৯ কোম্পানিকে সর্তক করলো বিএসইসি

BSECশেয়ারবাজার রিপোর্ট: দেশের শেয়ারবাজারে তালিকাভুক্ত ৮ কোম্পানি এবং হাবিব গ্রুপের সাবসিডিয়ারি প্রতিষ্ঠান রিজেন্ট স্পিনিং মিলস লিমিটেডকে সতর্ক করেছে নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি)। তালিকাভুক্ত কোম্পানিগুলো হলো- এসিআই ফরমুলেশন, এসিআই লিমিটেড, ফারইস্ট ফাইন্যান্স অ্যান্ড ইনভেস্টমেন্ট, সায়হাম কটন মিলস, তসরিফা ইন্ডাস্ট্রিজ, সেন্টাল ফার্মাসিটিক্যাল, দ্য ঢাকা ডাইংয়ে অ্যান্ড ম্যানুফ্যাকচারিং এবং সুহৃদ ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেড। বিএসইসির এনফোর্সমেন্ট বিভাগ সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

সূত্র মতে, সিকিউরিটজ আইন পরিপালনে ব্যর্থতা হওয়ায় কোম্পানিগুলোকে সতর্ক করেছে নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ এন্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি)। গত নভেম্বর মাসে কোম্পানিগুলোকে সতর্ক করে চিঠি দিয়েছে বিএসইসি।

জানা যায়, প্রাইস সেন্সসেটিভ আইন পালন না করায় এসিআই ফরমুলেশন ও এসিআই লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালকে সর্তক করে একটি চিঠি দেয় বিএসইসি। এর আগে গত ২৯ মে, ২০১৬ তারিখে সিকিউরিটিজ সংক্রান্ত আইন পালন না করায় কারণ দর্শানোর জন্য নোটিশ দিয়েছিল কমিশন। কারণ দর্শানোর জন্য গত ৩১ জুলাই এর শুনানি অনুষ্ঠিত হয়।

সেই শুনানিতে কোম্পানি ২টি আইন লঙ্ঘনের কারণ লিখিত আকারে কমিশনে দাখিল করে। সে প্রেক্ষিতে সার্বিক দিক বিবেচনা করে সিকিউরিটিজ সংক্রান্ত আইন যথাযথভাবে পালনে করার নির্দেশনা দিয়ে কোম্পানি দুইটিকে গত ৬ নভেম্বর একচি চিঠি দেয় কমিশন।

রেকর্ড ডেট সংক্রান্ত আইন প্রতিপালন না করায় ফারইস্ট ফাইন্যান্স অ্যান্ড ইনভেস্টমেন্টকে গত ৮ জুন ২০১৬ তারিখে সর্তক করে একটি চিঠি দেয় বিএসইসি। কারণ দর্শানোর জন্য গত ৩১ জুলাই এর শুনানি অনুষ্ঠিত হয়।

সেই শুনানিতে কোম্পানি আইন লঙ্ঘনের কারণ লিখিত আকারে কমিশনে দাখিল করে। সে প্রেক্ষিতে সার্বিক দিক বিবেচনা করে সিকিউরিটিজ সংক্রান্ত আইন যথাযথভাবে পালনে করার নির্দেশনা দিয়ে কোম্পানি গত ২৮ নভেম্বর একচি চিঠি দেয় কমিশন।

আর্থিক প্রতিবেদন সংক্রান্ত আইন প্রতিপালন না করায় সায়হাম কটন মিলস পরিচালক, ব্যবস্থাপক পরিচালক, কোম্পানি সেক্রেটারিকে নিয়ন্ত্রক সংস্থা সতর্ক করে চিঠি দেয়। এর আগে গত ১২ জুলাই এ জন্য কোম্পানির ব্যাবস্থাপনা পরিচালকের কাছে একটা সতর্ক চিঠি পাঠায় বিএসইসি। কারণ দর্শানোর জন্য গত ২৬ অক্টোবর এর শুনানি অনুষ্ঠিত হয়।

ঐ দিনের শুনানিতে প্রতিষ্ঠানটি আইন লঙ্ঘনের কারণ লিখিত আকারে কমিশনে দাখিল করে। এই প্রেক্ষিতে সার্বিক দিক বিবেচনা করে সিকিউরিটিজ সংক্রান্ত আইন যথাযথভাবে পালনে সতর্ক থাকার জন্য নির্দেশনাও দিয়েছে কমিশন।

একই আইন প্রতিপালন না করায় সেন্টাল ফার্মাসিটিক্যালের পরিচালক, ব্যবস্থাপক পরিচালক, কোম্পানি সেক্রেটারিকে গত ১৩ এপ্রিল একটা সতর্ক চিঠি পাঠায় বিএসইসি। কারণ দর্শানোর জন্য গত ২৬ অক্টোবর এর শুনানি অনুষ্ঠিত হয়।

