বিপদে নৌকা মানুষকে রক্ষা করে: শেখ হাসিনা

Hasinaশেয়ারবাজার ডেস্ক: আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, আগামী প্রত্যেক নির্বাচনে নৌকায় ভোট দিয়ে আপনাদের সেবা করার সুযোগ করে দেবেন।

তিনি বলেন, ‘নৌকা, নূহ নবীর কিস্তি। বিপদে নৌকা মানুষকে রক্ষা করে। জনগণ নৌকায় ভোট দিয়ে সত্তুরের নির্বাচনে আওয়ামী লীগকে জয়যুক্ত করেছে বলেই আমরা স্বাধীনতা পেয়েছি। আপনারা ভোট দিয়েছেন বলেই দেশের উন্নয়ন করতে পেরেছি।’

মঙ্গলবার বিকেলে লক্ষ্মীপুর জেলা স্টেডিয়ামে স্থানীয় আওয়ামী লীগের এক জনসভায় এসব কথা বলেন প্রধানমন্ত্রী।

এর আগে দুপুর সোয়া ১টার দিকে প্রধানমন্ত্রীকে বহনকারী হেলিকপ্টারটি লক্ষ্মীপুরের দালাল বাজার ডিগ্রি কলেজ মাঠে অবতরণ করে। দুপুর ২টা ৫৫ মিনিটে ১০টি উন্নয়ন কাজের উদ্বোধন ও ১৭টি উন্নয়ন কাজের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপনের ফলক উন্মোচন করেন তিনি।

জনসভায় শেখ হাসিনা বলেন, আমরা মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বাংলাদেশকে গড়ে তুলবো। বাংলাদেশকে মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় উন্নত করতে চাই, শান্তি নিরাপত্তা আনতে চাই।

সরকারের উন্নয়ন কর্মকাণ্ড তুলে ধরে তিনি বলেন, আমরা সরকারে এলে দেশের উন্নয়ন হয়। সবার হাতে এখন মোবাইল ফোন রয়েছে। কৃষক ভাইয়েরা এখন ব্যাংক অ্যাকাইন্ট খুলতে পারেন। আমরা জনগণের কল্যাণে কাজ করি। আওয়ামী লীগের কাছে চাইতে হয় না। কারণ আমরা দেশ স্বাধীন করেছি, আমরা জানি জনগণের কি প্রয়োজন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আমরা একদিন দেশের সব মানুষকে বিনা পয়সায় ঘরবাড়ি বানিয়ে দেবো। আমরাই দেশে বিনা পয়সায় বই বিতরণ করছি। আমরা দেশের জন্য, দেশের মানুষের জন্য কাজ করি। আমরাই বর্গা চাষীদের বিনা সুদে ঋণ দেওয়া শুরু করি।’

জনসভার শুরুতে প্রধানমন্ত্রী দেশকে স্বাধীন করতে বঙ্গবন্ধুর ভূমিকা তুলে ধরেন। প্রধানমন্ত্রী বলেন, ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও তার পরিবারের সদস্যদের হত্যার ঘটনার পর থেকেই বাংলাদেশে হত্যা-গুম-খুনের রাজনীতি শুরু হয়।

স্থানায় সাংবাদিক ও ধর্মীয় নেতাদের আহ্বান জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, আপনারা নিজ নিজ এলাকার সব ছেলে মেয়ের খোঁজ রাখবেন। তারা যেন জঙ্গিবাদের পথে না যায়। কারণ ইসলাম শান্তির ধর্ম। ইসলাম কোনও মানুষকে হত্যা করতে বলেনি।

শেখ হাসিনা বলেন, বর্তমান সরকার দেশে বিনা পয়সায় বই বিতরণ করেছে। আমরা দেশের জন্য, দেশের মানুষের জন্য কাজ করি। আমরাই বর্গা চাষীদের বিনা সুদে ঋণ দেওয়া শুরু করি। ২০ লাখ মাকে মোবাইল ফোন দিয়েছি। উপবৃত্তির টাকা যাবে এসব মোবাইল ফোনে। প্রতিটি উপজেলায় ডিজিটাল সেন্টার করে দিয়েছি।

লক্ষ্মীপুরবাসীর উদ্দেশে শেখ হাসিনা বলেন, লক্ষ্মীপুরের উন্নয়নের ব্যাপারে আপনাদের কোনো দাবি-দাওয়া করার প্রয়োজন নেই। এদেশ আমি চিনি। দেশের সব পথ-ঘাট আমার চেনা। প্রয়োজন অনুযায়ী উন্নয়ন করা হবে। লক্ষ্মীপুরসহ এই অঞ্চলের মানুষকে যাতে কাদা-পানির পথে না হাঁটতে হয় সেজন্য প্রতিটি ওয়ার্ড পর্যায় পর্যন্ত রাস্তা করে দেওয়া হবে।

শেয়ারবাজারনিউজ/মু

আপনার মন্তব্য

*

*

Top