২০ লক্ষ থেকে ১৪০ কোটি ডলারে উন্নীত করা শেয়ারবাজার লিজেন্ড পিটার লিঞ্চ

Peter Lynch, vice chairman of Fidelity Management and Research, speaks to an attendee during a luncheon at the Chief Executives' Club of Boston, on Thursday, Oct. 30, 2008 in Boston, Massachusetts, U.S. Photographer: Michael Springer/Bloomberg News

শেয়ারবাজার রিপোর্ট: শেয়ার ব্যবসায় ১১ বছরেই ২০ লক্ষ ডলার থেকে ১৪০ কোটি ডলারে উন্নীত করা বিনিয়োগকারীর নাম পিটার লিঞ্চ।  ১৯৪৪ সালে যুক্তরাষ্ট্রের নিউটনের ম্যাসাচুয়েটসে জন্মগ্রহন করা এই সফল বিনিয়োগকারী বিশ্বজুড়ে সমাদৃত ও বিনিয়োগকারীদের মডেল হিসেবে পরিচিত হয়ে আসছে। স্টক মার্কেটে বিনিয়োগ প্রক্রিয়ায় ধারাবাহিকভাবে আটটি মৌলিক নীতি প্রয়োগ করা এই লিজেন্ড অন্যান্য বিনিয়োগকারীর সফল হওয়ার জন্য বেশকিছু দিক নির্দেশনা দিয়েছেন। লিখে গেছেন একাধিক বই। নিম্নের পিটার লিঞ্চের সংক্ষিপ্ত জীবনী ও বিনিয়োগকারীদের বিভিন্ন দিক নির্দেশনা তুলে ধরা হলো:

ব্যক্তিগত জীবনী

পিটার লিঞ্চ ম্যাগেল্লানলান ফান্ডের ম্যানেজার ছিলেন। সফল বিনিয়োগকারী হিসেবে লিঞ্চ বিশ্বব্যাপী সমাদৃত হওয়ার অন্যতম কারণ হচ্ছে, তার বিনিয়োগের ১৩ বছরের মধ্যে ১১ বছরই তার রিটার্ণ এসেছিল ২৯% এর বেশি যা কিনা ২০ লক্ষ ডলার থেকে ১৪০ কোটি ডলারে উন্নীত হয়েছিল। এছাড়া ও “”One Up On Wall Street” (1989) and “Beating The Street” (1993)নামে বেশ কিছু বই লিখেও তিনি বিখ্যাত হয়েছেন, যা একজন বিনিয়োগকারীর জন্য দিকনির্দেশনা স্বরূপ বাধ্যতামূলক পঠিত বই হিসেবে বিবেচনা করা হয।

১৯৬৫ সালে লিঞ্চ বোস্টন কলেজ থেকে ইতিহাস, মনোবিজ্ঞান এবং দর্শন শাস্ত্র নিয়ে স্নাতক ডিগ্রি অর্জন করেন।তিনি ১৯৬৮ সালে হোয়ারটন স্কুল অব পেনসিলভানিয়ার বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ব্যবসায় প্রশাসনের ওপর মাস্টার্স ডিগ্রী অর্জন করেন। এর আগে দুবছর তিনি সামরিক বাহিনীতে দায়িত্ব পালন করেছিলেন।

পিটার লিঞ্চ Fidelity Investments নামক প্রতিষ্ঠানে ইনভেস্টমেন্ট এনালিস্ট হিসেবে কাজ শুরু করেন যা কিনা অবশেষে একটি গবেষনা ফার্মে পরিণত হয়েছিল। ১৯৭৪ থেকে ১৯৭৭ সাল পর্যন্ত তিনি সে ফার্মে পরিচালক হিসেবে নিযুক্ত ছিলেন।১৯৭৭ সালে প্রতিষ্ঠিত সামান্য ম্যাগেল্লান ফান্ড থেকেই ‘ম্যানেজার’ হিসেবে লিঞ্চের নামকরন করা হয় এবং ১৯৯০ সালে অবসর গ্রহনের আগ পর্যন্ত এই বছরগুলোতে ইনভেস্টমেন্ট এনালিস্ট হিসেবে তিনি পোর্টফোলিওর ফলাফল অর্জনে ঐতিহাসিকভাবে সাফল্য অর্জন করেছিলেন।

২০০৭ সালে পিটার লিঞ্চ Fidelity’s investment ও Fidelity Management & Research Co এর ভাইস চেয়ারম্যান ও উপদেষ্টা হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। এরপর অবসর গ্রহন করার পর তিনি বিভিন্ন রকম মানবকল্যানমূলক কাজে অংশগ্রহন করতে মনোনিবেশ করেন। peter-2

বিনিয়োগের ধরন:

