নতুন বছরে পুঁজিবাজারের হারানো গৌরব ফিরে আসুক

Editorial২০১৬ সালের প্রথম ছয় মাস বাজার ঢিমেতালে চললেও শেষ ছয় মাস কেটেছে নতুন সূর্যদোয়ের মতো। মূলত জুলাই মাসে এক্সপোজার ইস্যুতে বাংলাদেশ ব্যাংকের নীতি সহায়তা দেয়ার পর থেকেই বিনিয়োগকারীদের আর পেছন ফিরে তাকাতে হয়নি। এছাড়া বাজারের প্রতি আস্থা আরো গভীর করার জন্য সরকারের আন্তরিকতার কোনো কমতি ছিল না। ‘পুঁজিবাজার স্থিতিশীলতায় যা করণীয় সবই করা হবে’ নীতিনির্ধারণী বিভিন্ন মহল থেকে এরকম বার্তা পাওয়ার পর বিদেশি বিনিয়োগকারী,পোর্টফলিও ম্যানেজার তথা প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীরা সক্রিয় হয়ে উঠেছে।

যার ফলাফল হিসেবে দেখা গেছে, রেকর্ড পরিমাণ বিদেশি বিনিয়োগ বৃদ্ধি, ৫ হাজারের ঘরে সূচকের অবস্থান, হাজার কোটিতে দৈনিক লেনদেন, ৩ লাখ ৪০ হাজার কোটির ওপরে বাজার মূলধন ইত্যাদি। ২০১৬ সালের বাজার শুরুর প্রথম দিন অর্থাৎ ৩ জানুয়ারি সূচক ছিল ৪ হাজার ৬২৪, দৈনিক লেনদেন ৩৬৬ কোটি এবং বাজার মূলধন ৩ লাখ ১৫ হাজার কোটি টাকা। সেখানে ২০১৬ সালের শেষ দিনে অর্থাৎ ২৯ ডিসেম্বর সূচক দাঁড়িয়েছে ৫ হাজার ৩৬, দৈনিক লেনদেন ১ হাজার ৭০ কোটি এবং বাজার মূলধন ৩ লাখ ৪১ হাজার কোটি টাকা।

সারা বছরের ধারাবাহিক অগ্রগতি এবং বাজার সংশ্লিষ্ট সর্বমহলের ইতিবাচক মনোভাব ২০১৭ সালের পুঁজিবাজারকে আরো গতিশীল করে তুলবে এমনটাই মনে করছেন বাজার বিশ্লেষকরা।

তারা বলছেন, ২০১৬ সালের পুঁজিবাজার ইতিবাচক প্রবণতায় অতিক্রম করেছে। ২০১৭ সালের শুরুতেই নানা সুখবর দিয়ে পুঁজিবাজার যাত্রা শুরু করবে। আগামী ৮ জানুয়ারি প্রধানমন্ত্রী ফিন্যান্সিয়াল লিটারেসি প্রোগ্রাম উদ্ভোধন করবেন। এতে সাধারণ বিনিয়োগকারীরা বিনিয়োগ শিক্ষার সুযোগ পাবে। এছাড়া আগামী ৯ থেকে ১১ জানুয়ারি সরকারের উদ্যোগে ৬৪ জেলায় উন্নয়ন মেলা অনুষ্ঠিত হচ্ছে এবং বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (বিএসইসি) নেতৃত্বে পুঁজিবাজার সংশ্লিষ্টরা ২৮ জেলায় অংশগ্রহণ করছেন। এই পুঁজিবাজার মেলার মাধ্যমে অনেক নতুন বিনিয়োগকারী বাজারে সম্পৃক্ত হবে। এতোসব সুখবরে ২০১৭ সালে দৈনিক গড় লেনদেন শুধুমাত্র হাজার কোটিতে নয় বরং দেড় হাজার কোটির ওপরে হবে এমনটাই আশা করছেন বাজার সংশ্লিষ্টরা।

লক্ষণীয় বিষয় হচ্ছে, ২০১৬ সালে শিল্পোদ্যোক্তারা বাজার থেকে বিপুল পরিমাণ অর্থ সংগ্রহ করে দেশের শিল্প ও বানিজ্যে প্রসারে দায়িত্বশীল ভূমিকা রেখেছেন। ১১টি প্রতিষ্ঠান প্রাথমিক গণপ্রস্তাব বা আইপিও’র মাধ্যমে ৮৪৯ কোটি ৩০ লাখ টাকা মূলধন সংগ্রহ করেছে৷ এছাড়াও ২০১৬ সালে মোট ১১টি সিকিউরিটিজ ১ হাজার ১১১ কোটি ৯০ লাখ টাকার পরিশোধিত মুলধন নিয়ে ডিএসইতে তালিকাভুক্ত হয়েছে ৷ ৩টি কোম্পানি রাইট শেয়ার ইস্যুর মাধ্যমে ৩৬৫ কোটি ৮০ লাখ টাকা মূলধন সংগ্রহ করেছে ৷ ২০১৬ সালে মোট তালিকাভুক্ত ১২৬ কোম্পানি ২৫০ কোটি ৮০ লাখ বোনাস শেয়ার ইস্যুর মাধ্যমে ২ হাজার ৫০৮ কোটি ৫০ লাখ টাকা মূলধন করেছে।

বৈদেশিক লেনদেনের ক্ষেত্রে ২০১৬ সাল অতীতের সকল রেকর্ড ভঙ্গ করে নতুন মাইলফলক সৃষ্টি করেছে ৷ ২০১৬ সালে বিদেশি বিনিয়োগকারীদের মোট লেনদেনের পরিমান দাঁড়িয়েছে ৮ হাজার ৭৭৩ কোটি ২৯ লাখ টাকা। এর মধ্যে বিদেশিরা ৫ হাজার ৫৭ কোটি টাকার শেয়ার কিনেছেন। অন্যদিকে ৩ হাজার ৭১৬ কোটি ২০ লাখ টাকার শেয়ার বিক্রি করেছেন।

পুঁজিবাজারের অনুকূলে নেই এমন কোনো ইস্যু বর্তমানে নেই। পুঁজিবাজারে নেতিবাচক প্রভাব পড়ে এমন কোনো ইস্যু যেন ২০১৭ সালে আমাদের যেন দেখতে না হয়। ২০১৬ সালের অগ্রগতির ধারাবাহিকতা ২০১৭ সালেও অব্যাহত থেকে বাজারকে তার হারানো গৌরব ফিরিয়ে দেবে এমনটাই প্রত্যাশা সকলের।

আপনার মন্তব্য

Top