২০১৬ সালে যেসব কোম্পানির শেয়ার দর সবচেয়ে বেশি বৃদ্ধি ও হ্রাস পেয়েছে

share-bazar-up-downশেয়ারবাজার রিপোর্ট: দেশের শেয়ারবাজারে গত বছর বড়মূলধনী বা মৌলভিত্তির তুলনায় দর বৃদ্ধির দিক থেকে স্বল্পমুলধনী কোম্পানিগুলো দর সবচেয় বেশি বেড়েছে। অন্যদিকে, দর হ্রাসের মধ্যে সবচেয়ে বেশি কমেছে বড়মূলধনী বা মৌলভিত্তি কোম্পানিগুলোর। আর কোম্পানিগুলোর এ শেয়ার দর বাড়ার বৃদ্ধি ও হ্রাসকে অনেকেই কারসাজি চক্র ও গুজবকেই দায়ি করছে।

বাজার সংশ্লিষ্টরা বলেন, স্বল্পমুলধনী কোম্পানিগুলোকে ঘিরে কারসাজির প্রবণতা বেশি থাকে। কারণ কোম্পানিগুলোর মূলধন কম। ফলে মাঝে মধ্যে কোন কারণ ছাড়াই শেয়ার দর অস্বাভাবিকভাবে বাড়তে দেখা যায়। আবার একটি নির্দিষ্ট সময় শেষে শেয়ারগুলোর দর তলানিতে নেমে যায়। এর পেছনে যারা কলকাঠি নাড়ে তারা মূলত কারসাজি চক্র। কারসাজি চক্রের ফাঁয়দা হাসিল হয়ে গেলে তারা শেয়ার বিক্রি করে বেড়িয়ে যায়।

২০১৬ সালে সবচেয়ে বেশি দর বাড়া কোম্পানিগুলোর মধ্যে- জিলবাংলা সুগার মিলসের ৫৮৬.৪০ শতাংশ, শ্যামপুর সুগারের ৩০৬.২০ শতাংশ, ইস্টার্ণ লুবিকেন্টসের ২৯৫.৪০ শতাংশ, জেমিনী সী ফুডের ২৪০.১০ শতাংশ, রহিমা ফুডের ২২০.৬০ শতাংশ, ফাইন ফুডসের ১৭১.২০ শতাংশ, গোল্ডেন হাভেস্ট এগ্রোর ১৬১.৮০ শতাংশ, রেনউইক যঞ্জেশ্বরের ১৫৫.১০ শতাংশ, মিরাকল ইন্ডাস্ট্রিজের ১৫৩.৭০ শতাংশ এবং সিএমসি কামালের ১২৭.৯০ শতাংশ শেয়ার দর বেড়েছে।

এদিকে, দর কমার কোম্পানিগুলো মধ্যে- বঙ্গজের ৪৬.৬০ শতাংশ, তাল্লু স্পিনিংয়ের ৪০.৭০ শতাংশ, অলটেক্স ইন্ডাস্ট্রিজের ৩৮.৭০ শতাংশ, এমারাল্ড অয়েলের ৩৬.৭০ শতাংশ, সিভিও পেট্রোকেমিক্যালের ৩৬.৫০ শতাংশ, পিপলস লিজিং অ্যান্ড ফাইন্যান্সের ৩৫.৭০ শতাংশ, বিডি ওয়েল্ডিংয়ের ৩৩.৫০ শতাংশ, ম্যারিকোর ৩৩.১০ শতাংশ, বিডি ল্যাম্পসের ৩২.৩০ শতাংশ, আরামিটের ৩১.৫০ শতাংশ শেয়ার দর কমেছে।

দর কমার কোম্পানিগুলোর বিষয়ে বাজার সংশ্লিষ্টরা বলছেন, গত বছর যেসব কোম্পনির শেয়ার দর অধিকাংশ কমেছে এর মধ্যে বেশিভাগ কোম্পানির উৎপাদন বন্ধ রয়েছে। তাছাড়া কিছু কোম্পানির ব্যবসার অবস্থা তেমন একটা ভাল না। তাই কোম্পানিরগুলোর শেয়ার দর থেকে অনেক বিনিয়োগকারী মুখ ফিরিয়ে নিয়েছে।

শেয়ারবাজারনিউজ/এম.আর

আপনার মন্তব্য

*

*

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

Top