ্জনটা আপাতত মেসিকে নিয়ে। মুন্দো দেপোর্তিভো পত্রিকা জানিয়েছে, ক্রিসমাসের ছুটি কাটিয়ে ক্লাবে ফেরার পর থেকেই এনরিকের সঙ্গে খুটখাট লেগে আছে আর্জেন্টাইন সুপারস্টারের। সেটা প্রকাশ্যে এসেছিল শুক্রবার- অনুশীলনে দুই দলে ভাগ হয়ে খেলছিলেন বার্সেলোনার খেলোয়াড়রা, এনরিকে ছিলেন রেফারি। মেসির একটি ফাউলের দাবি তিনি উপেক্ষা করায় নাকি মাঠেই তর্কে জড়ান তাঁরা দুজন। এমন তর্ক হয়েছে পরদিন সোসিয়েদাদের বিপক্ষে ম্যাচের সময়ও। তারপর মেসি নাকি আনুষ্ঠানিকভাবে অভিযোগ করেছেন এনরিকের নামে। ড্রেসিংরুমে অতিরিক্ত কর্তৃত্বপরায়ণতার কারণে তাঁর ওপরে বিরক্ত অন্য খেলোয়াড়রাও, বিশেষ করে একাদশ নির্বাচনে তাঁর কৌশলটা পছন্দ হচ্ছে না কারো। কারণ নিজেদের জায়গাটাই যে ঠিক বুঝতে পারছেন না তাঁরা- এ মৌসুমে কোনো ম্যাচেই বার্সেলোনার কোচ অপরিবর্তিত রাখেননি আগের ম্যাচের একাদশ!

অতীত অভিজ্ঞতা বলছে এমন পরিস্থিতিতে এনরিকেরই বিদায় নেওয়ার কথা। কিন্তু পেট ব্যথার কারণে ছুটি নিয়ে মেসির ইনসটাগ্রামে চেলসির খোঁজখবর নেওয়া আবার ব্রিটিশ মিডিয়ায় উসকে দিয়েছে অন্য গুঞ্জন। তাহলে কি খুদে জাদুকরকে অচিরেই দেখা যেতে পারে স্ট্যামফোর্ড ব্রিজে? তাঁর সাবেক সতীর্থ সেস্ক ফাব্রেগাসের জবাব, ‘কেন নয়? আমি তো ওকে এখানে দেখতে পেলে খুবই খুশি হব।’ তবে বাস্তবতা যে অন্য রকম, সেটা তিনিও জানেন, আর সাবেক বার্সা খেলোয়াড় হিসেবে মনে করেন, ‘মেসির বার্সেলোনাতেই ক্যারিয়ার শেষ করে অবসর নেওয়া উচিত।’ এএফপি, রয়টার্স, গোল ডটকম।

আপনার মন্তব্য

Top