আজ: রবিবার, ১৩ জুন ২০২১ইং, ৩০শে জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ২রা জিলকদ, ১৪৪২ হিজরি

সর্বশেষ আপডেট:

১২ এপ্রিল ২০১৫, রবিবার |


kidarkar

সম্পূর্ণভাবে নির্মূল হবে ‘ডায়াবেটিস’

diabetes-headশেয়ারবাজার ডেস্ক: ডায়াবেটিস একটি মারাত্মক রোগ। এ রোগটির সাথে প্রায় সকলেই বেশ পরিচিত। কেউ কেউ একে অন্যান্য সকল মারাত্মক রোগের জননী বলে। কাঠের সাথে ঘুণের যে সর্ম্পক, শরীরের সাথে ডায়াবেটিসের সে সম্পর্ক। অর্থাৎ কাঠে ঘুণ ধরলে যেমন এর স্থায়িত্ব নষ্ট হয়ে যায়, তেমনি ডায়াবেটিস অনিয়ন্ত্রিত থাকলে তাড়াতাড়ি শরীর ভেঙ্গে পড়ে। যে সকল মানুষ ডায়াবেটিস এর সাথে লড়াই করে বেঁচে আছেন, তাদেরকে অনেক বার শুনতে হয়েছে যে, ডায়াবেটিস কখনও নিরাময় হয় না। আধুনিক ঔষধ বিভিন্ন ধরণের মরণব্যাধি নিরাময় করতে সক্ষম। কিন্তু, এত ফার্মাসিউটিকাল কোম্পানি থাকা সত্ত্বেও এখনো ডায়াবেটিস সম্পূর্ণভাবে নিরাময় করার ঔষধ তৈরিতে সক্ষম হয় নি।

এ সকল তথ্য এখন সম্পূর্ণরূপে মিথ্যা বলে প্রমানিত হয়েছে। ডাক্তার ডেভিড পিয়ারসন একজন বিখ্যাত ডায়াবেটিস বিশেষজ্ঞ। তিনি ডায়াবেটিসের কারণে তার বাবার মৃত্যুর পর এই অসুস্থতাকে বুঝার জন্য তার জীবন উৎসর্গ করেন।

তার গবেষণায় কিছু চমকপ্রদ তথ্য জানা যায়। তিনি খুঁজে পান যে-
১. অগ্ন্যাশয়ই একমাত্র অঙ্গ নয় যা ইনসুলিনের পরিমাণ হ্রাস করে।
২. লিভার এক প্রকার রাসায়নিক পদার্থ তৈরি করে যার নাম- IGF (Insulin Growth Factor) ইনসুলিনের বৃদ্ধি ফ্যাক্টর।
৩. IGF শরীরের গ্লুকোজ এর মাত্রা নিয়ন্ত্রণ করে ইনসুলিনের মত কাজ করে।
৪. IGF ব্যবহার করে খুব সহজেই এবং অল্প খরচে ডায়াবেটিস নিরাময় করা যায়।
৫. ফার্মাসিউটিক্যাল কোম্পানিগুলো আসলে এই নিরাময় সম্পর্কে জানত।

ডাক্তার পিয়ারসন এর তথ্যমতে, বিগ ফার্মা এই নিরাময় জ্ঞান সম্পর্কে জানার পরও এই তথ্যটি গোপন করে রাখে। কারন তারা জানেন, এর ফলে তাদের কোন লাভ হবে না। এর পরিবর্তে তারা দামী ঔষধ বিক্রয় করে লাভ করছে এবং অসংখ্য মানুষকে মৃত্যুর মুখে পতিত করছে।
সুতরাং, এভাবেই সকল কার্যক্রম শুরু থেকে চলে আসছে।

# ইনসুলিন সম্পর্কে মিথ্যা:
বছরের পর বছর মেডিকেল শিল্প বলেছেন, গ্লুকোজ অগ্ন্যাশয় এর দ্বারা নিয়ন্ত্রিত হয়। তাই, টাইপ ১ এর ডায়াবেটিসের রোগীরা এই রোগের সাথে সারাজীবন বসবাসের দণ্ডপ্রাপ্ত হয়।

কিন্তু, শুধুমাত্র ইনসুলিনের মাধ্যমে আপনার শরীরের গ্লুকোজের পরিমাণ নিয়ন্ত্রণে আনা সম্ভব নয়।

IGF লিভারে তৈরি হয় এবং এটি অবিশ্বাস্যভাবে কার্যকরী। ডাক্তার পিয়ারসন এই ইনসুলিনকে আরও ১০০ গুণ শক্তিশালী বলে খুঁজে পেয়েছেন।
আরও উল্লেখযোগ্য হল আপনার শরীরের স্বাভাবিক IGF এর মাত্রা বৃদ্ধি করা সহজ। এর জন্য শুধুমাত্র প্রাকৃতিক খাবারের প্রয়োজনীয়তা রয়েছে। কোন দামী ঔষধের প্রয়োজন নেই। আপনি সুস্বাদুভাবে এসকল খাবার খেতে পারেন।

# শ্রেষ্ঠ অংশ:
ডাক্তার পিয়ারসন এর নতুন আবিষ্কার মাত্র ১৪ দিনের মধ্যে কাজ করে। তার শেকস মাত্র ২ সপ্তাহের মধ্যে ডায়াবেটিসের রোগীদের আরোগ্য করে।

# নিরাময়টি বোঝা:
এই নতুন আবিষ্কারটি অনেক সহজ, প্রাকৃতিক এবং খরচ কম। তাই, যে কেউ এই পদ্ধতি অনুসরণ করতে পারে।
এটা লিভারের প্রাকৃতিক ক্ষমতা উন্নত করে যাতে IGF এর মাত্রা সঠিক থাকে। ডাক্তার পিয়ারসন যে খাবার রোগীদের দিয়েছেন তা খুব সহজেই পাওয়া যায় এবং এর স্বাদও অনেক ভাল।

রক্ত পরীক্ষা, ঔষধ ও ডাক্তারের ভিজিট করে টাকা দেয়ার চক্র অবশেষে ভঙ্গ করতে পারেন।
ফার্মাসিউটিক্যাল কোম্পানিগুলো ডঃ পিয়ারসন কে মানুষের কাছে এ ঔষধ সম্পর্কে না জানানোর জন্য অনেকভাবে থামাতে চেষ্টা করেছেন। তারা যদি সফল হয়ে যান, তাহলে অনেক মানুষ কখনোই এই ডায়াবেটিসের ভয়ংকর ফাঁদ থেকে বের হতে পারবেন না।–সূত্র: ফাইট ডায়াবেটিস।

 

শেয়ারবাজারনিউজ/মু

 

আপনার মতামত দিন

Your email address will not be published.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.