ঐ দিনের শুনানিতে প্রতিষ্ঠানটি আইন লঙ্ঘনের কারণ লিখিত আকারে কমিশনে দাখিল করে। এই প্রেক্ষিতে সার্বিক দিক বিবেচনা করে সিকিউরিটিজ সংক্রান্ত আইন যথাযথভাবে পালনে সতর্ক থাকার জন্য নির্দেশনাও দিয়েছে কমিশন।

একই আইন প্রতিপালন না করায় দ্য ঢাকা ডাইং অ্যান্ড ম্যানুফ্যাকচারিং কোম্পানির পরিচালক, ব্যবস্থাপক পরিচালক, কোম্পানি সেক্রেটারিকে গত ৯ মে একটা সতর্ক চিঠি পাঠায় বিএসইসি। কারণ দর্শানোর জন্য গত ২৪ অক্টোবর এর শুনানি অনুষ্ঠিত হয়।

ঐ দিনের শুনানিতে প্রতিষ্ঠানটি আইন লঙ্ঘনের কারণ লিখিত আকারে কমিশনে দাখিল করে। এই প্রেক্ষিতে সার্বিক দিক বিবেচনা করে সিকিউরিটিজ সংক্রান্ত আইন যথাযথভাবে পালনে সতর্ক থাকার জন্য নির্দেশনাও দিয়েছে কমিশন।

এদিকে, আইপিও তহবিলের সদ্ব্যবহার না করায় তসরিফা ইন্ডাস্ট্রিজের কোম্পানির পরিচালক, ব্যবস্থাপনা পরিচালক এবং কোম্পানির সেক্রেটারীকে সর্তক করে একটি চিঠি দেয় বিএসইসি। গত ২৫ সেপ্টেম্বর এ জন্য কোম্পানির কাছে একটা সতর্ক চিঠি পাঠায় বিএসইসি। কারণ দর্শানোর জন্য গত ২৬ অক্টোবর এর শুনানি অনুষ্ঠিত হয়।

ঐ দিনের শুনানিতে প্রতিষ্ঠানটি আইন লঙ্ঘনের কারণ লিখিত আকারে কমিশনে দাখিল করে। এই প্রেক্ষিতে সার্বিক দিক বিবেচনা করে সিকিউরিটিজ সংক্রান্ত আইন যথাযথভাবে পালনে সতর্ক থাকার জন্য নির্দেশনাও দিয়েছে কমিশন।

একই আইন প্রতিপালন না করায় সুহৃদ ইন্ডাস্ট্রিজের কোম্পানির পরিচালক, ব্যবস্থাপনা পরিচালক এবং কোম্পানির সেক্রেটারীকে সর্তক করে একটি চিঠি দেয় বিএসইসি। গত ৫ জুন এ জন্য কোম্পানির কাছে একটা সতর্ক চিঠি পাঠায় বিএসইসি। কারণ দর্শানোর জন্য গত ২৬ অক্টোবর এর শুনানি অনুষ্ঠিত হয়।

ঐ দিনের শুনানিতে প্রতিষ্ঠানটি আইন লঙ্ঘনের কারণ লিখিত আকারে কমিশনে দাখিল করে। এই প্রেক্ষিতে সার্বিক দিক বিবেচনা করে সিকিউরিটিজ সংক্রান্ত আইন যথাযথভাবে পালনে সতর্ক থাকার জন্য নির্দেশনাও দিয়েছে কমিশন।

অন্যদিকে মূলধন বৃদ্ধি সংক্রান্ত আইন প্রতিপালন না করায় রিজেন্ট স্পিনিং মিলস লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালককে সর্তক করে একটি চিঠি দেয় বিএসইসি। গত ২০ সেপ্টেম্বর এ জন্য কোম্পানির কাছে একটা সতর্ক চিঠি পাঠায় বিএসইসি। কারণ দর্শানোর জন্য গত ১ অক্টোবর এর শুনানি অনুষ্ঠিত হয়।

ঐ দিনের শুনানিতে প্রতিষ্ঠানটি আইন লঙ্ঘনের কারণ লিখিত আকারে কমিশনে দাখিল করে। এই প্রেক্ষিতে সার্বিক দিক বিবেচনা করে সিকিউরিটিজ সংক্রান্ত আইন যথাযথভাবে পালনে সতর্ক থাকার জন্য নির্দেশনাও দিয়েছে কমিশন।

উল্লেখ্য, হাবিব গ্রুপের সাবসিডিয়ারি কোম্পানি রিজেন্ট টেক্সটাইল পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত রয়েছে।

শেয়ারবাজারনিউজ/এম.আর

 

আপনার মন্তব্য

*

*

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

Top