রোববার ইউনাইটেড পাওয়ারের লেনদেন শুরু: আসছে দু’বছরের ডিভিডেন্ড

Untitled_sharebazar_news_logoশেয়ারবাজার রিপোর্টঃ আগামী ৫ এপ্রিল রোববার দেশের উভয় স্টক এক্সচেঞ্জে বিদ্যুৎ ও জ্বালানি খাতের ইউনাইটেড পাওয়ার জেনারেশন অ্যান্ড ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানি লিমিটেডের (ইউপিজিডিসিএল) শেয়ার লেনদেন শুরু হবে। কোম্পানি সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

এদিন সকাল সাড়ে ১০টায় এ ক্যাটাগরির অধীনে লেনদেন শুরু করতে যাওয়া ইউনাইটেড পাওয়ারের ট্রেডিং কোড-UPGDCL আর ডিএসইর কোম্পানি কোড-১৫৩১৮  এবং সিএসইর কোম্পানি কোড-২০০১৮।

এদিকে কোম্পানির আর্থিক বিবরণী প্রকাশের সময় ২০১৩ ও ২০১৪ সমাপ্ত অর্থবছরের ডিভিডেন্ড বিনিয়োগকারীরা একসঙ্গে পাবেন। কোম্পানির তালিকাভুক্তির অনুমোদনের পর এ ব্যাপারে চিফ ফিন্যান্সিয়াল অফিসার (সিএফও) ইবাদত হোসেন শেয়ারবাজার নিউজ ডটকমকে এ তথ্য জানিয়েছেন।

তিনি জানান, ২০১৩ সালের তুলনায় ২০১৪ সালে আমাদের আয় অনেক বৃদ্ধি পেয়েছে। পাশাপাশি মুনাফা ও ইপিএসে ইতিবাচক প্রভাব পড়বে। ইউনাইটেড পাওয়ার থেকে বিনিয়োগকারীরা সবসময় প্রত্যাশিত ডিভিডেন্ড পাবেন। ২০১৩ ও ২০১৪ সমাপ্ত অর্থবছরের বার্ষিক সাধারণ সভা (এজিএম) আমাদের একসঙ্গে করতে হবে। এক্ষেত্রে বর্তমানে সময়ে মার্কেটে আসায় বিনিয়োগকারীরা দু’বছরের ডিভিডেন্ড এক সঙ্গে পাবেন বলে জানান তিনি।

তিনি আরো বলেন, এতে এ কোম্পানিতে বিনিয়োগে বিনিয়োগকারীরা ব্যাপক লাভবান হবেন। তাছাড়া মার্কেট পিই ও ২০১৩ সালের ইপিএস অনুযায়ী ইউনাইটেড পাওয়ারের শেয়ার দর ১০০ টাকা অতিক্রম করার কথা। আসন্ন আর্থিক প্রতিবেদনে মুনাফা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে ইপিএসের পরিমাণও বাড়বে। এতে বাজার দর অনেক বৃদ্ধি পাবে। ক্রেডিট রেটিং অনুযায়ী কোম্পানির আর্থিক ভীত অত্যন্ত মজবুত। তাই বিনিয়োগকারীরা এ কোম্পানির প্রতি দৃঢ় আস্থা রাখতে পারেন বলেও জানান ইবাদত হোসেন।

এর আগে গত  বৃহস্পতিবার ডিএসই’র পরিচালনা পর্ষদের সভায় কোম্পানিটিকে তালিকাভুক্তির অনুমোদন দেওয়া হয় বলে জানা যায়।

উল্লেখ্য, কোম্পানির আইপিও আবেদন গত ১৮ জানুয়ারি থেকে শুরু হয়ে ২২ জানুয়ারি পর্যন্ত চলে। এবং প্রবাসী বিনিয়োগকারীদের জন্য এ সুযোগ ছিল ৩১ জানুয়ারি পর্যন্ত। আইপিওতে কোম্পানিটির ৮৩৭ কোটি টাকার আবেদন জমা পড়ে, যা চাহিদার ৫.৮৭ গুণ। গত ১৭ ফেব্রুয়ারি কোম্পানিটির আইপিও’র লটারি অনুষ্ঠিত হয়।

এর আগে বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (বিএসইসি) ৫৩১তম সভায় এ কোম্পানির আইপিও অনুমোদন দেওয়া হয়।

উল্লেখ্য, ইউনাইটেড পাওয়ারকে ২০১৪ সালের ১৬ ফেব্রুয়ারি বিডিংয়ের অনুমোদন দেয় কমিশন। ওই সময় প্রতিটি শেয়ারের নির্দেশক মূল্য ৬০ টাকা নির্ধারিত হয়। ৬ ক্যাটাগরির ২৮ প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারী বিডিংয়ে অংশ নেয়। এবং ৭২ টাকা নির্দেশক মূল্য ধার্য হয়।

২০১৪ সালের জুন শেষ হওয়া অর্থবছরের নিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন অনুযায়ী প্রতি শেয়ারে আয় (ইপিএস) হয়েছে ৫ টাকা ৯৮ পয়সা। নেট এসেট ভ্যালু (এনএভি) হয়েছে ২৩ টাকা ৬৪ পয়সা ।

কোম্পানিটির ইস্যু ব্যবস্থাপনার দায়িত্বে রয়েছে লংকা বাংলা ইনভেস্টমেন্ট লিমিটেড। আর ইস্যুটির রেজিস্টার হিসেবে কাজ করছে আইসিবি ক্যাপিটাল ম্যানেজমেন্ট লিমিটেড।

 

শেয়ারবাজার/রু/ও

আপনার মন্তব্য

*

*

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

Top