সাবসিডিয়ারি কোম্পানি গঠনে অর্থমন্ত্রনালয়ের নয়া নির্দেশনা

Govt_logoশেয়ারবাজার রিপোর্ট: রাষ্ট্র মালিকানাধীন বাণিজ্যিক ও বিশেষায়িত ব্যাংক এবং আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলোর সাবসিডিয়ারি কোম্পানির পরিচালনা পর্ষদ একই ধরণের এবং একই প্রক্রিয়ায় গঠনের নির্দেশনা দিয়েছে অর্থমন্ত্রনালয়। বিভিন্ন নির্দেশনার মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলো পুঁজিবাজার সংশ্লিষ্ট কার্যক্রমে নিয়োজিত সাবসিডিয়ারি কোম্পানি অর্থাৎ মার্চেন্ট ব্যাংক ও সিকিউরিটিজ হাউজের ক্ষেত্রে ক্যাপিটাল মার্কেটের একজন অভিজ্ঞ লোক দিয়ে পর্ষদ গঠন করতে হবে।

অর্থমন্ত্রনালয়ের ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগ, কেন্দ্রীয় ব্যাংক অধিশাখার উপ-সচিব মো: রিজওয়ানুল হুদা স্বাক্ষরিত এ সংক্রান্ত পরিপত্র জারি করা হয়েছে। অর্থমন্ত্রনালয় সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

জানা যায়,  নির্দেশনার প্রথমেই বলা হয়েছে যে হোল্ডিং কোম্পানির পরিচালনা পর্ষদ কর্তৃক সাবসিডিয়ারি কোম্পানির পরিচালনা পর্ষদ গঠিত হবে। এরপরেই বলা হয়েছে সাবসিডিয়ারি কোম্পানির পরিচালনা পর্ষদের চেয়ারম্যান ও কোম্পানির সিইওসহ পরিচালনা পর্ষদে সর্বাধিক ৯ জন পরিচালক থাকতে পারবেন।

এছাড়া অন্যান্য নির্দেশনাগুলো হলো; (গ) হোল্ডিং কোম্পানির পরিচালনা পর্ষদের চেয়ারম্যান/ব্যবস্থাপনা পরিচালক/সিইও/উপ-ব্যবস্থাপনা পরিচালকগনের মধ্য হতে হোল্ডিং কোম্পানির পর্ষদ কর্তৃক সাবসিডিয়ারি কোম্পানির পর্ষদ চেয়ারম্যান নিযুক্ত হবেন।

তবে শর্ত থাকে যে, হোল্ডিং কোম্পানিটি ব্যাংক কোম্পানি হলে এবং সাবসিডিয়ারি কোম্পানিটি আর্থিক প্রতিষ্ঠান হলে উক্ত হোল্ডিং কোম্পানির পরিচালনা পর্ষদের চেয়ারম্যানকে সাবসিডিয়ারি কোম্পানিটির পর্ষদ চেয়ারম্যান নিযুক্তির ক্ষেত্রে ব্যাংক কোম্পানি আইন, ১৯৯১ এর ২৩(১) ধারার বিধান প্রতিপালন করতে হবে।

(ঘ) হোল্ডিং কোম্পানির পর্ষদ কর্তৃক সাবসিডিয়ারি কোম্পানির সিইও নিযুক্ত হবেন। সিইও সাবসিডিয়ারি কোম্পানির (ex-officio) পরিচালক হিসেবে গণ্য হবেন।

(ঙ) হোল্ডিং কোম্পানির উপ-ব্যবস্থাপনা পরিচালক/মহাব্যবস্থাপক পদ মর্যাদার নির্বাহীগণের মধ্য হতে সর্বাধিক তিন জনকে সাবসিডিয়ারি কোম্পানির পরিচালক হিসেবে নিয়োগ প্রদান করা যেতে পারে।

(চ) নিম্নোক্ত যোগ্যতা সম্পন্ন চার জন ব্যক্তিকে পরিচালক নিযুক্ত করা যেতে পারে:

(১) সরকারি চাকুরিতে কর্মরত রয়েছেন এমন ব্যক্তিগণের মধ্য হতে সরকার কর্তৃক মনোনীত কর্মকর্তা- ০১ জন।

(২) পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের বিজনেস স্ট্যাডিজ অনুষদ/বিজনেস এডমিনিষ্ট্রেশন বিভাগ/অর্থনীতি বিভাগ/ আইন বিভাগের ন্যুনতম সহযোগী অধ্যাপক- ০১ জন।

(৩) চার্টার্ড একাউন্ট্যান্ট অথবা কষ্ট অ্যান্ড ম্যানেজমেন্ট একাউন্ট্যান্ট – ০১ জন এবং

(৪) পুঁজিবাজার সংশ্লিষ্ট কার্যক্রমে নিয়োজিত সাবসিডিয়ারি কোম্পানির ক্ষেত্রে ক্যাপিটাল মার্কেট সম্পর্কিত প্রতিষ্ঠানের ব্যবস্থাপনা পরিচালক/সিইও বা উপ-ব্যবস্থাপনা পরিচালক/ডিসিইও পদ মর্যাদায় কর্মরত ছিলেন বা আছেন এমন একজন। অন্যক্ষেত্রে ব্যাংক অথবা আর্থিক প্রতিষ্ঠানে ন্যূনতম মহাব্যবস্থাপক পদ মর্যাদায় কর্মরত ছিলেন বা আছেন এমন একজন।

(ছ) হোল্ডিং কোম্পানির পর্ষদ বা নির্বাহী পদ হতে মনোনীত বা সরকার কর্তৃক মনোনীত সাবসিডিয়ারি কোম্পানির পরিচালক অব্যাহতি প্রাপ্ত হলে বা অবসরে গেলে বা চাকুরীরত না থাকলে সংশ্লিষ্ট পরিচালক এর পদ তাৎক্ষণিকভাবে শূন্য বলে গণ্য হবে।

(জ) পরিচালকদগণের মেয়াদকাল এর মেয়াদে সর্বাধিক তিন বছর হবে। নিয়োগের মেয়াদ নির্বিশেষে কোন পরিচালক পরপর তিন মেয়াদের বেশী পরিচালক হিসেবে মনোনীত হতে পারবেন না।

(ঝ) সাবসিডিয়ারি কোম্পানির ক্ষেত্রে পরিচালনা পর্ষদ গঠনের সময় বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন নিবন্ধিত মার্চেন্ট ব্যাংকার বা স্টক ডিলার বা স্টক ব্রোকার বা সম্পদ ব্যবস্থাপক সংশ্লিষ্ট সিকিউরিটিজ সংক্রান্ত আইন ও বিধিবিধান পরিপালন করতে হবে।

শেয়ারবাজারনিউজ/ম.সা

আপনার মন্তব্য

Top