“chameleon,” নামক একটি বর্ননা হতে থেকে দেখা যায় যে, পিটার লিঞ্চ যাই হোক না কেন তার বিনিয়োগের ধরন ছিল সময়ের কাজ সময়ে করা। এতে বলা হয় যে, তার কাজের সময়সূচীকে সমতুল্য করা হয়েছে যাকে আমরা আজকের দিনে বলি “24/7,” অর্থাৎ, যার কোনো শুরু কিংবা শেষ নেই। কোম্পানির কর্মকর্তা, ইনভেস্টমেন্ট ম্যানেজার, শিল্প প্রিতিষ্ঠান বিশেষজ্ঞ এবং বিশ্লেষকদের সাথে তিনি দিনরাত কথা বলতেন।

স্টক মার্কেটে বিনিয়োগ প্রক্রিয়ায় লিঞ্চ ধারাবাহিকভাবে আটটি মৌলিক নীতি প্রয়োগ করতেন। The Ridgewood Group এর সিএফও কুশল মজুমদার এর বর্ননা অনুসারে, ২০০৫ সালে নিউইয়র্কে একটি বিনিয়োগ সম্মেলনে দর্শকদের সাথে লিঞ্চ তার চেক লিস্ট শেয়ার করেছিলেন।

১. আপনি যে শেয়ার ধরে রেখেছেন সেগুলো সম্পর্কে ভালো করে জানুন।

২. অর্থনীতি এবং সুদের হার নিয়ে ভবিষ্যদ্বানী করাটাই বৃথা।

৩.ব্যাতিক্রমী শেয়ার চিনতে এবং চিহ্নিত করার জন্য আপনার প্রচুর সময় রয়েছে।

৪.দীর্ঘমেয়াদি বিনিয়োগ এড়িয়ে চলুন।

৫. ভাল ব্যাবসা করার জন্য ভাল ব্যবস্থাপনা খুবই গুরুত্বপূর্ণ।

৬. নমনীয় এবং বিনয়ী হও, ভুল থেকে শিক্ষা লাভ করো।

৭. কোনো কিছু ক্রয় করার আগে কি কিনছেন অবশ্যই তা ব্যাখ্যা করার সক্ষমতা অর্জন করা উচিত।

৮. সবসময়ই চিন্তার কিছু না কিছু থাকবেই।

peter-4পিটার লিঞ্চের প্রকাশনাসমূহ:

  • “One Up On Wall Street” by Peter Lynch with John Rothchild (1989)
  • “Beating The Street”Peter Lynch with John Rothchild (1993)
  • “Learn To Earn”Peter Lynch with John Rothchild (1996)

বানীসমূহ:

সফল ইনভেস্টর হওয়ার জন্য পিটার লিঞ্চের কিছু উক্তি বা বানী নিচে দেওয়া হলো-

১. কখনো কোনো ধারণাতে ইনভেস্ট করা উচিত নয়- অর্থাৎ ট্রেড সবসময় ‘সিম্পল’ রাখা উচিত।

২. যে স্টকগুলো আপনার হাতে আছে সেটাই হতে পারে বেস্ট- ট্রেডার্সরা তখনই সফল হতে পারে যখন কিনা তারা তাদের কাছে যে শেয়ারগুলো রয়েছে শুধুমাত্র তাতেই নজর দেয়।

৩. শেয়ারবাজারের দরপতন থেকে বাঁচার নিশ্চিত উপায়- অনেক ট্রেডার্সরা winning streak এ হিট করে যেখানে তারা তাদের ভুল করা থেকে অনেকটা বিরত থাকে। একজন ট্রেডার্সকে সবসময় মনে রাখতে হবে তার winning trades যে কোন সময় losing trade এ পরিণত হতে পারে।

peter-3৪.BUY করার আসল সময় হল যখন analystsরা বিরক্ত- কিছু analyst আছে যারা কিনা তাদের স্টক লিস্ট এ companies গুলোকে নজরে রাখে এমনকি কিছু সময়ে analystরা পুরনো স্টক এর উপরে নজর না দিয়ে নতুন গুলোতে দেয়। আর তখনই ট্রেডার্সদের সেসব পুরনো স্টক এ নজর দিতে হবে।

৫.প্রত্যেকটি স্টক এর Company এর বেপারে নজর রাখা- Investors দের শুধুমাত্র প্রাইস এর দিকে না তাকিয়ে ফান্ডামেন্টাল এবং কোম্পানি কি করছে তা সম্পর্কে খোজ খবর রাখা। কিছু ট্রেডার্স আছে যারা কিনা ফান্ডামেন্টাল এর দিকে ফোকাস না করে জাঙ্ক শেয়ারের দিকে ঝোঁকে থাকে যার ফলে তা স্বল্প সময়ের জন্য লাভ দেখিয়ে পরবর্তীতে লোকসান দেখায়।

শেয়ারবাজারনিউজ/মা/ম.সা

 

আপনার মন্তব্য

*

*

Top